fbpx

|

আ.লীগ নেতার হাতে বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তা লাঞ্চিত

প্রকাশিতঃ ৮:১১ অপরাহ্ন | জুন ২২, ২০২২

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের ত্রিশালে ধানীখোলা ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মোর্শেদুল আলম মামুন কর্তৃক পিডিবির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের লাঞ্ছিত করার অভিযোগ উঠেছে। এবিষয়ে ত্রিশাল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

গত রবিবার বকেয়া পরিশোধে রাজস্ব আদায়ের স্বার্থে ধানীখোলা বাজার এলাকায় ত্রিশাল বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের উপসহকারী প্রকৌশলী মাহবুব কবীরের নেতৃত্বে বকেয়া আদায় করার জন্য গেলে এই ঘটনাটি ঘটে।

মামলার অভিযোগ, স্থানীয় ও বিদ্যুৎ অফিস সূত্রে জানা যায়, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মজিবুর রহমানের নামে(যার গ্রাহক নং৭৮৪২৯২৮৩) একটি মিটারের বিপরীতে ৯ মাসের বিদ্যুৎ বিল বকেয়া পড়ে।

এ অবস্থায় বকেয়া পরিশোধে ওই বাড়িতে বিদ্যুৎ অফিসের লোকজন গেলে তাদের অবরুদ্ধ করে বিভিন্নভাবে লাঞ্ছিত করে স্থানীয় ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মোরশেদুল আলম ও তার ভাইয়েরা।

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ অফিসের বিল বিতরনকারী মো. সোহেল মিয়া ও আরও কয়েকজনের সাথে কথা হলে তারা জানান, ‘স্যারের নেতৃত্বে আমরা যখন বকেয়া আাদায়ে চাপ দিতে ধানীখোলা বাজার এলাকায় যাই তখন তারা আমাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। অথচ ২০১২ সাল থেকে নিষিদ্ধ এনালগ মিটার দিয়েই চলছিল তাদের সংযোগ। বিভিন্ন সময়ে বলাবলি ও নোটিশ দিলেও তারা তা চেঞ্জ করেনি। ঐদিন এই বিষয় গুলো বললে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে একপর্যায়ে স্যার সহ আমাদেরকে বাজারের একটি রুমে জোরপূর্বক আটকে রেখে মারধর করতে থাকে। পরে আমাদের অফিসের উর্ধতন লোকজন গিয়ে আমাদের উদ্ধার করে।’

এ বিষয়ে ত্রিশাল বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের উপসহকারী প্রকৌশলী মাহবুব কবীর বলেন, ‘ওই দিন আমি এবং আমার সংযোগ বিচ্ছিন্ন কারিগরী টীম বকেয়া এবং অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে কারিগরি টীমের সদস্য সোহেলকে মামুন এবং মামুনের ভাই পাবেল অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতে থাকে এবং এক পর্যায়ে মামুন সোহেল কে থাপ্পর মারেন। আমি প্রতিবাদ করায় তারা আমাকে সহ আমার অন্য সহকর্মীদেরকেও আটকে রেখে লাঞ্ছিত করেন। আমি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বলার পরও মামুন ও পাবেল আমার বাবার নাম তুলে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করেন।

পরবর্তীতে সহকারী প্রকৌশলী জিয়াদ ও সিবিএ নেতা শাকিল আমাদের উদ্ধার করতে আসলে তারাও অপমানিত ও গালমন্দের শিকার হন। কিছুক্ষণ পর ত্রিশাল থানা থেকে মামুনের কাছে ফোন আসলে লাঞ্চিত ও অবরোধ এর কথা সে তাৎক্ষনিক ভাবে অস্বীকার করে এবং ফোন কেটে দিয়ে তার দুই ভাই ও নিজে ওই জায়গা ছেড়ে দিয়ে সটকে পরেন।’

মামলা এজাহার ভুক্ত না হওয়া নিয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন ত্রিশাল বিদ্যুৎ অফিসের ওই কর্মকর্তা।

তবে লাঞ্ছিত করার বিষয়টি অস্বীকার করে ইউনিয়ন আ.নেতা মোর্শেদুল আলম মামুন বলেন, ‘আমাদের মিটারের বিপরীতে একই তারিখে একই মাসের দুইটি আলাদা পরিমাণ টাকার বিল দেওয়া হয়েছে। এর আগে বিলের কাগজ পাইনি বলে বারবার জানানোর পরেও অস্বাভাবিক বিল তৈরি করে গোপন রাখার উদ্দেশ্য কি? বিল পরিশোধের শেষ সময়ের আগেই কিভাবে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে আসলো তারা? এনালগ মিটার এতোদিন যাবত নিষিদ্ধ। তাহলে কেন আগে তারা আইনানুগ পদক্ষেপ নিল না। আমার বাবা একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। উনাকেও গালিগালাজ করে তারা।’

এবিষয়ে ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মো. মাইন উদ্দিন বলেন, আমরা একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টির তদন্ত চলছে।

দেখা হয়েছে: 37
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!