|

করোনা আপডেট
মোট আক্রান্ত

৩৬২,০৪৩

সুস্থ

২৭৩,৬৯৮

মৃত্যু

৫,২১৯

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ঢাকা ৯৮,৭১৯
  • চট্টগ্রাম ১৮,৬১৩
  • বগুড়া ৭,৫৫৪
  • কুমিল্লা ৭,৪২০
  • ফরিদপুর ৭,০৯৮
  • সিলেট ৬,৭৮৭
  • নারায়ণগঞ্জ ৬,৭২৮
  • খুলনা ৬,৩১৮
  • গাজীপুর ৫,৪০৫
  • নোয়াখালী ৪,৯৪৪
  • কক্সবাজার ৪,৬৭১
  • যশোর ৩,৮৫৮
  • ময়মনসিংহ ৩,৬৫৬
  • মুন্সিগঞ্জ ৩,৪৭৪
  • বরিশাল ৩,৪৬৪
  • দিনাজপুর ৩,৩৪৩
  • কুষ্টিয়া ৩,২৪৩
  • টাঙ্গাইল ৩,০৭৩
  • রাজবাড়ী ৩,০৪০
  • রংপুর ২,৭৭৭
  • কিশোরগঞ্জ ২,৭৭৩
  • গোপালগঞ্জ ২,৫৫১
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২,৪৩৮
  • সুনামগঞ্জ ২,৩২৩
  • নরসিংদী ২,২৯০
  • চাঁদপুর ২,২৮২
  • সিরাজগঞ্জ ২,১৪৬
  • লক্ষ্মীপুর ২,১১৮
  • ঝিনাইদহ ১,৯০৬
  • ফেনী ১,৮৪০
  • হবিগঞ্জ ১,৭৩৯
  • শরীয়তপুর ১,৬৯০
  • মৌলভীবাজার ১,৬৮২
  • জামালপুর ১,৫৩১
  • মানিকগঞ্জ ১,৪৯২
  • মাদারীপুর ১,৪৫৮
  • পটুয়াখালী ১,৪১৫
  • চুয়াডাঙ্গা ১,৪১৪
  • নড়াইল ১,৩২৫
  • নওগাঁ ১,৩১৩
  • গাইবান্ধা ১,১৫৫
  • পাবনা ১,১১৮
  • ঠাকুরগাঁও ১,১১৪
  • সাতক্ষীরা ১,০৯৩
  • রাজশাহী ১,০৮৫
  • জয়পুরহাট ১,০৮১
  • পিরোজপুর ১,০৬৯
  • নীলফামারী ১,০৪১
  • বাগেরহাট ৯৮৬
  • নাটোর ৯৮৬
  • বরগুনা ৯১০
  • মাগুরা ৯০৪
  • রাঙ্গামাটি ৮৯৪
  • কুড়িগ্রাম ৮৯০
  • লালমনিরহাট ৮৫০
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৭৭৫
  • বান্দরবান ৭৭০
  • ভোলা ৭২২
  • নেত্রকোণা ৭১৮
  • ঝালকাঠি ৬৯৪
  • খাগড়াছড়ি ৬৭৭
  • পঞ্চগড় ৬০৪
  • মেহেরপুর ৬০১
  • শেরপুর ৪৬৬
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
কোয়ারেন্টাইনের শুরু যেখানে

প্রকাশিতঃ ১১:৩৫ অপরাহ্ন | মার্চ ২৪, ২০২০

কোয়ারেন্টাইনের শুরু যেখানে

মোঃ সবুজ মিয়াঃ ইতালির ভেনিস বন্দরের কাছেই যাত্রী পরিবহনের জন্য বিশেষ একটি বন্দর রাগুসা। যাত্রী এসেছেন নানা দেশ থেকে, জাহাজ ভর্তি করে। তবে হঠাৎ জানা গেল, কোনো যাত্রীই জাহাজ থেকে নামতে পারবেন না। অন্তত ৩০ দিন বন্দি হয়ে থাকতে হবে জাহাজে।

বিদেশ থেকে আসা যাত্রীরাও যেমন নামতে পারবেন না, তেমনই স্থানীয় কোনো মানুষও জাহাজের আশেপাশে ঘেঁষতে পারবেন না। যদি কেউ এই নিয়ম লঙ্ঘন করে, তাহলে তাকেও ৩০ দিন বন্দি হয়ে থাকতে হবে। ৩০ দিনের আইন, তাই এই আইনের নাম ট্রেন্টিনো।

মনে হতে পারে, হঠাৎ এমন আইন কেন! তাহলে আরও কিছু বছর পিছিয়ে যেতে হবে। অক্টোবর মাস, ১৩৪৩। কৃষ্ণসাগর থেকে সিসিলির মেসিনা বন্দরে এসে ভিড়ল ১২টি জাহাজ। যাত্রীদের অভ্যর্থনা জানাতে উপস্থিত স্থানীয় মানুষরাও। কিন্তু জাহাজের কাছে যেতেই চমকে গেলেন সবাই। বেশিরভাগ যাত্রীই মৃত। আর জীবিতদের অবস্থা আরও ভয়াবহ। সারা শরীর থেকে রক্ত আর পুঁজ গড়িয়ে পড়ছে।

এই খবর পাওয়া মাত্র সমস্ত জাহাজকে ফিরে যেতে আদেশ দেন বন্দর কর্তৃপক্ষ। কিন্তু ক্ষতি যা হওয়ার, ততক্ষণে হয়ে গিয়েছে। ইউরোপে ঢুকে গিয়েছে বুবোনিক প্লেগ। কৃষ্ণসাগর থেকে এসেছে সাক্ষাৎ মৃত্যুর দূত, তাই অনেকে বলেন ‘ব্ল্যাক ডেথ’। এমন ভয়াবহ মহামারী ইউরোপের মানুষ ইতিপূর্বে দেখেনি। দশকের শেষ তিন বছরেই ইউরোপের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ প্রাণ হারায়। আর তারপর বহু প্রচেষ্টা করেও থামানো যায়নি এই সংক্রমণ।

নিতান্ত বাধ্য হয়েই, ১৩৭৭ সালে ট্রেন্টিনো আইন পাশ করে রাগুসা বন্দর কর্তৃপক্ষ। কীভাবে এই রোগের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে, তা নিয়ে অবশ্য কোনো ধারণা ছিল না তখনও অবধি। কিন্তু মানুষের স্পর্শ থেকেই যে এই রোগ ছড়িয়ে পড়ে, তেমনটা আন্দাজ করতে পেরেছিলেন তাঁরা। প্লেগের দাপট চলেছিল আরও ৮০ বছর। এর মধ্যে বেশ সুনাম অর্জন করে ফেলেছিল এই আইন। ইতালির অন্যান্য বন্দরেও এইধরনের আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হতে থাকে। তার মধ্যে ছিল ভেনিস, পিসা, জেনেভা। অনেক জায়গায় আবার ৩০ দিনের সময়সীমা বাড়িয়ে ৪০ দিন করা হয়েছিল। ফলে নাম বদলে গিয়ে হয় ‘কোয়ারেন্টিনো’। এই কোয়ারেন্টিনো থেকেই কোয়ারান্টাইন শব্দের উৎপত্তি।

কিছুদিন হল করোনার দাপটে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এই ‘কোয়ারান্টাইন’ শব্দটি। প্রায় ৭০০ বছর পর আবার ফিরে এসেছে সেই আইন। প্রতিটি দেশেই এখন বিদেশিদের জন্য এবং বিদেশ থেকে ঘুরে আসা মানুষদের জন্য কড়া ব্যবস্থা। এই ৭০০ বছরেও অবশ্য একাধিকবার একাধিক জায়গায় এমন আইন লাগু হয়েছে। ১৭৯৩ সালে পীতজ্বর রুখতে ফিলাডেলফিয়ার নাবিকদের জন্য এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল।

১৮৯২ সালে আমেরিকায় টাইফয়েড ছড়িয়ে পড়লে প্রায় ৭০ জন আক্রান্ত ব্যক্তিকে কোয়ারান্টাইনে রাখার বন্দোবস্ত করা হয়। ২০০৩ সালে কানাডায় ছড়িয়ে পড়ে সার্স রোগ। তখন প্রায় ৩০,০০০ মানুষকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় টরন্টো দ্বীপে। তবে এখন আর ৩০ দিন বা ৪০ দিনের আইন নেই। শুধু নামটা থেকে গিয়েছে।

আবার ৩০ দিনের আইন কেন ৪০ দিন করা হয়েছিল, সেই প্রশ্নেরও কোনো সঠিক উত্তর জানা নেই। হয়তো ৩০ দিনে সংক্রমণ আটকানো যাচ্ছিল না বলেই সময়সীমা বাড়ানো হয়েছিল। আবার এর পিছনে অনেকে বাইবেলের প্রভাবের কথাও বলে। ধর্মপ্রাণ খ্রিস্টানদের কাছে ৪০ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি সংখ্যা। মৃত্যুর আগে মরুভূমিতে যীশু উপবাস করেছিলেন ৪০ দিন। ঈশ্বরের কাছ থেকে দশটি নির্দেশ পেতে ৪০ দিন অপেক্ষা করেছিলেন মোজেস। আর মহামারীর সঠিক কারণ জানা না থাকায় সেখানেও তো নানান ঐশ্বরিক ঘটনার কথা কল্পনা করতেন মানুষ। সেই কারণেও ৪০ দিনের আইন শুরু হতে পারে।

কারণ যাই হোক। নানা সময়ে নানা রোগের সংক্রমণ আটকাতে এমন নির্বাসনের নিয়ম নেওয়া হয়েছে। আর তা কাজেও এসেছে। সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের দাপটে সেইসব মহামারীর স্মৃতি উস্কে দিয়ে যায়। সেইসঙ্গে জড়িয়ে থাকা একটি শব্দ, ‘কোয়ারান্টাইন’। করোনা আটকাতে এখনও কোনো চিকিৎসা বা প্রতিষেধক কিছুই আবিষ্কার হয়নি। অতএব মানুষের একমাত্র ভরসা সেই ‘কোয়ারান্টাইন’।

দেখা হয়েছে: 512
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪