|

করোনা আপডেট
মোট আক্রান্ত

১৯০,০০৪

সুস্থ

১০৩,২২৭

মৃত্যু

২,৪২৪

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ঢাকা ৪১,৮৭৪
  • চট্টগ্রাম ১১,৫৯৭
  • নারায়ণগঞ্জ ৫,৬১৮
  • কুমিল্লা ৪,১৬৭
  • গাজীপুর ৩,৮৯০
  • বগুড়া ৩,৩০৭
  • সিলেট ৩,০৭০
  • খুলনা ৩,০৩০
  • কক্সবাজার ২,৯৭১
  • নোয়াখালী ২,৫৭১
  • মুন্সিগঞ্জ ২,৫০৩
  • ফরিদপুর ২,৪৪৪
  • ময়মনসিংহ ২,০৫২
  • কিশোরগঞ্জ ১,৭৫৮
  • বরিশাল ১,৬৮৬
  • নরসিংদী ১,৫৯২
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১,৫০৫
  • চাঁদপুর ১,২৯৯
  • সুনামগঞ্জ ১,১৭০
  • লক্ষ্মীপুর ১,০৯৭
  • রাজশাহী ১,০৮৫
  • ফেনী ১,০০৪
  • টাঙ্গাইল ৯৯৯
  • যশোর ৯৮৪
  • রংপুর ৯৮৩
  • কুষ্টিয়া ৯৩৮
  • হবিগঞ্জ ৮৯৯
  • সিরাজগঞ্জ ৮৪৯
  • মাদারীপুর ৮৩২
  • গোপালগঞ্জ ৭৯৯
  • মানিকগঞ্জ ৭১৬
  • পটুয়াখালী ৭০৮
  • জামালপুর ৬৮৫
  • নওগাঁ ৬৭৬
  • দিনাজপুর ৬৭৫
  • শরীয়তপুর ৬৬৮
  • মৌলভীবাজার ৬৫৭
  • পাবনা ৫৯৯
  • রাজবাড়ী ৫৬৩
  • নেত্রকোণা ৫৫১
  • জয়পুরহাট ৫৫০
  • ঝিনাইদহ ৪১৫
  • রাঙ্গামাটি ৪০৯
  • বরগুনা ৪০৩
  • ভোলা ৩৯৯
  • সাতক্ষীরা ৩৯২
  • নড়াইল ৩৯১
  • নীলফামারী ৩৫৩
  • বান্দরবান ৩২৮
  • বাগেরহাট ৩১১
  • নাটোর ৩০৫
  • চুয়াডাঙ্গা ২৯২
  • গাইবান্ধা ২৮৮
  • শেরপুর ২৬৭
  • ঝালকাঠি ২৪২
  • খাগড়াছড়ি ২৩৭
  • পিরোজপুর ২১৮
  • ঠাকুরগাঁও ২০৬
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ১৯৯
  • মাগুরা ১৯১
  • কুড়িগ্রাম ১৪৯
  • পঞ্চগড় ১৪৬
  • লালমনিরহাট ১২৬
  • মেহেরপুর ১০০
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
কে এই ব্যারিস্টার সৈয়দ সাঈদুল হক সুমন?

প্রকাশিতঃ ১০:৫৮ অপরাহ্ন | জুলাই ২৪, ২০১৯

কে এই ব্যারিস্টার সৈয়দ সাঈদুল হক সুমন

সৈয়দ সাঈদুল হক সুমন একজন বাংলাদেশী আইনজীবী, ব্যারিস্টার এবং সামাজিক কর্মী | যিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর এবং ওকুপেশনাল নিরাপত্তা, স্বাস্থ্য ও পরিবেশকলার পরিচালক।

সৈয়দ সাঈদুল হক সুমনের সংক্ষিপ্ত পরিচয়ঃ

নাম: সাঈদুল হক সুমন
জন্ম: ৩রা সেপ্টেম্বর, ১৯৭৮ ইং
জন্মস্থান: সিলেট, বাংলাদেশ
জাতীয়তা: বাংলাদেশী
পেশা: আইনজীবী, ব্যারিস্টার এবং সামাজিক কর্মী
শিক্ষা: লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়
খ্যাতি/পরিচিত: সামাজিক কর্মে
স্ত্রীঃ মিসেস সায়দা

শৈশব জীবনঃ সাঈদুল হক সুমন ৩ সেপ্টেম্বর, ১৯৭৮ সালে সিলেটের হবিগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। তার বর্তমান বয়স ৪১ বছর চলমান। তার বাবা একজন ব্যবসায়ী এবং তার মা হলেন গৃহিনী। তিনি ডিসিপি উচ্চ বিদ্যালয়ে তার প্রাথমিক অধ্যয়ন সম্পন্ন করেন।

কর্ম ও শিক্ষাগত জীবনঃ সাঈদুল হক সুমন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মার্কেটিং/বিপণন বিষয়ে অধ্যয়ন করেন। পরে তিনি সিটি ল স্কুল থেকে বার ভোকশনাল কোর্স অধ্যয়ন শুরু করেন এবং লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে আইন বিষয়ে অধ্যয়ন করেন। বর্তমানে তিনি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর হিসাবে কাজ করছেন, তিনি সৈয়দ রেজাউর রহমানের সহযোগী এবং ওকুপেশনাল নিরাপত্তা, স্বাস্থ্য ও পরিবেশকলার সহযোগী ও পরিচালক।

এক নজরে তার শিক্ষাগত জীবনঃ

২০০৪ সালে লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা শুরু।

২০০৮ সালে লন্ডনের সিটি ইউনিভার্সিটিতে পড়াশোনা শুরু।

২০১০ সালে তিনি সৈয়দ রেজাউর রহমান সহযোগী হয়ে কাজ শুরু করেন ২০১৯ সালে হতে তিনি বাংলাদেশের বিখ্যাত ব্যারিস্টার হিসেবে খ্যাতি পান।

ব্যক্তিগত জীবনঃ ব্যক্তিগত, পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে তিনি একজন সুপরিচিত ও সফল ব্যাক্তি। সাঈদুল হক সুমন বিবাহিত এবং তার সন্তান ও স্ত্রী মিসেস সায়দা সাথে স্ব-পরিবারে বসবাস করেন।

সুমন বলেন, আমি এতোটাই অসহায় ছিলাম যে আমার বাবার জানাজায় আসার জন্য আমার টিকিটের টাকাটা পর্যন্ত ছিলো না। সেই সময় মোবাইল ফোনে আমি ফোন দিয়ে বলি আপনি ফোনটা ধরে রাখেন আর আমাকে বলুন আমার বাবার লাশটা এখন কোথায় আছে? প্রত্ত্যুতরে তিনি বলে, ’এখন কবরের পাশে আছে, নিচে নামাচ্ছি মাটি দিচ্ছি’। এ ভাবেই আমি আমার বাবার দাফনে অংশ নেই। এই ব্যাপারটা আমাকে অনেক নাড়া দিয়েছে। তখন থেকেই আমি সংকল্প করেছি যে টাকার পিছনে ছুটবো না। সমাজের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত রাখবো।

সম্প্রতি নুসরাত হত্যা মামলা নিয়ে হাই কোর্টে শুনানী চলাকালীন হাকোর্টের বিচারক বলেন, ‘সাংবাদিকরা সমাজের দর্পণ। ব্যারিস্টার সুমনও সমাজের দর্পণ।’

স্বেচ্ছাশ্রমে রাস্তা-ব্রিজ নির্মাণ, ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন, এলাকার বিভিন্ন দুর্নীতি-অসঙ্গতি নিয়ে লাইভ প্রোগ্রামসহ ব্যতিক্রমী বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে আলোচনায় রয়েছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইদুল হক সুমন। সরেজমিন তার নির্বাচনী এলাকা ঘুরে জানা যায়, এলাকার যুব সমাজকে সঙ্গে নিয়ে মানুষের ভোগান্তি লাঘবে শুধুমাত্র স্বেচ্ছাশ্রমে তিনি ২১টি ব্রিজ ও ৫টি রাস্তা নির্মাণ করেছেন। ব্যক্তিগত অর্থ ও শ্রমের দ্বারা সংস্কার করেছেন আরো ৪০টি রাস্তা। এই হিসেব শুধু বিগত জাতীয় নির্বাচন আগ পর্যন্ত। এর পরের হিসেবে আরো বেড়েছে।

ক্রীড়াঙ্গনের উন্নয়নে তিনি শিশুদেরকে ১ হাজার খেলার সামগ্রী বিতরণ, ৫টি খেলার মাঠ মেরামত ও বঙ্গবন্ধুর নামে ৫টি ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করেন। চা শ্রমিকদের জীবনমান উন্নয়নে বিভিন্ন আর্থিক সহযোগিতা ও শীতবস্ত্র বিতরণ করেন সুমন। তিনি গ্রাম পুলিশদের বেতন-ভাতা ডিজিটালাইজেশনের স্বার্থে একশটি মোবাইল ফোন প্রদান করেন।

ব্যারিস্টার সাইদুল হক সুমন জানান, ১৮ বছর ধরে আমি এলাকার উন্নয়নে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। মানুষের কল্যাণে কাজ করাকে আমি ইবাদত মনে করি। নিজের পেশা থেকে অর্জিত অর্থের সিংহভাগই আমি ব্যয় করি সাধারণ মানুষের কল্যাণে। আমার গন্তব্য নিজের সফলতা দিয়ে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত জন্মভূমি ও এর বাইরের উন্নয়নে সর্বসাধ্য দিয়ে চেষ্টা করা। যেন একজন ‘ওয়ান ম্যান আর্মি’ সুমন।

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের ছেলে সায়েদুল হক। নিজের উপজেলায়, তারপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং দেশের বাইরে পড়াশোনা শেষ করে বর্তমানে আইনজীবী পেশায় আছেন। উপজেলার নিজের স্কুলে গিয়েও একটি লাইভ করেন। এই স্কুলের যে শিক্ষার্থী ব্যারিস্টার হবেন, তাকে একটি গাড়ি কিনে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন লাইভে। পরবর্তী ব্যারিস্টার পেতে কমপক্ষে ১০ বছর অপেক্ষা করতে হবে। সায়েদুল হক এই ফেসবুক লাইভ, মানুষের জন্য কাজে সময় বেশি দেন বলে স্ত্রী ও ছেলেমেয়ে মাঝেমধ্যে বিরক্ত হন। তবে মেনেও নিয়েছে পরিবারের সদস্যরা।

হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলা সদরের পাশে পীরবাজার নামক গ্রামে আমার জন্ম। আমার বাবা সাধারণ একজন ব্যবসায়ী ছিলেন। মা গৃহিনী। আমাদের ধান ভাঙানোর মিল ছিল, তারপর ট্রাক্টর ছিল। সাধারণ একজন ব্যবসায়ীর সন্তান আমি বলতে পারেন। বাবা-মায়ের ৬ সন্তানের মধ্যে সবার ছোট আমি। ছোট বেলা কেটেছে চুনারুঘাটেই। স্থানীয় কেজি স্কুলে আমার শিক্ষার হাতে খড়ি। তারপর ডিসিপি হাইস্কুলে ভর্তি। এখান থেকেই এসএসসি পাশ করি। তারপর ঢাকা কলেজে ভর্তি হই। এইচএসসি পাস করি ঢাকা কলেজ থেকে। এরপর আমি ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে মার্কেটিং এ ভর্তি হই। বিবিএ, এমবিএ পাশ করি।

সুমন বলেন, আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করার পর কোনো চাকরিতে ঢুকে যেতে পারতাম। কিন্তু ছোটবেলা থেকে আমি স্বাধীনচেতা। বিবিএ, এমবিএ পড়ার পরও আমার মনে হয়েছে দেশের জন্য কাজ করতে গেলে স্বাধীন একটা পেশা প্রয়োজন। আইন পড়ার মধ্যে আমি সেই স্বাধীনতা খুঁজে পাই। এছাড়া চিন্তা করে দেখলাম ব্যারিস্টার হলে বাংলাদেশে এর গ্রহণযোগ্যতা একটু বেশি। এদেশে ব্যারিস্টারদেরকে এখনও পজিটিভলি নেওয়া হয়। এজন্য মনে মনে ভাবলাম, চেষ্টা করে দেখি ব্যারিস্টার হতে পারি কি না। আল্লাহর রহমতে আমি শেষ পর্যন্ত ব্যারিস্টার হয়ে গেলাম।

তিনি বলেন, ‘ইংল্যান্ডের লাইফটা ছিল আমার কঠিনতম। ইংল্যান্ডে আমার যে আত্মীয় স্বজন, আমি সেখানে যাওয়ার কিছুদিন পর তারা কেউ আমার পাশে ছিল না। সিলেটি হিসেবে আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে যে সহযোগিতা পাওয়ার কথা ছিল তা পাইনি। যার কারণে বাস্তবতার মুখোমুখি হই। আমি একজন ট্রলিম্যান হিসেবে কাজ শুরু করি। আমাদের দেশে যাদেরকে আমরা কুলি বলি। সেই কুলির কাজও করেছি। বিমানবন্দরে যখন ভিআইপিরা ট্রলি ফেলে রেখে যেতেন, ট্রলিগুলো নিয়ে এসে এক জায়গায় রাখতাম। আমি কুলির কাজ করেছি- এটা সবসময় স্বীকার করি।

আমার কাছে মনে হয়, আমি যদি চুরি না করি, কারো হক নষ্ট না করি তাহলে কোন কাজই ছোট না। আবার ড্রাইভারি করতাম। এসব কাজ করে কিছু টাকা জমাই। ২০০৮ সালে বার অ্যাট ল করতে শুরু করি।’

লন্ডনে বার অ্যাট ল’ সম্পন্ন করার পর অনেকেই সুমনকে সেখানেই থেকে যেতে বলেন। কিন্তু দেশের জন্য এক অভাবনীয় অনুভূতির টানে তিনি ফিরে আসেন। তার মনে হচ্ছিল, বাংলাদেশের সঙ্গে তার যে প্রেম হয়েছিল, সেটি কেন যেন হচ্ছে না ব্রিটেনের সঙ্গে। হয়তো এমন আরও অনেকেরই হয় না। সুমনের মনে হতো, লন্ডনে অনেক ব্যারিস্টার আছেন সেখানে কাজ করার জন্য। কিন্তু তার মাতৃভূমিতে যদি আরেকজন ব্যারিস্টার ফিরে ন্যূনতম হলেও কিছু করতে পারেন, তাতে দেশ উপকৃত হবে। সুমন মনে করেন, বার অ্যাট ল’ করা পর্যন্ত তিনি দেশ-জাতি-সমাজ থেকে নিয়েছেন। এরপর বিশেষ করে ৪০ বছরের পর দেশ-জাতিকে তার দেওয়ার পালা। সেই দৃষ্টিভঙ্গিই তিনি ছড়িয়ে দিতে চান।

দেখা হয়েছে: 1739
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪