fbpx

|

ঘিওরে ৩০০ ফুট বাঁশের সাঁকো দিয়ে কষ্টে নদী পার

প্রকাশিতঃ ৬:৩৯ অপরাহ্ন | নভেম্বর ১১, ২০২২

ঘিওরে ৩০০ ফুট বাঁশের সাঁকো দিয়ে কষ্টে নদী পার

ঘিওর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ ‘ফটো তুইলা আর কি অইবো। জন্মের পর থেইকা দেইখা আইতাছি এই বাঁশের পুল। পাড় অইতে কত কষ্ট আমাগো।’ ঘিওর উপজেলার ধুলন্ডী গ্রামের নিরোদ হালদার (৭৩) এ প্রতিবেদককে উদ্দেশ্য করে এমন আবেগঘন কথাগুলো বলেন।

মানিকগঞ্জের ঘিওর ও শিবালয় উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা ঘিওরের ধুলন্ডী গ্রাম। এই দুই উপজেলার কমপক্ষে ছয়টি গ্রামের কয়েক হাজার বাসিন্দার যাতায়াতের ভরসা একটি মাত্র বাঁশের সাঁকো। প্রায় ৩০০ ফিট লম্বা আর ২০ ফুট উচ্চতার সরু বাঁশের সাঁকো এটি। স্বাধীনতার পর থেকেই এসব গ্রামের বাসিন্দারা এই সাঁকো দিয়েই ইছামতির শাখা নদী পারাপার হয়ে আসছেন। নিজেদের টাকায় ও স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে সাঁকোটি তৈরি ও রক্ষণাবেক্ষণ করছেন তারা।

ঘিওর উপজেলার বালিয়াখোড়া ইউনিয়নের ধুলন্ডী গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে ইছামতির শাখা নদীটি। ধুলন্ডী বাজার থেকে কর্দমাক্ত কাঁচা রাস্তা পাড়ি দিয়ে উঠতে হয় সরু বাঁশের সাঁকোতে। নদীর ওপর দীর্ঘ এই বাঁশের সাঁকো দেখলে যে কারো পিলে চমকে যাবার অবস্থা।

অথচ আশপাশের পাঁচ-ছয়টি গ্রামের হাজারো মানুষ প্রতিনিয়ত এই সাঁকো দিয়েই নদী পারাপার হচ্ছেন বছরের পর বছর। সাঁকো পাড়ি দিয়ে দুই কিলোমিটার দূরের বাজারে গিয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে হয়। কৃষিপণ্য বিক্রি করা নিয়ে পড়তে হয় ঝামেলায়। নানা সময়ে নানা জনপ্রতিনিধি শুধু আশ্বাসের বাণীই দিয়ে গেছেন, পাকা সেতু নির্মাণে কার্যকর কোন উদ্যোগ নেননি।

স্থানীয়রা বলেন, দুই উপজেলার সীমান্ত আলাদা করে বয়ে গেছে ইছামতির শাখা নদী। এই দুই উপজেলার ধুলন্ডী, সাহিলী, চৌবাড়িয়া, কালাচাঁদপুর, ভালকুটিয়া, বাষ্টিয়াসহ আশপাশের কয়েকটি গ্রামের মানুষ নিত্যপ্রয়োজনে যাতায়াত করে থাকেন। যুগ যুগ ধরে এসব মানুষের যাতায়াতের মাধ্যম এই বাঁশের সাঁকো। মহাদেবপুর ডিগ্রি কলেজ, গার্লস স্কুল, গোপাল চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়, কিন্ডারগার্টেন দিশারী, ধুলন্ডী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গামী শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি নিয়ে এই সাঁকো দিয়ে নদী পার হতে হয়।

অটোচালক মো. মিজান বলেন, লোকজন এই সাঁকো দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনায় পড়েন। বেশি সমস্যা হয় অসুস্থ ব্যক্তি বিশেষ করে প্রসূতিদের নিয়ে।

স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা তাপস কুমার বসু তুফান বলেন, বর্ষাকালে চার মাস তাদের সাঁকো ব্যবহার করতে হয়। আর পানি একেবারে শুকিয়ে গেলে নদীর উঁচু ঢাল মারিয়ে ওপরে উঠতে হয়। এখানে একটি পাকা ব্রিজ নির্মাণে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানান তিনি।

শিবালয় উপজেলার মহাদেবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান বলেন, এখানে একটি ব্রিজ নির্মাণ খুবই জরুরি। দুই উপজেলার দুই ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় এখানে ব্রিজ নির্মাণে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করা হয়েছে।

ঘিওর উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাজ্জাকুর রহমান বলেন, ওখানে এপ্রোচ সড়ক নেই এবং ঐ রাস্তার আইডি নম্বর নেই। তাই ব্রিজ করা আপাতত সম্ভব নয়। তবে আমি সরেজমিন পরিদর্শন শেষে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিষয়টি অবগত করব।

ঘিওর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, একটি সেতুর অভাবে কয়েকটি গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ কষ্ট করছেন। তাদের দুর্ভোগ লাঘবে ঐ গ্রামে একটি সেতু নির্মাণের জন্য স্থানীয় এমপি মহোদয়কে অবগত করা হয়েছে।

দেখা হয়েছে: 34
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!