fbpx

|

গঙ্গাচড়ায় শিশু সুরক্ষা হেল্পলাইনে মায়ের ফোন অবশেষে…

প্রকাশিতঃ ৭:৩৯ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ০২, ২০২২

গঙ্গাচড়ায় শিশু সুরক্ষা হেল্পলাইনে মায়ের ফোন অবশেষে

মোঃ সবুজ মিয়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়ায় ৭ দিনের নবজাতক শিশুকে সমাজসেবা অধিদপ্তরের বাংলাদেশ চাইল্ড হেল্পলাইন কলসেন্টার ১০৯৮ এর সহযোগীতা এবং তাদের দেয়া তথ্য পেয়ে ২৪ ঘন্টার মধ্যে বিমাতা মায়ের কাছ থেকে উদ্ধার করে বাচ্চারটির গর্ভধারিনী মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিয়ে দৃষ্টান্ত স্হাপন করলেন ৪ নং ইউ’পি চেয়ারম্যান মোঃ মাজহারুল ইসলাম লেবু।

মাত্র সাত দিন বয়সী ফুটফুটে ছোট একটি নবজাতক। এই সময়টাতে শিশুটির তার মায়ের বুকে থেকে কখনো হাসি কখনো কান্না করার কথা। কিন্তু এই সাত দিন বয়সেই নবজাতক ছেলে শিশুটির পরিচয় হলো চরম এক নিষ্ঠুরতার সঙ্গে। অন্য কেউ নয় সন্তানকে সব বিপদ থেকে রক্ষা করার কথা যে বাবার,সেই বাবাই জন্মের পরপরইর নবজাতক শিশুটির সাথে নিষ্ঠুর আচরণ করেন। বাবার এই আচরণের কারণে মায়ের বুকের খাবার না পেয়ে ৭ দিন ক্ষুদায় কষ্ট পেয়েছে নবজাতক শিশুটি।

গঙ্গাচড়া সমাজসেবা অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, ৩১ আগস্ট (বুধবার) বাংলাদেশ চাইল্ড হেল্পলাইন ১০৯৮ তে কল করেন একজন মা। সে তার নবজাতক শিশুকে কোলে ফেরত পেতে এক ক্ষুদে বার্তা পাঠান “আমার বাচ্চাকে ফেরত পেতে চাই বুকে” লেখা বার্তা পেয়ে চাইল্ড হেল্পলাইন ১০৯৮ সেন্টার গঙ্গাচড়া উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ মোসাদ্দেকুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করে।

বিষয়টি অবগত হয়ে সমাজসেবা অফিসার তাৎক্ষণিক ব্যবস্তা নিতে এবং নবজাতক শিশুকে উদ্ধার করে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিতে গঙ্গাচড়া সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মাজহারুল ইসলাম লেবু’র সহযোগিতা কামনা করেন।

পরে ইউ’পি চেয়ারম্যান বাচ্চাটিকে সুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করে ইউ’পি সদস্য আব্দুল খালেক, আব্দুল মতিন অভি, সদস্য সাজু মিয়া, মোঃমোজাম্মেল হক, মোঃ শিমুল মিয়াসহ গণমাধ্যম কর্মীদের উপস্থিতে তার মায়ে’র কোলে ফিরিয়ে দেন।

এব্যাপারে নবজাতক শিশুটির মা’ আনিছা বেগমের সাথে কথা বললে তিনি বাংলাদেশ সকাল প্রতিনিধিকে জানান, তিন (৩) বছর পূর্বে পরিচয় হয় গঙ্গাচড়া উপজেলার আলমবিদিতর ইউনিয়নের কুটিরপাড় গ্রামের আজিজুল ইসলাম এর সাথে পরে পরিচয় পরিনিত হয় বিয়েতে।

বিয়ের পর তিনি জানতে পারেন আজিজুল ইসলাম (পেশায় শিক্ষক) ইতিপূর্বে বিবাহিত এবং প্রথম স্ত্রী’র গর্ভের দুটি সন্তান আছে। বিয়ের দীর্ঘদিন পর স্বামী আজিজুল ইসলাম তাকে নিয়ে নিজ বাড়িতে নিয়ে যান সেখানে আনিছা বেগম ৬ মাস অবস্থান করেন কিন্তু উভয় স্ত্রীর মাঝে বনিবনা না হওয়ায় গর্ভবতী আনিছা বেগম কে স্বামী আজিজুল গঙ্গাচড়া ইউনিয়ন পরিষদের পিছনে জুলেখা বেগমের বাড়িতে বাসা ভাড়া নিয়ে দেন।

আনিছা বেগম গর্ভবতী শুনে প্রথম স্ত্রী ভাড়া বাসায় এসে বেশ কয়েকবার তাকে বাচ্চা নষ্ট করতে বলেন এবং বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি ও গালিগালাজ করেন।পরে চাপে পরে আনিছা বেগম তার বাচ্চাটি প্রসব হলে প্রথম স্ত্রীকে দিয়ে দিবেন শর্তে রাজি হলে প্রথম স্ত্রী চাপ প্রয়োগ বন্ধ করে। এমন অবস্থায় গত ৭ দিন পূর্বে সিজারের মাধ্যমে নবজাতকের রংপুরে এক ক্লিনিকে জন্ম হওয়ার সাথে সাথেই বাবা আজিজুল ইসলাম পুর্ব শর্ত মোতাবেক বাচ্চাটিকে তার প্রথম স্ত্রী’র কাছে নিয়ে যান।

এব্যাপারে আজিজুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আনিছা বেগম সিজারের রুগী তাই সে তার স্ত্রীর সাথে কথা বলে নবজাতকের সঠিক দেখভালের জন্যই মা’আনিছার অনুমতি নিয়েই বিমাতার কাছে দেন । তবে আনিছা বেগম তার স্বামীর বলা কথার কোন পাল্টা জবাব না দিয়ে নবজাতক শিশুকে কোলে ফেরত পেয়ে সবার কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

নবজাতক ফেরতের বিষয়ে ইউ’পি চেয়ারম্যান মোঃ মাজহারুল ইসলাম লেবু বলেন,আমি ও আমার পরিষদের সদস্যবৃন্দ সংবাদটি পাওয়ার পরপরেই দ্রততম সময়ে নবজাতক কে উদ্ধার করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা ও পদক্ষেপ গ্রহণ করি এবং অল্প সময়ে নবজাতক শিশুকে তার মায়ের বুকে ফেরত দিতে পেরে আমি মহান আল্লাহ পাকের দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি। আল্লাহ তাওয়ালা আমাকে এধরনের একটি দায়িত্বশীল স্হানে বসে আরো বেশী করে ভালো কাজ করার তৌফিক যেন দেন।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ মোসাদ্দেকুর রহমান জানান, তিনি শিশু সুরক্ষা ১০৯৮ নিয়ে প্রায় ১৫ বছর যাবত কাজ করছেন। এই সেবায় কল করতে বা সেবা পেতে কোন চার্জ দিতে হয় না। সমাজে এধরণের ঘটনা দেখলে যে কেউ কল দিতে পারবেন। তিনি এই উপজেলায় ইতিপূর্বে এধরনের পরিস্থিতির সম্মুখীন হননি। অত্র উপজেলায় এধরনের ঘটনা এটাই প্রথম তাই তিনি বলেন আমি কিছুটা দুশ্চিন্তায় ছিলাম তবে অল্প সময়ে বাচ্চাটিকে তার মায়ের বুকে ফেরত দিতে পেরে আমি আনন্দিত। এক্ষেত্রে চেয়ারম্যান সাহেব যথেষ্ট আন্তরিক ছিলেন বিধায় অতিদ্রুত সম্ভব হয়েছে।

দেখা হয়েছে: 50
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!