|

জন্মদিনে কঙ্গনা

প্রকাশিতঃ ৮:০৩ অপরাহ্ন | মার্চ ২৬, ২০২০

জন্মদিনে কঙ্গনা

আফজালুর ফেরদৌস রুমনঃ বলিউড ‘কুইন’ খ্যাত কঙ্গনা সবসময়ই নারীবাদকে সমর্থন করে এসেছেন। একই সাথে নারী কেন্দ্রিক সিনেমার জন্য যেকয়জন অভিনেত্রী এই সময়ে এসে বলিউডে স্বতন্ত্র জায়গা করে নিয়েছেন তাদের মধ্যে অন্যতম। গত সোমবার ছিল এই জনপ্রিয় বলিউড অভিনেত্রীর জন্মদিন। তাকে নিয়েই আজকের বিশেষ ফিচার।

সাধারন এক রক্ষনশীল পরিবারে বেড়ে উঠা কঙ্গনার বাবা একজন ব্যবসায়ী এবং তার মা একজন স্কুল শিক্ষিকা। হিমাচল প্রদেশের ছোট্ট এক শহরে জন্মগ্রহণকারী কঙ্গনা তার বাবা-মায়ের ইচ্ছা অনুযায়ী একজন ডাক্তার হতে চেয়েছিলেন।

১৬ বছর বয়সে দিল্লীতে থাকাকালীন অবস্থায় হঠাৎ ঝোকের বসে মডেল হিসেবে কাজ করেছিলেন তিনি। এবং তখনই তিনি সিন্ধান্ত নিয়ে ফেলেন এই মিডিয়াতেই কাজ করবেন তিনি। রক্ষনশীল এক পাহাড়ি পরিবার তাদের ছোট মেয়ের এই ইচ্ছা বা কাজ সমর্থন করেনি এবং তাকে একবার টাকা ছাড়াই তার বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়েছিল। তবে ভাগ্যিস তখন তিনি দমে যাননি, তাহলে বলিউড একজন গুনী এবং দক্ষ অভিনেত্রীকে পেতনা।

মুম্বাই এসে থিয়েটার পরিচালক অরবিন্দ গৌরের অধীনে প্রশিক্ষণ নেয়ার সময় ২০০৬ সালে অনুরাগ বাসুর ‘গ্যাংস্টার’ সিনেমায় অভিনয়ের মধ্য দিয়ে বলিউডে যাত্রা শুরু করেন তিনি। প্রথম সিনেমায় দর্শক এবং সমালোচকদের চোখে পড়েন এই অভিনেত্রী। এই সিনেমার জন্য তিনি সেরা নবাগতার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার লাভ করেন। ব্যাস তারপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি এই অভিনেত্রীকে। এরপর ২০০৮ সালে ‘ফ্যাশন’ সিনেমায় অনবদ্য অভিনয়ের জন্য সেরা সহ-অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় পুরস্কার জয় করেন তিনি।

সাফল্যে,খ্যাতি, অর্থ সবকিছুই তখন তার হাতের মুঠোয়। লাইমলাইটের আলোয় এক ননফিল্মি ব্যাকগ্রাউন্ডের মেয়ে যে কিনা একাই নিজেকে নিয়ে এসেছেন এই জায়গায়। তবে তার কোকড়া চুল, বা তথাকথিত ভাবে বলিউড সুন্দরী নন তিনি, বা তার কথা বলার স্ট্যাইল নিয়ে সমালোচনা ছিল। সময়ের সাথে সাথে নিজেকে বদলেছেন তিনি। সমালোচনা শুনে শুধরে নিয়েছেন নিজেকে। তবে নিজের মন বা আত্নার সাথে সমঝোতা করেননি কখনো বলে নান ইন্টারভিউতে বলেছেন তিনি। তাই কঙ্গনা আজ একটি অনুপ্রেরণার নাম।

তার অকপটে মিডিয়ার সামনে কথা বলা, যেকোন সামাজিক ইস্যুতে নিজের অবস্থান পরিস্কার করা, পুরাতন প্রেমিকদের ধোকা বা মানসিক অত্যাচার সব কিছুই পরিস্কার ভাবে বলেন তিনি। হোক সেই নাম নিজের থেকে বয়সে অনেক বড় আদিত্য পাঞ্চোলি বা সুপারস্টার হ্নতিক রোশান। বলিউডে তিনি এক জ্বলন্ত আগুন যিনি পরোয়া বা তোয়াক্কা করেন না কোনো কিছুকেই। প্রভাবশালী প্রযোজক, পরিচালক করন জোহরকে মুখের উপর মুভি মাফিয়া বা নেপোটিজমের গডফাদার হিসেবে আখ্যায়িত করতে ভয় পাননা তিনি। পুরুষ শাসিত বলিউডে তিনি আসলেই এক নারী যোদ্ধা।

কুইন, তানু ওয়েডস মানু সিরিজ, সিমরান, মনিকর্নিকা বা পাঙ্গা সাম্প্রতিক সবকটি সিনেমায় তাকে নিয়ে লেখা হয়েছে সিনেমার কাহিনী। নায়ক প্রধান এই ইন্ডাস্ট্রিতে কঙ্গনা একাই সিনেমা টেনে নিয়ে যাবার যোগ্যতা দেখিয়েছেন। সবকটি সিনেমাই যে বক্স অফিসে সফল হয়েছে তা নয়, তবে অভিনেত্রী হিসেবে কঙ্গনা পেয়েছেন প্রশংসা। তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঝুলিতে ভরেছেন যা তার সময়ের অন্য কোন অভিনেত্রী বলিউড অভিনেত্রী পারেননি।

ব্যক্তিজীবনে এরকম নানা চড়াই-উতরাই থাকলেও প্রফেশনাল লাইফে তিনি এক অন্য কঙ্গনা রানাউত। তার সাবলীল অভিনয়, দক্ষ এক্সপ্রেশন বা চরিত্রের মধ্যে মিশে যাওয়ার ক্ষমতা তাকে সাধারন দর্শক, সমালোচক এবং তার শত্রুদেরকেও তার জন্য প্রশংসা করতে বাধ্য করেছে। লাইফ ইন এ মেট্রো, ও লামহে, ওয়ান্স আপন এ টাইম ইন মুম্বাই, রাজ-২, কৃষ-৩, তানু ওয়েডস মানু, কুইন, রাজ্জো, নো প্রবলেম বা তানু ওয়েডস মানু রিটার্নস কঙ্গনা প্রমান করে গেছেন যে তিনি ব্যতিক্রমী এক দক্ষ অভিনেত্রী।

কুইন এবং তানু ওয়েডস মানু রিটার্নস সিনেমার জন্য তিনি ২০১৪ এবং ২০১৫ সালে টানা দুবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জিতে নেন। অনেকেই জানেন না যে, কঙ্গনা একজন অসাধারন কত্থক নৃত্যশিল্পী। তবে কখনোই ব্যর্থ হননি তা নয়, তার অনেক সিনেমাই বক্স অফিসে ধরাশায়ী তবে তার অভিনয়ের প্রতি ডেডিকেশন সেগুলোতেও লক্ষ্য করা গেছে।

এবার কিংবদন্তি তামিল অভিনেত্রী ও অসম্ভব জনপ্রিয় রাজনীতিবিদ জয়ললিতার বায়োপিকে অভিনয় করছেন কঙ্গনা। যদিও ‘থালাইভি’ নামের এই সিনেমায় তার ফার্স্টলুক সমালোচিত হয়েছিল। তবে কিছুদিন আগে এই সিনেমার নতুন পোস্টার সত্যিই চমকে দিয়েছে সিনেপ্রেমীদের।

তামিলের সুপারহিট অভিনেত্রী থেকে জননেত্রী হওয়া জয়ললিতার জন্মবার্ষিকীতে শ্রদ্ধার্ঘ্য হিসেবে টিম ‘থালাইভি’ প্রকাশ করেছে নতুন একটি পোস্টার। পোস্টারে দেখা যায়, সাদা শাড়ি আর লাল টিপে কঙ্গনা, পোষ্টার দেখে যে কারোই মনে হবে এযেন সত্যিই প্রাণোচ্ছ্বল যুবতী জয়ললিতা।বয়স যখন ছিল ত্রিশের কোঠায়, তখন অভিনয় থেকে রাজনীতিতে আসেন বর্ণময় এই ব্যক্তিত্ব। কঙ্গনার এই লুকটি জয়ললিতার সেই বয়সেরই প্রতিফলন।

‘থালাইভি’ র জন্য ২০ কেজি ওজন বাড়িয়েছেন কঙ্গনা। যেকোন চরিত্রের জন্য নিজের সেরাটা নিয়েই হাজির হন তিনি একথা জানেন সকলেই। এর আগে ‘তানু ওয়েডস মানু’ সিনেমার শুটিং চলাকালে এক মারাত্মক বাইক দুর্ঘটনার শিকার হন কঙ্গনা। সেবার অনেকগুলো সেলাই নিতে হয়েছিল তাকে। ‘মনিকর্নিকা’ সিনেমার শুটিংয়ের সময় দুর্ঘটনাবশত মাথায় তলোয়ারের আঘাত লাগে। তাতে ১৫টি সেলাই দিতে হয়েছিল কঙ্গনাকে।

কিছুদিন আগেই কঙ্গনার ‘পাঙ্গা’ সিনেমার পরিচালক আশ্বিনী আইয়ার তিউয়ারি বলেছেন যে, ‘১ কেজি ওজন কমাতে আমি কী না করি! অথচ কঙ্গনা সেই অভিনয়শিল্পী, যিনি কেবল মানসিকভাবে ওই চরিত্র হয়ে ওঠেন তা নয়, চরিত্রের প্রয়োজনের তরতর করে ২০–২৫ কেজি বাড়িয়ে ফেলেন। আবার কাট বলার পর ওই চরিত্র থেকে বেরোনোর কিছুদিন পর কীভাবে কীভাবে যেন সেই মেদও ঝরিয়ে ফেলেন। অভিনয়ের প্রতি কোন ধরনের প্রতিশ্রুতি থাকলে এটা সম্ভব, তা কেবল কল্পনা করা যায়।’

‘মনিকর্নিকা’ এবং ‘পাঙ্গা’ দর্শক এবং সমালোচকদের কাছ থেকে ব্যাপক প্রশংসিত হলেও বক্স অফিসে তেমন সুবিধে করতে পারেনাই। তাই এবার বেশ আটঘাট বেধেই আসছেন কঙ্গনা।

তার অভিনয় দক্ষতা নিয়ে কোনো দ্বিধা না থাকলেও এবার জয়ললিতার বায়োপিকে তার মতোই নৃত্যে পারদর্শীতা লাভ করার জন্য ভারতনাট্যমের প্রশিক্ষণ নিয়েছেন কঙ্গনা। সিনেমায় জয়ললিতার চরিত্রে কঙ্গনা রানাওয়াতের লুক ইতিমধ্যেই সাড়া ফেলেছে।

এছাড়া এমজেআর এর চরিত্রে রয়েছেন রোজা, বম্বে খ্যাত অভিনেতা অরবিন্দ স্বামী। প্রিয়ামণি, প্রকাশ রাজের মতো দক্ষিণের জনপ্রিয় তারকাদের দেখা যাবে এই সিনেমাতে। জয়ললিতার প্রেমিক শোভন বাবুর চরিত্রে দেখা যাবে কলকাতার যীশু সেনগুপ্তকে।এর আগেও একাধিক হিন্দি সিনেমাতে ছোট অথচ গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা গিয়েছে বাঙালি অভিনেতা যীশু সেনগুপ্তকে। কখনও ঝাঁসির রানি লক্ষ্মীবাইয়ের স্বামীর ভূমিকায় কঙ্গনা রানাওয়াতের বিপরীতে, তো কখনও মর্দানি সিনেমাতে রানি মুখার্জির স্বামীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন যীশু। এবার দক্ষিণী সিনেমাতেও দেখা যাবে যীশুকে। শোভন বাবুর সঙ্গে একসময় জয়ললিতার গভীর প্রেম ছিল বলে জানা যায়। এমনকি এক সংবাদমাধ্যমকে নাকি সেকথা বলেওছিলেন তামিলনাড়ুর ‘আম্মা’ জয়ললিতা।

লিভ-ইন সম্পর্কেও নাকি তাঁরা ছিলেন। কিন্তু অভিনয় থেকে রাজনীতিতে এসে মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর বিবাহিত শোভন বাবুর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক শেষ হয়ে যায় বলে খবর। আসলে অভিনয় থেকে রাজনীতিতে আসা এমজেআর-এর হাত ধরেই রাজনীতিতে হাতেখড়ি হয়েছিল জয়ললিতার। তাই তাঁর জীবনে সেইসময় এমজেআর-এর প্রভাব ছিল অনেক বেশি। সিনেমায় জয়ললিতার ব্যক্তিগত, অভিনয়, এবং রাজনৈতিক জীবনের নানা দিক তুলে ধরা হবে বলে জানা গেছে।

‘থালাইভি’র শ্যুটিং শেষ হলেই ২ মাসের মধ্যে বাড়তি এই ওজন কমিয়েও ফেলবেন কঙ্গনা। তখন ‘তেজস’ আর ‘ধাকড়’ -এর শ্যুটিংয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়বেন তিনি। ‘তেজস’–এ কঙ্গনাকে দেখা যাবে বৈমানিকের চরিত্রে, আর ‘ধকড়’–এ যোদ্ধার সাজে। তাই স্বাভাবিকভাবেই ওজন কমানোর কঠিন লড়াই তার সামনে।

থালাইভি-র চিত্রনাট্য লিখেছেন বাহুবলী ও মণিকর্ণিকা-র চিত্রনাট্যকার কে ভি বিজয়েন্দ্র প্রসাদ এবং দ্য ডার্টি পিকচার ও ওয়ান্স আপন আ টাইম ইন মুম্বই-এর চিত্রনাট্যকার রজত অরোরা। মাদ্রাসাপট্টিনম খ্যাত বিজয়ের পরিচালনায় তৈরি হচ্ছে থালাইভি। হিন্দি, তামিল ও তেলুগু এই তিন ভাষায় মুক্তি পাবে থালাইভি। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ২৬শে জুন মুক্তি পাচ্ছে ‘থালাইভি’।

করোনা ভাইরাস নিয়ে সারা বিশ্বে এক ভয়াবহ পরিস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। বিশ্বের অনেক দেশের মতোই ভারতেও বন্ধ রয়েছে সবকিছু। তারই অংশ হিসেবে বলিউডের সকল মুভির শ্যুটিং আপাতত বাতিল করা হয়েছে। তারকারা সবাই যে যার বাড়তেই রয়েছেন। কঙ্গনা বর্তমানে তার মানালি’র বাড়িতে রয়েছেন। সেখানেই কাছের কিছু বন্ধু এবং পরিবারের সদস্যদের নিয়ে পালন করেছেন তার ৩৩ তম জন্মদিন।

ছোট একটি পার্টি এবং একটি পূজার আয়োজন করেছিল কঙ্গনার পরিবার। জন্মদিনের সেসব ছবি নেট দুনিয়ায় বেশ হইচই ফেলেছে। কারন করোনা মোকাবিলা করার জন্য যেখানে সবাইকে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে বলা হচ্ছে সেখানে সবাইকে নিয়ে পার্টি এবং সেই ছবি শেয়ার করা নিয়ে অনেকের কাছেই সমালোচনার সম্মুখীন হচ্ছেন এই অভিনেত্রী। তারপরেও সবকিছু একপাশে রেখে জন্মদিনে অনেক অনেক শুভেচ্ছা রইলো কঙ্গনার জন্য।

দেখা হয়েছে: 83
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!