|

ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরগণ পদোন্নতিতে বৈষম্যের শিকার

প্রকাশিতঃ ৯:৪৩ অপরাহ্ন | অক্টোবর ২২, ২০২০

আশিক আহম্মেদ, নেত্রকোনাঃ উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টরগণ দীর্ঘদিন ধরে একই পদে চাকরি করে আসা সত্ত্বেও তাদের পদোন্নতি না হওয়ায় তাদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে। মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে গুরুত্বপূর্ণ এই প্রতিষ্ঠানটিকে আরও কার্যকর ও ফলপ্রসূ করার জন্য ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরদের সহকারি সুপারিনটেনডেন্ট পদে পদোন্নতি প্রদানের জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ও সচিবসহ সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন ভুক্তভোগীরা।

জানা যায় ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরগণ দীর্ঘদিন (২২/২৩ বছর) যাবত সুনামের সাথে একই পদে চাকরি করে আসলেও এখন পর্যন্ত তাদের কোনো পদোন্নতি হয়নি। ফলে তাদের মধ্যে বেশ হতাশা বিরাজ করছে। বর্তমান সরকারের আমলে যেখানে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন সকল স্তরের কর্মকর্তা/কর্মচারিদের পদোন্নতি, চলতি দায়িত্ব বা সংযুক্তি দেয়া হচ্ছে (যেমন- সহকারি শিক্ষক, প্রধান শিক্ষক, সহকারি উপজেলা শিক্ষা অফিসার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার, পিটিআই ইন্সট্রাক্টর, সহকারি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, সহকারি সুপারিনটেনডেন্ট, সুপারিনটেনডেন্ট, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা প্রমুখ) সেখানে শুধূ ইউআরসি ইন্সট্রাক্টররাই বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন।

ফলে তাদের মধ্যে চরম হতাশা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। একই প্রতিষ্ঠানের সহকারি ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরদের বেশ কয়েক বছর আগে ইন্সট্রাক্টর পদে চলতি দায়িত্ব দেয়া হলেও এখন পর্যন্ত ইন্সট্রাক্টরদের কোনো পদোন্নতি দেয়া হয়নি।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও সচিব মহোদয়ে সদিচ্ছায় পিটিআই এ নতুন করে ৬৬টি সহকারি সুপারিটেনডেন্টের পদ সৃষ্টি করা হয়েছে। উক্ত পদে পিটিআই ইন্সট্রাক্টরদের চলতি দায়িত্ব প্রদান করা হলেও প্রস্তাবিত নিয়োগবিধি অনুযায়ী ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরদের কোনো চলতি দায়িত্ব প্রদান করা হয়নি। অথচ ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরগণকে নবসৃষ্ট সহকারি সুপারিনটেনডেন্ট পদে পদোন্নতি বা চলতি দায়িত্ব দিলে একদিকে যেমন তাঁদের হতাশা দূর হতো অন্যদিকে সুপারিনটেডেন্টকে ইউআরসির কার্যক্রমে সার্বিক সহযোগিতা ও মাঠপর্যায়ের কাজেও গতিশীলতা আসতো।

ইউআরসি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর তাঁর কাজের জন্য সংশ্লিষ্ট পিটিআই সুপারিনটেনডেন্টের নিকট দায়বদ্ধ। শুরু থেকেই ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরগণ দক্ষতার সাথে নানাবিধ দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি উপজেলা/থানা রিসোর্স সেন্টারের একাডেমিক ও প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাঁর নিয়ন্ত্রণাধীন কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন ভাতা ও অন্যান্য তহবিলের আয়নব্যয়ন কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরগণ প্রতিটি উপজেলায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান ও সহকারি শিক্ষকদের শ্রেণিকক্ষে শিখন-শেখানোর মান উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ প্রদানসহ নানাবিধ সহায়তা করে আসছেন। প্রতিটি উপজেলায় শিক্ষকদের ডাটাবেজ তৈরি ও হালফিল করছেন। শিক্ষকদের সবল দিক ও উন্নয়নের ক্ষেত্র চিহ্নিত করে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণচাহিদা নিরূপণ ও প্রশিক্ষণের বিষয় নির্বাচন করে আসছেন। প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নে বিভিন্ন গবেষণা/কর্মসহায়ক গবেষণা পরিচালনা করে আসছেন। কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ সামগ্রী তৈরি/সংগ্রহ করে যাচ্ছেন এবং বিভিন্ন প্রশিক্ষণ পরিচালনার জন্য প্রশিক্ষক নির্বাচন ও প্রশিক্ষক তৈরি করছেন। প্রয়োজনবোধে উপজেলা, জেলা ও জাতীয় পর্যায়ে প্রশিক্ষক হিসেবে বিভিন্ন প্রশিক্ষণে দায়িত্ব পালন করছেন। বিভিন্ন প্রশিক্ষণ শেষে মাঠপর্যায়ে তা কতটুকু বাস্তবায়িত হচ্ছে তা ফলোআপ করার পাশাপাশি প্রয়োজনবোধে ফলাবর্তন প্রদান করছেন। সংশ্লিষ্ট উপজেলার শিক্ষকদের প্রশিক্ষণচাহিদার ভিত্তিতে বছরে কমপক্ষে চারটি সাব-ক্লাস্টার লিফলেট প্রণয়ন করেন এবং প্রতি সাব-ক্লাস্টার প্রশিক্ষণের সময় কমপক্ষে তিনটি করে বছরে মোট আঠারোটি সাব-ক্লাস্টার প্রশিক্ষণ পর্যবেক্ষণ করেন। নির্ধারিত ছকে সাব-ক্লাস্টার প্রশিক্ষণ প্রতিবেদন সুপার, পিটিআই এবং অনুলিপি পরিচালক (প্রশিক্ষণ) বরাবর প্রেরণ করেন। মাসে কমপক্ষে ৫টি বিদ্যালয়ের শিখন-শেখানো কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করেন এবং শিক্ষকদের প্রয়োজনীয় সহায়তা দেন।

এ সম্পর্কিত প্রতিবেদন সুপার, পিটিআই ও উপজেলা/থানা শিক্ষা অফিসার বরাবরে প্রেরণ করেন। পিটিআই সুপারিনটেনডেন্ট এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিতব্য মাসিক সমন্বয়-সভায় অংশগ্রহণ করেন। উক্ত সভায় ইন্সট্রাক্টরগণ ইউআরসি’র মাসিক কার্যক্রম উপস্থাপন, পরবর্তী মাসের কর্মসূচি পেশ করা, প্রশিক্ষণ ও অন্যান্য কার্যাবলি বাস্তবায়নের অগ্রগতি প্রতিবেদন নির্ধারিত ছকে উপস্থাপন করেন। ইউআরসি’র স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের রক্ষণাবেক্ষণ ও সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করেন। অধঃস্তন কর্মকর্তা/কর্মচারীদের দাপ্তরিক কার্যক্রম তদারকি ও ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করেন। সহকারী ইনস্ট্রাক্টর ও শিক্ষকদের সহায়তায় স্থানীয়ভাবে সহজলভ্য দ্রব্যাদি ব্যবহার করে শিক্ষা উপকরণ তৈরি, সংরক্ষণ ও প্রয়োজনে বিতরণ করেন। উপজেলা পর্যায়ে সকল প্রাথমিক শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত তথ্য সংরক্ষণ ও হালফিল রাখেন। সহকারী ইনস্ট্রাক্টর, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর ও নৈশ প্রহরীর নৈমিত্তিক ও শ্রান্তি-বিনোদন ছুটি মঞ্জুর করবেন এবং অন্যান্য ছুটি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বরাবর অগ্রায়ন করেন। সহকারী ইনস্ট্রাক্টর, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর ও নৈশ প্রহরীর বার্ষিক গোপনীয় অনুবেদন লিখেন। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কর্তৃক অর্পিত নানাবিধ দায়িত্ব যথায়থভাবে পালন করছেন।

তাছাড়াও উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা, সরকারের নানাবিধ কার্যক্রমেও সার্বিকভাবে সহায়তা করা, শিক্ষাসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কার্যক্রমে সহায়তা করা, বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগকালে উপজেলা প্রশাসনকে সার্বিকভাবে সহায়তা করার মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে আসছেন। অথচ এই অভিজ্ঞ জনবলগুলোই আজ বঞ্চনা ও হতাশার শিকার। এই অভিজ্ঞতাসম্পন্ন জনবলকে পিটিআই এ সহকারি সুপারিনটেনডেন্ট পদ ছাড়াও জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমি, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর এবং এনসিটিবিতে সরকারের চাহিদা মতো কোনো পদে পদোন্নতি বা সংযুক্তি প্রদান করা হলে দেশের প্রাথমিক শিক্ষা আরও বেগবান হবে।

এ প্রসঙ্গে ২০১৮ সালে জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর এ এইচ এম শরীফুল্লাহ বলেন, ‘‘ একুশ বছর ধরে একই পদে চাকরি করছি। আমাদের সাথে যারা উপজেলা শিক্ষা অফিসার হিসেবে কাজ করছেন আজ সকলেই জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার। অধিকাংশ পিটিআই ইন্সট্র্রাক্টরগণ সুপারিনটেনডেন্ট ও সহকারি সুপারিনটেনডেন্ট পদে পদোন্নতি পেয়েছেন। আমাদের জুনিয়র অনেক উপজেলা শিক্ষা অফিসার এখন সহকারি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার। তাছাড়াও উপজেলা পর্যায়ে যাদের সাথে চাকরি শুরু করেছিলাম আজ প্রায় সবাই জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তা। আমাদের অধিদপ্তরের সকল স্তরের কর্মকর্তা/কর্মচারিকে পদোন্নতি বা চলতি দায়িত্ব প্রদান করা হলেও কেবল আমরাই বৈষম্যের শিকার। তাই বেশ হীনমন্যতায় ভুগছি। আমাদের পদোন্নতির জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের সুদৃষ্টি কামনা করছি।”

অন্যদিকে পিটিআইসমূহে বর্তমানে ডিপিএড/সিইনএড ডবল শিফট চালু থাকায় পিটিআই ইন্সট্রাক্টরদের অন্য কোনো স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণে সংযুক্ত রাখা সমীচীন নয়। ইউআরসিকে আইসিটিসহ সকল স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ বাস্তবায়নের দায়িত্ব দিলে একদিকে পিটিআইগুলোতে যেমন ডিপিএড/সিইনএড প্রশিক্ষণ সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়িত হবে তেমনি ইউআরসিগুলোও সারাবছর প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে। উপজেলা পর্যায়ে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রাণাধীন একটি প্রশিক্ষণকেন্দ্র থাকা সত্ত্বেও মাঝে মাঝে দেখা যায় অনেক প্রশিক্ষণ উপজেলা শিক্ষা অফিসের তত্ত্বাবধানে প্রদান করা হয়। প্রশিক্ষণের মান বজায় রাখা ও ইউআরসিগুলোকে আরও কার্যকর ও ফলপ্রসূ করার জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের নিয়ন্ত্রাণাধীন মাঠপর্যায়ের সকল প্রশিক্ষণ ইউআরসিকেন্দ্রিক হওয়া প্রয়োজন বলে সংশ্লিষ্ট অনেকেই মনে করেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরও শক্তিশালী করার জন্য মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর নির্দেশনা মোতাবেক উপজেলা রিসোর্স সেন্টারসমূহ মাঠপর্যায়ে শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে ইউআরসিগুলোতে আরও কার্যকর ও ফলপ্রসূ করার জন্য তাদের নিয়োগবিধি প্রণয়ন, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ইউআরসি ইন্সট্রাক্টরদের সহকারি সুপারিনটেনডেন্ট পদে সংযুক্তি/চলতি দায়িত্ব/পদোন্নতি প্রদান, প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন এবং মাঠপর্যায়ের সকল প্রশিক্ষণ ইউআরসিকেন্দ্রিক হওয়া সময়ের দাবি।

দেখা হয়েছে: 626
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪