fbpx

|

জনি-শাকিব ও আতিকের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী

প্রকাশিতঃ ১১:৩১ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ১৩, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: ময়মনসিংহ মহানগরে আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া হয়েছে ওঠেছে জনি-শাকিব দুই ভাই ও আতিক নামে শীর্ষ ৩ সন্ত্রাসী। একসময় বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত থাকলেও এই তিনজন বর্তমানে আওয়ামীলীগের সাথে মিশে নিজেদের আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী জাহির করে একেরপর এক সন্ত্রাসী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে।

অস্ত্র ব্যবসায়ী জনি, আতিক ও শাকিবের নামে মাদক, চাঁদাবাজি, হত্যা মামলাসহ ১৬/১৭টি মামলা চলমান রয়েছে।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, মাহমুদুল হাসান জনি, শাকিব ও আতিক এই তিনজন মূলত আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত এক নেতার ছত্রছায়ায় থেকে ময়মনসিংহ শহরে অস্ত্র, মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজির রাজত্ব গড়ে তুলেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক এলাকাবাসী বলেন, জনি, শাকিব ও আতিকের মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে আমরা এলাকাবাসী অতিষ্ঠ হয়ে গেছি। যখন ইচ্ছে যাকে তাকে মারধর করাসহ এলাকায় বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে এরাই জড়িত। আমরা এলাকায় শান্তি চাই।

এ বিষয়ে ময়মনসিংহ আওয়ামীলীগের এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, কিছুদিন আগেও জনি, জনির ছোটভাই সাকিব ও আতিক বিএনপির রাজনীতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিল। কিন্তু গত বছরের ২৮ নভেম্বর ১৮ নাম্বার ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব ভাগিয়ে নেয় সন্ত্রাসী মাহমুদুল হাসান জনি। তার এই পদ পাওয়া নিয়ে আমরা আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে হতভম্ব হয়েছি। একজন সন্ত্রাসী কি করে আওয়ামী লীগের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদ পায় তা নিয়ে পুরো মহানগরের নেতাকর্মীদের মাঝে চাপা ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ১২ ই জুন নগরীর কালিবাড়িলেনে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জনির ভাই মোঃ রনি (৩০) ও আনোয়ার হোসেন ওরফে আনার (৩৮) নামে আরেকজন মাদককারবারি নিহত হয়। এসময় পুলিশের এসআই পরিমল চন্দ্র দাস ও কনস্টেবল শামীম নামে পুলিশের দুই সদস্য আহত হয়।

এরা কৃষ্টপুর এলাকার মামুন মিয়া ওরফে ঢাকাইয়া মামুনের ছেলে রনি ও বাঁশবাড়ি কলোনির সিরাজ আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেন ওরফে আনার। এরা দু’জনই মাদককারবারি ও একাধিক মাদক মামলার আসামি বলে জানায় পুলিশ। এসময় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, তিনটি গুলির খোসা ও এক হাজার ৭৫০ পিছ ইয়াবা উদ্ধার করে।

জনির ছোটভাই সাকিব সেও বড়ভাইয়ের মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপকর্মে সহযোগী করে আসছে বলে এলাকায় প্রচারিত। গত ২০২০ সালের ২৩ ডিসেম্বর নগরীর কেওয়াটখালি ওয়াপদা মােড় এলাকা থেকে গুলিভর্তি বিদেশি পিস্তল, দেশীয় অস্ত্র ও মাদকসহ শীর্ষ সন্ত্রাসী শাকিবসহ (২০), হাবিবুর রহমান (২৬) ও সুজন মিয়া (৩৮) নামে তিনজনকে গ্রেফতার করে ময়মনসিংহ র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)-১৪।

র‍্যাব-১৪’র সদর দফতরে আয়োজিত এক প্রেস কনফারেন্সে এ তথ্য জানিয়েছিলেন কমান্ডিং অফিসার (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল এফতেখার উদ্দিন। এসময় তাদের কাছ থেকে গুলিভর্তিসহ একটি বিদেশি পিস্তল, বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার করা হয়। তারা দীর্ঘদিন ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে ডাকাতি, অস্ত্র ও মাদক কেনা-বেচা ও সরবরাহ করে আসছিল।

অপরদিকে শীর্ষ চাঁদাবাজ সন্ত্রাসী আতিক, জনি ও জনির ছোটভাই শাকিবের সাথে মিলে কৃষ্টপুর এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করে আসছে।

দেখা হয়েছে: 26
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!