|

গৌরীপুরে চালের খনির সন্ধান! ৪ হাজার ৬০০ কেজি চাল উদ্ধার

প্রকাশিতঃ ১:২২ অপরাহ্ন | এপ্রিল ২২, ২০২০

চাল

আরিফ আহম্মেদঃ ময়মনসিংহের গৌরীপুরে একের পর এক বেরিয়ে আসছে চালের খনির সন্ধান! খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ৫০ কেজির আরো ৬৭ বস্তা চাল উদ্ধার করেছে গৌরীপুর থানার পুলিশ।

সোমবার (২০ এপ্রিল) রাত ১১ টায় উপজেলার ৪নং মাওহা ইউনিয়নের ভুটিয়ারকোনা বাজারে মতি মার্কেটে চাল ব্যবসায়ী ফজলু মুন্সীর ঘর থেকে ৬৭ বস্তা এবং এর আগে এদিন দুপুর ২ টায় এ বাজারের চাল ব্যবসায়ী আজহারুল ইসলামের ঘর থেকে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ৫০ কেজির ২৫ বস্তা চাল উদ্ধার করে গৌরীপুর থানার পুলিশ। এ নিয়ে একইদিনে ভুটিয়ারকোনা বাজার থেকে মোট ৯২টি বস্তায় ৪ হাজার ৬০০ কেজি সরকারি চাল উদ্ধার করা হয়েছে।

এর পূর্বে গত ১৪ এপ্রিল ১০ টাকা কেজির চাল বিক্রির অনিয়মের অভিযোগে ২নং গৌরীপুর ইউনিয়নের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ডিলার (৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ড) আরিয়ান ট্রেডার্সের প্রোপাইটর ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রুকুনুজ্জামান পল্লবের ডিলারশীপ বাতিল করা হয়।

এবং গত ১৬ এপ্রিল কালোবাজারে ১৭০ কেজি চাল বিক্রির অভিযোগে গৌরীপুর সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি ওএমএস ডিলার মাহবুবুর রহমান শাহীনসহ ৩ জনকে আটক করে গৌরীপুর থানার পুলিশ। এ ঘটনায় ১৭ এপ্রিল মাহবুবুর রহমান শাহীনের ডিলারশিপ বাতিল করা হয়।

গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ বোরহান উদ্দিন জানান- গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদের নেতৃত্বে উল্লেখিত বাজারে ফজলু মুন্সীর ঘরে অভিযান চালিয়ে ১০ টাকা কেজির ৬৭ বস্তা চাল জব্দ করেন পুলিশ। এর আগে দুপুর ২ টার দিকে এ বাজারের আজহারুল ইসলামের ঘর থেকে ২৫ বস্তা চাল জব্দ করা হয়।

এসময় আজহারুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক বাদী হয়ে গৌরীপুর থানায় মামলা করেছেন। ওসি আরো জানান- জাতির এই ক্রান্তিলগ্নে দরিদ্রদের জন্য দেয়া ১০ টাকা কেজির চাল ও সরকারি ত্রাণ যেই আত্মসাতের চেষ্টা করোক না কেন তাকে কোন অস্থাতেই ছাড় দেয়া হবে না।

গৌরীপুর উন্নয়ন সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান ফকির বলেন- ৪ বছর পূর্বে যখন ১০টাকা কেজির চালের তালিকাভুক্ত ব্যাক্তিদের নাম প্রকাশ হয়, তখন সেখানে অনেক ধনী শ্রেণির মানুষের নাম পাওয়া যায়। আমরা এঘটনার তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ জানিয়ে ছিলাম। তখন বিভিন্ন মাধ্যম থেকে আমাদের হুমকি দেয়া হয়। আমরা তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে তালিকা সংশোধনের দাবী জানিয়ে ছিলাম। তখন কিছু কিছু জায়গায় নামমাত্র তালিকা সংশোধন হলেও শুরু থেকেই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, ট্যাগ অফিসার ও ডিলাররা মিলে ১০টাকা (ওএমএস) কেজির চাল বেশিরভগটাই কালোবাজারে বিক্রি করে দিচ্ছে।

গৌরীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সেঁজুতি ধর বলেন- ১০ টাকা কেজির চাল বিতরণের সময় একজন ট্যাগ অফিসার (সরকারি কর্মকর্তা) সকালে ডিলারের দোকানে উপস্থিত হয়ে রেজিষ্ট্রার দেখে স্টক নিশ্চিত করা এবং বিকালে বিতরণ শেষে স্টক ও রেজিষ্ট্রার মিলিয়ে দেখার দায়িত্ব পালন করেন।

কিন্তু ডিলার চাল কাদের দিচ্ছে তা সার্বক্ষণিক দেখার সুযোগ ট্যাগ অফিসারের হয় না। আরেক প্রশ্নের জবাবে উদ্ধারকৃত চালের ব্যাপারে তিনি বলেন- অনেক সময় গ্রাহকরা চাল নিয়ে বাইরে ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে দেয়। কিন্তু এতো বিপুল পরিমান (৪,৬০০ কেজি) চাল এভাবে ব্যবসায়ীদের সংগ্রহ করা সম্ভব কিনা, এ নিয়ে তিনি কোন মন্তব্য করেননি।

ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক মো: মিজানুর রহমান বলেন- ট্যাগ অফিসারদের দায়িত্ব দেয়া হয় শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত চাল সুষ্ঠভাবে বিতরণ করা হচ্ছে কিনা তা দেখার জন্য। বিতরণে অনিয়ম হলে ট্যাগ অফিসার এর দায় এড়াতে পারেন না।

দেখা হয়েছে: 9385
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!