fbpx

|

“অনিয়ম,দুর্নীতির সাথে বসবাস ইউপি সদস্যের”

প্রকাশিতঃ ২:১৩ অপরাহ্ন | জুন ০৪, ২০২১

"অনিয়ম,দুর্নীতির সাথে বসবাস ইউপি সদস্যের"

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার দন্ডপাল ইউনিয়নের এক সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে বিভিন্নভাবে সরকারি সম্পদ নিজেদের নামে নিয়ে আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে। ওই ইউপি সদস্যের নাম রহিমা খাতুন। তিনি পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ উপজেলার ৮ নম্বর দন্ডপাল ইউনিয়ন পরিষদের ১, ২, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের ইউপি সদস্যা।

রহিমা খাতুন তার মেয়ে রাজিয়া আক্তারের নামে সোলার প্যানেল নিয়েছেন গত বছর। তার মেয়ে রাজিয়া আক্তারের বাড়ি টেপ্রীগঞ্জ ইউনিয়নের শেখবাধা এলাকায়। সেখানে রিয়াজুল ইসলাম মাস্টারের ছেলে বাবুর কাছে মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। অন্য এলাকায় কিভাবে সোলার প্যানেল গেলো তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

বরাদ্দ নেয়া আরেকটি সোলার প্যানেল নিয়ে বসিয়েছেন তার নিজের বাড়িতে। সেখানেও বঞ্চিত করা হয়েছে সাধারণ মানুষকে। আরেকটি সোলার প্যানেল দিয়েছেন তার ভাই প্রধানাবাদ মসজিদপাড়া এলাকার হায়াত আলীকে।

ইউপি সদস্যা রহিমা খাতুনের স্বামী আবুল কাশেম তার স্টক ব্যবসা থাকা সত্বেও তার নামে রয়েছে স্বল্প মূল্যে খাদ্য দ্রব্য কর্মসূচি ১০ টাকা কেজি দরের চালের কার্ড। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চাল সরবরাহকারি ডিলার।

তার ছেলে রিপন রায়হানের নাম রয়েছে বিভিন্ন সময় আসা সরকারিভাবে দেয়া বরাদ্দের তালিকায়। সর্বশেষ ৯ এপ্রিল ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নেয়া ৪৫০ টাকার তালিকায় আছে তার নাম। সে টাকা তিনি গ্রহণও করেছেন।

এছাড়াও রয়েছে বিধবা ভাতা, বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, গর্ভবতী মহিলাদের ভাতা, পাকা ঘর দেবার নাম করে টাকা নেয়ার রয়েছে বিস্তর অভিযোগ। বয়স্ক ভাতা দেবার জন্য প্রধানাবাদ ঝাড়পাড়া এলাকার আব্দুর রশিদের মা ও আব্দুল মালেকের নিকট থেকে বাবদ নিয়েছেন ৩ হাজার টাকা। মৃত তমছের আলীর স্ত্রী। ফিরোজা বেগমের কাছ থেকে বিধবা ভাতা দেয়ার জন্য নিয়েছেন ৩ হাজার টাকা। তারই মেয়ে সেলিনা বেগম সেলির কাছ থেকে সরকারি বরাদ্দের পাকা ঘর দেবার জন্য নিয়েছেন ৩ হাজার টাকা। প্রধানাবাদ মধুরামপাড়া এলাকার দয়াল চন্দ্রের স্ত্রীর মাতৃত্বকালীন ভাতার কার্ড দেয়ার জন্য নিয়েছেন ৩ হাজার টাকা।

একই এলাকার বীরপতি রায়ের মা ও প্রভার স্ত্রী রেনু বালার কাছ থেকে বিধবা ভাতা দেয়ার জন্য নিয়েছেন ৩ হাজার টাকা। খোড়ারপাড় এলাকার বাহার আলীর স্ত্রী আমেনা বেগমের কাছ থেকে বিধবা ভাতা দেয়ার জন্য নিয়েছেন ৩ হাজার টাকা।
কালীগঞ্জ বাজার সংলগ্ন প্রধানাবাদ মসজিদপাড়া এলাকার মৃত আব্দুল ওয়াদুদের ছেলে আব্দুস বাসেদের কাছ থেকে তার স্ত্রীর গর্ভবতী কার্ড দেবার জন্য নিয়েছেন ৩ হাজার ৬শ টাকা।

এছাড়া প্রায় সময় আসা বিভিন্ন বরাদ্ধ সাধারণ লোকদের না দিয়ে বেশির ভাগ বরাদ্ধ সব সময় আত্মীয় স্বজনদের মাঝে দিয়েছেন।

এছাড়াও প্রতিটি বরাদ্ধের সময় সবার কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নেয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। টাকা ছাড়া কাউকে কোন সুযোগ সুবিধা দেননা। তার ওয়ার্ডের লোকজনদেরকে ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়ারও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

এবিষয়ে রহিমা খাতুন বলেন, আর্থিক অস্বচ্ছলতার কারণে ১০ টাকা কেজি চালের যে কার্ড নেয়া হয়েছে তা ইউপি সদস্য নির্বাচিত হওয়ার আগে থেকেই ছিল। আর সোলার প্যানেল আমার শ্বশুরের নামে উত্তোলন করা হয়েছিল, সেটি আমার মেয়েকে দেয়া হয়েছে। আর মাতৃত্বকালীন ও বিধবা ভাতার জন্য কারো কাছে টাকা নেয়া হয় নি। আর ভিজিএফ তালিকায় শুধু আমার ছেলের নাম ছিল। অন্য কোন আত্মীয়ের নাম নেই।

এই বিষয়ে জানতে দন্ডপাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জায়েদুল ইসলামের মুঠোফোনে কল দিলে তিনি রিসিভ করেননি।

 

দেখা হয়েছে: 885
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪