fbpx

|

অস্থিরতা কমাতে গুলি করার আদেশ জারি শ্রীলঙ্কায়

প্রকাশিতঃ ৪:২৩ অপরাহ্ন | মে ১৪, ২০২২

শ্রীলঙ্কার নিরাপত্তা বাহিনীকে দ্বীপটিতে সরকার বিরোধী বিক্ষোভ দমন করার জন্য আইন ভঙ্গকারীদের গুলি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিক্ষোভকারীরা দ্বীপের ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপ অর্থনৈতিক সংকটের জন্য রাষ্ট্রপতি গোতাবায়া রাজাপাকসের পদত্যাগের আহ্বান জানাচ্ছে। সূত্র: A24 News Agency

সোমবার, রাষ্ট্রপতির ভাই, মাহিন্দা রাজাপাকসে, সহিংস রাস্তার সংঘর্ষের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। কিন্তু পদত্যাগ শান্তি আনতে ব্যর্থ হয়েছে এবং সহিংসতা অব্যাহত আছে। গতকাল মঙ্গলবার সরকার পক্ষ থেকে সৈন্যদের সরকারি সম্পত্তি লুটপাট বা জীবনের ক্ষতি করলে গুলি চালানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

রাজধানী কলম্বোর রাস্তায় টহল দেওয়ার জন্য কয়েক হাজার সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। সামরিক বাহিনীর উপস্থিতি সত্ত্বেও, শহরের শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাকে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের রক্ষা করার জন্য যথেষ্ট কাজ না করার অভিযোগে জনতা গতকাল বিকেলে লাঞ্ছিত করে।

মঙ্গলবার, সমুদ্রের তীরে কলম্বোর গ্যালে ফেস গ্রিনে, মানুষ জমতে থাকে। পুলিশ বলছে এ সংঘর্ষে আটজন মারা গেছে এবং রাজধানী কলম্বোর প্রধান হাসপাতাল বলছে সোমবার থেকে ২১৫ জনেরও বেশি মানুষ আহত হয়েছে। শ্রীলঙ্কার একজন সিনিয়র সাংবাদিক এবং বিশিষ্ট সামাজিক-রাজনৈতিক বিশ্লেষক ধর্মানা হান্দুনগোডা বলেছেন, মাহিন্দা অসাবধানতাবশত নিরাপত্তা বাহিনীকে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের ওপর হামলা করার জন্য নির্দেশ দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, সংগ্রামের ঠিক এক মাস পেরিয়ে গেছে।

মিনা-গো-গেম বিশেষ করে এমন সময়ে যখন জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হচ্ছিল, সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং বর্তমান সদস্য ড. পার্লামেন্টের মাহিন্দা রাজাপাকসেকে সেই প্রাঙ্গনে একটি বড় সমাবেশ করার জন্য উৎসাহিত করা হয়েছিল। মাহিন্দা, জনি, রথথারন এবং সিবি সকলেই সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তারা তাদের নিরস্ত্র নিরপরাধ নাগরিকদের সংগ্রামে আক্রমণ করতে উৎসাহিত করেছিলেন এটাই সত্য। রাজনৈতিক জগতে এটি কোনও গোপন বিষয় নয়। অজ্ঞানতাবশত তাদের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের উপর হামলা করার আহবান জানিয়েছিলেন। সে কারণেই এই
দেশের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারী এবং সাধারণ মানুষ তাদের দ্বারা সবচেয়ে নৃশংস হামলার শিকার হয়েছে।

ধর্মানা হান্দুনগোডা আরও জানান, এখন অবধি ৮ জন নিহত হয়েছে। প্রায় ২১৫ জন আহত হয়েছে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী এবং বর্তমান সংসদ সদস্য মাহিন্দা রাজাপাকসে এই আটটি মৃতদেহের জন্য সরাসরি দায়ী, অর্থাৎ অপরাধমূলক হত্যাকাণ্ডের জন্য। সমাজের নামে নিরস্ত্র নিরীহ নাগরিকদের উপর এই বর্বরোচিত হামলা এবং সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের
ঘটনায় বার অ্যাসোসিয়েশনের হস্তক্ষেপ এবং মাহিন্দা রাজাপাকসেকে গ্রেপ্তার করা উচিত। তাই অভিযোগ দায়ের করা এবং শোনা উচিত, প্রমাণ আহ্বান করা উচিত। তাদের দেশ ছেড়ে চলে যাওয়ার অনুমতি দেওয়া উচিত নয় এবং তাদের গ্রেপ্তার করা উচিত, আদালতে হাজির করা উচিত, দোষী সাব্যস্ত করা এবং কারারুদ্ধ করা উচিত ।

সংসদ সদস্য অধ্যাপক আশু মারাসিংহে, দেশের নিরস্ত্র জনগণকে রাস্তায় নামার আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, রাজাপাকসে পরিবারকে দেশ থেকে বহিষ্কার করাই সংকট সমাধানের একমাত্র উপায়। আশু মারাসিংহে জানান, যে প্রধানমন্ত্রীর ছেলে এই পরিকল্পনা করেছিল সে আজ দেশ ছেড়ে পালিয়েছে। এটাই বাস্তব অবস্থা। তাই দেশের সকল নিরস্ত্র মানুষকে রাস্তায় নেমে এই সংগ্রামে যোগ দিতে হবে। এই নৃশংসতা বহিষ্কারের মাধ্যমেই অবসান
হবে এই দেশ থেকে রাজাপাকসে পরিবার। এতে সবাইকে যোগ দিতে হবে। এটাই আমাদের লক্ষ্য।

এদিকে, গুডপ্ল মুভমেন্ট শ্রীলঙ্কার প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও মিঃ হরিন্দা ফনসেকা বলেছেন যে মাহিন্দা রাজাপাকসের সমর্থকরা এই জায়গায় এসে এটিকে ধ্বংস করেছে। আমরা তাদের ভয় দেখানো কল্পনা করতে পারি। ইচ্ছা একটি পরিবারের কাছে চলে গেছে। যখন সেই পরিবারটি ধীরে ধীরে এই দেশের শাসকশ্রেণীর কাছ থেকে তাদের দখল হারাচ্ছে, তখন তাদের স্বপ্নগুলি ফিকে হয়ে যাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। কিন্তু এই ঘৃণ্য কর্মকাণ্ডে কোনো
ঐক্যমত্য নেই। এভাবেই শ্রীলঙ্কাকে উন্নত করার চেষ্টা করা সাহসী মানুষের শান্তিপূর্ণ সংগ্রামের ওপর হামলা হয়েছে। এক পক্ষ সাহসী, অন্য পক্ষ নয়।

দেখা হয়েছে: 10
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!