fbpx

|

গঙ্গাচড়ায় অফিস সহকারি নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ৭:২৭ অপরাহ্ন | অগাস্ট ২৩, ২০১৯

গঙ্গাচড়ায় অফিস সহকারি নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগ

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের গঙ্গাচড়ায় আলদাদপুর দ্বি-মুখী উচ্চবিদ্যালয়ে অফিস সহকারি কাম-কম্পিউটার অপারেটর শুন্য পদে নিয়োগে সভাপতি ও প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কয়েকজন প্রার্থী, কমিটির সদস্য ও এলাকাবাসী গণস্বাক্ষর করে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দিয়েছে। এদিকে অভিযোগের বিষয় জানতে পেরে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি তাদের পছন্দের প্রার্থীকে মোটা অংকের বিনিময়ে নিয়োগের জন্য পরীক্ষার দিন নির্ধারন করলে পরীক্ষা বন্ধের দাবিতে প্রার্থী, এলাকাবাসী ও ম্যানেজিং কমিটরি সদস্যরা গতকাল বিদ্যালয় এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

অভিযোগ, এলাকাবাসী ও প্রার্থীরা জানান, বিদ্যালয়ের অফিস সহকারি কাম-কম্পিউটার অপারেটর শুন্য পদে নিয়ম মোতাবেক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে দরখাস্ত আহবান করা হয়। সে মোতাবেক ২১ জন প্রার্থী আবেদন করে।

আবেদন গ্রহনের পর প্রধান শিক্ষক খগেন্দ্র নাথ মহন্ত ও সভাপতি করুনা কান্ত রায় যোগসাজস করে দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে তাদের পছন্দের প্রার্থী হৃদয় চন্দ্র রায়ের কাছে ৩ দপায় ২২ লাখ টাকা নিয়ে তাকে নিয়োগ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করে।

এছাড়া তাদের পছন্দের প্রার্থীকে নিয়োগ দেওয়ার জন্য বৈধ ৫ জন প্রার্থীর আবেদনপত্র বাতিল করে দেয়। তাদের উৎকোচের বিষয়টি প্রকাশ হলে অন্য প্রার্থীরা, বর্তমান কমিটির কয়েকজন সদস্য ও এলাকার মানুষ গণস্বাক্ষর করে জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করে। জেলা প্রশাসক গঙ্গাচড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়।

এদিকে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি তাদের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগের বিষয় জানতে পেরে তরিঘরি করে শুক্রবার নিয়োগ পরীক্ষার দিন নির্ধারণ করে। নিয়োগ পরীক্ষার দিন জানতে পেরে অন্য প্রার্থীরা, ম্যানেজিং কমিটির সদস্য ও এলাকাবাসী তদন্ত সম্পুর্ন না হওয়া পর্যন্ত নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধের দাবিতে বিদ্যালয় এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল করে।

প্রার্থী হিমাংসু চন্দ্র ও রতন চন্দ্র জানান, প্রধান শিক্ষক ও সভাপতি দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে তাদের পছন্দের প্রার্থীর কাছে থেকে কয়েক দপায় ২২ লাখ টাকা নিয়ে তার নিয়োগের পথ সুগম করতে আমরা বৈধ হওয়া সত্বেও আমাদের ৫ জনের আবেদন বাতিল করে।

প্রার্থী দিবাশীষ মহন্ত ও শৈলক্ষ রায় জানান, যোগ্যতার ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হবে এ আশায় আবেদন করেছি। এখন দেখছি পছন্দে একজনের কাছে মোটা টাকা নিয়ে তাকে নিয়োগ দেওয়ার অপচেষ্টা করছে সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক। তাহলে আমাদের আবেদন করে লাভ কি হলো। তাদের পছন্দের প্রার্থীকে বৈধতা দেওয়ার জন্য আমরা প্রায় ১০ জন প্রার্থী পরীক্ষা দিবনা। এটার তদন্ত করে সুষ্ঠভাবে নিয়োগের দাবি করছি।

ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আব্দুল মান্নান ও বাচ্চু চন্দ্র রায় জানান, সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক ক্ষমতার দাপটে অনিয়ম করে অর্থের বিনিময়ে তদের পছন্দের লোককে নিয়োগ দেওয়া প্রক্রিয়া গ্রহন করায় আমরাও তদন্ত সাপেক্ষে সচ্ছ নিয়োগ দাবি করছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার কর্তৃক অভিযোগের তদন্তের দায়িত্ব পাওয়া একাডেমিক সুপার ভাইজার আমজাদ হোসেন বলেন, আমি বৃহস্পতিবার বিকালে তদন্তের দায়িত্বকৃত পত্র পেয়ে প্রধান শিক্ষককে ফোন দিয়ে ছিলাম। কিন্তু তিনি আমার ফোন না ধরে বন্ধ করে রাখেন।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সেলিনা বেগম বলেন, আমি অভিযোগের বিষয়টি শুনেছি। অভিযোগের তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত যাতে পরীক্ষা না হয় সে ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির মোবাইল ফোনে যোগাগের চেষ্টা করা হলে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

দেখা হয়েছে: 508
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪