|

করোনা আপডেট
মোট আক্রান্ত

৩৫৩,৮৪৪

সুস্থ

২৬২,৯৫৩

মৃত্যু

৫,০৪৪

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ঢাকা ৯৫,৬৮২
  • চট্টগ্রাম ১৮,৩১৫
  • বগুড়া ৭,৩৭৮
  • কুমিল্লা ৭,৩১৩
  • ফরিদপুর ৭,০০৪
  • নারায়ণগঞ্জ ৬,৬৫৭
  • সিলেট ৬,৬৪৮
  • খুলনা ৬,২৬২
  • গাজীপুর ৫,৩৫৬
  • নোয়াখালী ৪,৮৯৪
  • কক্সবাজার ৪,৫৫১
  • যশোর ৩,৭৭১
  • ময়মনসিংহ ৩,৬০৬
  • মুন্সিগঞ্জ ৩,৪৩০
  • বরিশাল ৩,৩৯৪
  • দিনাজপুর ৩,২৯৯
  • কুষ্টিয়া ৩,১৭৭
  • টাঙ্গাইল ৩,০১৭
  • রাজবাড়ী ২,৯৯৮
  • রংপুর ২,৭২১
  • কিশোরগঞ্জ ২,৭১৫
  • গোপালগঞ্জ ২,৫২৮
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২,৪২৩
  • সুনামগঞ্জ ২,২৯৯
  • নরসিংদী ২,২৫৮
  • চাঁদপুর ২,২৪৮
  • সিরাজগঞ্জ ২,১১২
  • লক্ষ্মীপুর ২,০৯৯
  • ঝিনাইদহ ১,৮৬৯
  • ফেনী ১,৮১২
  • হবিগঞ্জ ১,৭১৭
  • মৌলভীবাজার ১,৬৬৮
  • শরীয়তপুর ১,৬৫২
  • মানিকগঞ্জ ১,৫০০
  • জামালপুর ১,৪৮৭
  • মাদারীপুর ১,৪৪৪
  • চুয়াডাঙ্গা ১,৩৯৫
  • পটুয়াখালী ১,৩৮৩
  • নড়াইল ১,২৯৯
  • নওগাঁ ১,২৮৬
  • গাইবান্ধা ১,১২৭
  • পাবনা ১,১০১
  • সাতক্ষীরা ১,০৯১
  • রাজশাহী ১,০৮৫
  • ঠাকুরগাঁও ১,০৬৪
  • জয়পুরহাট ১,০৫৮
  • পিরোজপুর ১,০৫৫
  • নীলফামারী ১,০১৫
  • বাগেরহাট ৯৭৭
  • নাটোর ৯৪৮
  • বরগুনা ৮৯৯
  • মাগুরা ৮৮৭
  • রাঙ্গামাটি ৮৮৫
  • কুড়িগ্রাম ৮৬৪
  • লালমনিরহাট ৮৩৯
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৭৬৩
  • বান্দরবান ৭৫৪
  • ভোলা ৭১০
  • নেত্রকোণা ৭০৯
  • ঝালকাঠি ৬৮৮
  • খাগড়াছড়ি ৬৬৭
  • মেহেরপুর ৫৯৩
  • পঞ্চগড় ৫৯১
  • শেরপুর ৪৬১
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
গতিপথ পাল্টাচ্ছে তিস্তা ভাঙন ঠেকাতে প্রয়োজন বেড়িবাঁধ

প্রকাশিতঃ ৯:৫০ অপরাহ্ন | জুলাই ০৫, ২০১৯

গতিপথ পাল্টাচ্ছে তিস্তা ভাঙন ঠেকাতে প্রয়োজন বেড়িবাঁধ

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ স্কুল, বসতবাড়ি, আবাদি জমি, ব্রিজ ও রংপুর-কালীগঞ্জ সড়ক রক্ষার্থে তিস্তায় একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা প্রয়োজন। তা না হলে গতবারের ন্যায় এবারো রংপুর কালীগঞ্জ সড়কে ভাঙনসহ স্কুল, বসতবাড়ি, আবাদি জমি নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।

এলাকাবাসী ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বন্যার সময় গত ২ বছর থেকে তিস্তার গতিপথ পরিবর্তন হওয়ায় মূল নদীতে তিস্তার পানিপ্রবাহ কমে গিয়েছে। পানিপ্রবাহ কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা সৌর পাওয়ার প্লান্ট এর ভিতর দিয়ে তিস্তার একটি স্যুট চ্যানেল বাগেরহাট এর পূর্ব-দক্ষিণ পাশ দিয়ে তিস্তা সেতুর উত্তর পাশের সংযোগ সড়কের উপর সেরাজুল মার্কেটের কাছে নির্মিত সেতুর নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ইশোরকোল এর ভাটিতে পুনরায় তিস্তার সঙ্গে মিলিত হয়েছে। তিস্তার পানিপ্রবাহ মূল নদীতে নেওয়ার জন্য রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড নদীতে ড্রেজিং করলেও তেমন কাজ হচ্ছে না বলে এলাকাবাসী জানান।

শংকরদহ আবাসন কেন্দ্রের লুৎফর রহমান, গনিমিয়া বলেন, এবারে ভাঙন রোধে কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা ও শংকরদহ এলাকায় বালির বাঁধ দিলেও যে কোনো মুহূর্তে পানির চাপে ভেঙে যেতে পারে। এবারো ভাঙন ঠেকানো যাবে না।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম গত বছর ১ নভেম্বর স্বাক্ষরিত নির্বাহী প্রকৌশলী, রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ড বরাবর লিখিত এক পত্রে এমন আশঙ্কা করে লিখেন। বর্তমানে একটি বেড়িবাঁধ নির্মাণ করে তা স্থায়ীভাবে রক্ষা করতে গেলে নির্মিত বাঁধকে বেস ধরে মূল নদীর দিকে ৩/৪টি আরসিসি স্পার কিংবা গ্রেয়েন নির্মাণ করতে হবে।

তিনি আরো উল্লেখ করে বলেন, কোনো প্রতিরক্ষামূলক কাজ না করলে ঔ স্যুট চ্যানেলটি প্রবল হয়ে পূর্বের ন্যায় তিস্তার মূল স্রোতধারায় পরিণত হবে। তিস্তার পানিপ্রবাহ বেশিরভাগই এই চ্যানেল দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফলে বিনবিনা, ইচলি, শংকরদহসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যাপক ভাঙনসহ তিস্তা সংযোগ সড়কে ভাঙন দেখা দিবে।

লক্ষ্মীটারী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদী বলেন, তিস্তার উজানে ৫ কিলোমিটার একটি বেড়িবাঁধ হলে ৫০/৬০ হাজার লোক বাঁচবে। তা না হলে ঐসব লোক দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মেহেদি হাসান বলেন, পানির গতিপথ পরিবর্তন বন্ধ করতে বিনবিনা এলাকায় জিও ব্যাগ ও জিও ফিলটার দিয়ে কাজ শুরু করা হয়েছে। আশা করছি গতবারের ন্যায় এবারে সমস্যা হবে না।

দেখা হয়েছে: 286
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪