|

কৃষিই কৃষ্টি ও কৃষিতেই মুক্তি—নুরুল আজীজ

প্রকাশিতঃ ৪:১৪ অপরাহ্ন | ফেব্রুয়ারী ১৩, ২০২০

কৃষিই কৃষ্টি ও কৃষিতেই মুক্তি---নুরুল আজীজ

গংগাচড়া রংপুর প্রতিনিধিঃ বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনায় বাংলাদেশে কৃষিবিদদের শুধুমাত্র নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন ও পেটপুর্তি নিয়ে চিন্তা করা ছারাও সামজিক, পারিবারিক ও সমসাময়িক প্রেক্ষাপট নিয়ে চিন্তা করার সময় এসেছে।

খনা বলেছিলেন, “ যেমন মা তেমন ছা” আবার নেপোলিয়ন বোনাপার্ট বলেছিলেন, “ তুমি আমাকে শিক্ষিত মা দাও, আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দিবো ” বর্তমানে ডিজিটাল বাংলাদেশে মা-বাবা, ছেলে-পেলে , আবালবৃদ্ধ বনিতা যেভাবে মোবাইল, ফেসবুক, ইউটিউব ও বিভিন্ন বিদেশি চ্যানেলের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে পরেছে তাতে করে একজন কৃষিবিদ হিসেবে আগামী প্রজন্মের চিন্তা করে আমি আসলেই একটু চিন্তিত। আমাদের মা’গুলোকে প্রথমে এ ডিজিটাল আসক্তির হাত থেকে উদ্ধার করতে হবে।

বর্তমানে মুক্ত আকাশ সংস্কৃতির যুগে আমরা চাইলেইতো ডিজিটাল সুবিধাদি ও বিদেশী চ্যানেল বন্ধ করতে পারব না যেগুলোর বেশকিছু অনুষ্ঠান আমাদের সমাজের অনেক সংস্কৃতিক, কৃষ্টি ও মূল্যবোধ পরিবর্তনে বা অবক্ষয়ে নেতিবাচক ভূমিকা পালন করেছে।

বর্তমানে পরিবারের মধ্যে ঝগড়া অশান্তির মূলে আমার দৃষ্টিতে স্টার জলসা, জি বাংলা বা অন্য টিভি চ্যানেলের মধ্যকার সিরিয়াল অনুষ্ঠানগুলি।

অনুষ্ঠানগুলিতে যা দেখানো হয় তা আসলে আমাদের সংস্কৃতি, কৃষ্টি ও মুল্যবোধের সাথে যায় না এবং অনেকক্ষেত্রে সাংঘষির্ক।

তবে আমি একজন কৃষিবিদ হিসেবে চিন্তা করেছি যাতে আমাদের সদ্য বিবাহিত তরুনীরা যারা আগামীতে মা হবেন তারা যাতে করে এসব অনুষ্ঠান আর না দেখে তার জন্য তাদের অন্য কাজে ব্যস্ত রাখার জন্য আমরা তাদের বিয়ের অনুষ্ঠানে যদি যথারীতি উপহার হিসেবে প্রেসার কুকার, রাইস কুকার, ডিনারসেট, টিভি, ফ্রিজ এবং সাধারনত আর যা দেয়া হয় তা না দিয়ে শ্রেনীভেদে কাউকে কালো গোলাপ বা নাইট কুইন বা মাছসহ একুরিয়াম বা বাসাসহ এক জোড়া বিদেশী জাতের কবুতর বা খাঁচাসহ ময়না পাখি বা খাঁচাসহ ২০টি কোয়েল বা বাসাসহ এক জোড়া খরগোশ দেই (যদিও এর মধ্যে কতগুলি প্রাণি বণ্যপ্রানি আইনে পালা নিষিদ্ধ) তাহলে নব-বধুরা এসবের যত্ন বা পরিচর্যায় অনেক সময় ব্যয় করবে (বিয়েতে পাওয়া উপহার বলে কথা) তারা আর অনুষ্ঠান দেখার সময় পেতেন না আর তাদের মাথায় খারাপ চিন্তাও আসত না। কেননা আপনারাতো জানেন অলস মস্তিস্ক শয়তানের আড্ডাখানা আর তাদের দেখাদেখি তাদের সন্তান দের ও মাঝে কৃষির প্রতি মমতা বেড়ে যেত এতে করে তাদের অর্থনৈতিক মুক্তিও আসত।

দেখা হয়েছে: 246
সর্বাধিক পঠিত
ফেইচবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
প্রকাশকঃ মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪