|

গঙ্গাচড়ায় কাঁঠালে মুচি পচারোগ, উদ্বিগ্ন কৃষক

প্রকাশিতঃ ৫:২৪ অপরাহ্ন | মার্চ ২৩, ২০২০

গঙ্গাচড়ায় কাঁঠালে মুচি পচারোগ, উদ্বিগ্ন কৃষক

মোঃ সবুজ মিয়া, নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রংপুর জেলার গঙ্গাচড়া উপজেলায় কাঁঠালে মুচি পচারোগ দেখা দেয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছে চাষীরা, এ রোগের প্রতিকার সম্পর্কে নেই তাদের ভালোভাবে জানা।

উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের প্রতিগ্রামে কাঁঠাল গাছে এ রোগ দেখা দিয়েছে। তবে কৃষিবিদের মতে দেশে প্রায় সব অঞ্চলে প্রচুর পরিমাণে কাঁঠাল উৎপাদন হলেও এর বড় একটি অংশ মুচি পচারোগে নষ্ট হয়।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায় বিশ্বে প্রায় ৫০ প্রজাতির কাঁঠাল রয়েছে। এসব প্রজাতির অনেক গাছেই খাওয়ার উপযোগী কাঠাল হয় । এ সকল কাঠাল কাঁচা ও পাকা অবস্থাতেই খাওয়া যায়। তবে এ কাঠাল জাতীয় ফলের ১৩টি রোগ শনাক্ত করা হয়েছে। তার মধ্যে ছত্রাক জনির ভাইরাস জনিত, শেওলা জনিত, পরগাছা জনিত এবং দুইটি সরির বৃত্তটি কারণ জনিত রোগ।

বাংলাদেশে ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসে কাঁঠালের ফল বা মুচি আসতে শুরু করে। এ সব মুচি থেকে কাঁঠাল হয়। মুচির মধ্যে স্ত্রী ও পুরুষ মুচি রয়েছে। পুরুষ মুচি থেকে কাঁঠাল হয় না। পরাগায়নের পর পুরুষ মুচিদের কাজ সম্পন্ন হয় এবং স্ত্রী মুচি আস্তে আস্তে বড় হতে থাকে। পুরুষ মুচি গুলো শুকিয়ে ঝরে যায়। কিন্তু সমস্যা হলো এসময় পুরুষ-স্ত্রী মুচি নির্বিচারে পচতে শুরু করে। আর এটি হয় মুলত রোগের কারণে । রোগটির নাম কাঁঠালে মুচি পচাঁরোগ।

এ ব্যাপারে গঙ্গাচড়া সদর ইউনিয়নের চেংমারি গ্রামের কৃষক আমিনুর ইসলাম জানান, আমরা গ্রামের মানুষ তাই সবকিছু বুঝে উঠতে পারি না। কাঁঠালের মুচি পচাঁরোগের লক্ষণ ও এরোগের প্রতিকার সম্পর্কে আমরা না জানার কারণে প্রতি বছর বড় ধরনের কাঁঠাল উৎপাদন থেকে বঞ্চিত হচ্ছি। কাঁঠালের মুচি পচাঁরোগের কারণে এবার কাঁঠাল উৎপাদন কমবে বলে কৃষকরা জানান।

গঙ্গাচড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: শরিফুল ইসলাম মুচিপচাঁ রোগের প্রতিকারের বিষয়ে বলেন, কাঁঠাল গাছে মুচি পচাঁরোগ দেখা দিলে পচাঁমুচি মাটিতে না ফেলে গাছ থেকে অনেক দুরে নিরাপদ স্থানে পুতে ফেললে এরোগে প্রকট কমে যায় এবং জীবানু বেশী ছড়াতে পারে না। এছাড়া কাঁঠাল গাছের নিচের জমি পরিষ্কার পরিচ্চন্ন রাখলে এ রোগ অনেক কম হয়।

তিনি আরো বলেন কৃষকদের পরামর্শ দিতে প্রতিটি ইউনিয়নে আমাদের কৃষি দফতরের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা আছেন তারা মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের কাঁঠালের মুচি পচাঁ রোগে করনীয় বিষয়ে প্রতিনিয়ত পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন । তিনি এবছর উপজেলায় কাঁঠালের বাম্পার ফলনের আশা প্রকাশ করে বলেন যেভাবে প্রতিটি গাছে কাঁঠালের মুচি ধরেছে তাতে স্হানীয় চাহিদা পূরণের পাশাপাশি অন্য জেলায় রপ্তানি করতে পারবে কৃষকরা।

দেখা হয়েছে: 83
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
প্রকাশকঃ মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪