fbpx

|

জুমার নামাজ আদায় করবে ১০ জন , মুক্তির উপায় কি?

প্রকাশিতঃ ৫:৩৮ অপরাহ্ন | এপ্রিল ১০, ২০২০

জুমার নামাজ আদায় করবে ১০ জন , মুক্তির উপায় কি?

জুমার নামাজ আদায় করবে ১০ জন , মুক্তির উপায় কি? অধ্যক্ষ-মোহাম্মদ আবদুল আজিজ মজুমদার।

বিসমিল্লাহির রাহমানীর রাহীম।
বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে জুমার নামাজ ফরজ হওয়ার বিষয়টি প্রতিষ্ঠিত।মহান আল্লাহ বলেনঃ-
يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا نُودِيَ لِلصَّلَاةِ مِنْ يَوْمِ الْجُمُعَةِ فَاسْعَوْا إِلَى ذِكْرِ اللَّهِ وَذَرُوا الْبَيْعَ ذَلِكُمْ خَيْرٌ لَكُمْ إِنْ كُنْتُمْ تَعْلَمُونَ
অর্থ:- মুমিনগণ, জুমআর দিনে যখন নামাযের আযান দেয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণের পানে ত্বরা কর এবং বেচাকেনা বন্ধ কর। এটা তোমাদের জন্যে উত্তম যদি তোমরা বুঝ।(সূরা আল জুমুআহ:০৯)

বিশ্বব্যাপী “কোভিড-১৯ বা করোনা ভাইরাস”এর কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার স্বার্থে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম মন্ত্রনালয় জুমার নামাজে মসজিদে উপস্থিতির সংখ্যা ১০ জনের মধ্যে সীমাবদ্ধ করে ফরমান জারি করেছেন। বিষয়টি যৌক্তিক!তবে যাঁরা ইচ্ছা থাকা সত্বেও জুমার নামাজ আদায়ে মসজিদে যেতে পরবেননা তাঁদের বিষয়ে ইসলামের বিধান কি? বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখার চেষ্টা করবো ইনশাল্লাহ।

তাঁরা নামাজ ঘরে আদায় করবেন, দলিল হলোঃ দুর্যোগ কালীন নামাজ আদায়ের হুকুম সংক্রান্ত রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর হাদিসঃ-

قَالَ ابْنُ عَبَّاسٍ لِمُؤَذِّنِهِ فِي يَوْمٍ مَطِيرٍ إِذَا قُلْتَ أَشْهَدُ أَنَّ مُحَمَّدًا رَسُولُ اللَّهِ‏.‏ فَلاَ تَقُلْ حَىَّ عَلَى الصَّلاَةِ‏.‏ قُلْ صَلُّوا فِي بُيُوتِكُمْ‏.‏ فَكَأَنَّ النَّاسَ اسْتَنْكَرُوا، قَالَ فَعَلَهُ مَنْ هُوَ خَيْرٌ مِنِّي، إِنَّ الْجُمُعَةَ عَزْمَةٌ، وَإِنِّي كَرِهْتُ أَنْ أُخْرِجَكُمْ، فَتَمْشُونَ فِي الطِّينِ وَالدَّحْضِ‏.‏

অর্থঃ- ইব্‌নু ‘আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ: তিনি তাঁর মুয়ায্‌যিনকে এক প্রবল বর্ষণের দিনে বললেন, যখন তুমি (আযানে) ‘আশহাদু আন্না মুহাম্মাদার রসূলুল্লাহ্‌ বলবে, তখন ‘হাইয়া আলাস্‌ সালাহ্’ বলবে না, বলবে, “সাল্‌লু ফী বুয়ুতিকুম” (তোমরা নিজ নিজ বাসগৃহে সালাত আদায় কর)। তা লোকেরা অপছন্দ করল। তখন তিনি বললেনঃ আমার চেয়ে উত্তম ব্যক্তিই (রাসূলুল্লাহ্‌ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) ) তা করেছেন। জুমু’আ নিঃসন্দেহে জরুরী। আমি অপছন্দ করি তোমাদেরকে মাটি ও কাদার মধ্য দিয়ে যাতায়াত করার অসুবিধায় ফেলতে। (সহিহ বুখারী, হাদিস নং ৯০১)

তাঁরা কোন নামাজ আদায় করবেনঃ- কেউ যদি জুমার নামাজ না পায় বা মসজিদে গিয়ে দেখে জুমা শেষ হয়ে গেছে তবে তাকে জোহর নামাজ পড়তে হবে। কারণ জামাআত ছাড়া জুমার নামাজ হয় না। ঐ মসজিদে জুমার আরেকটি জামায়াতও করা যাবেনা। দলিল :-

وَعَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللّه صلى الله عليه وسلم
مَنْ أَدْرَكَ مِنَ الْجُمُعَةِ رَكْعَةً فَلْيُصَلِّ إِلَيْهَا أُخْرى وَمَنْ فَاتَتْهُ الرَّكْعَتَانِ فَلْيُصَلِّ أَرْبَعًا أَو قَالَ: «الظُّهْرَ» رَوَاهُ الدَّارَقُطْنِيُّ

অর্থ:-আবূ হুরায়রাহ্ (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ: তিনি বলেন রসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন : যে ব্যাক্তি (ইমামের সাথে) জুমু’আর (সলাতের) এক রাক্’আত পেয়েছে, সে যেন এর সাথে দ্বিতীয় রাক্’আত যোগ করে। আর যার দুই রাক্’আতই ছুটে গেছে, সে যেন চার রাক্’আত আদায় করে; অথবা বলেছেন, সে যেন যুহরের সলাত আদায় করে নেয়। (দারাকুত্বনীর হাওয়ালাতে মিশকাতুল মাসাবিহ, হাদিস নং ১৪১৯,পৃষ্ঠা নং ১২৪ হাদিসের মান: সহিহ)

তাঁরা নামাজ জামায়াতের সাথে আদায় করতে পারবেন কি?  না ! তাঁরা নামাজ জামায়াতের সাথে আদায় করতে পারবেন না একা একা পড়তে হবে। দলিল:-আল-ফিকহুল ইসলামি ওয়া আদিল্লাতুহু এর মধ্যে হানিফী মাজহাবের মত নিম্নরূপ বর্ণিত আছে-:-

ويكره أيضا لمن فاتتهم الجمعة من أهل المصر صلاة الظهر بجماعة وإنما يصلونها فرادى بغير جماعة ولا أذان ولا إقامة

অর্থঃ-কোন শহরবাসীর জুমার নামাজ ফউত (ক্বাজা) হলে তাদের জন্য জামায়াতের সাথে জহুর নামাজ আদায় করা মাকরুহ। বরং তারা কোন আজান ও ইকামত ব্যতীত একা একা জহুর নামাজ আদায় করবে। (আল-ফিকহুল ইসলামি ওয়া আদিল্লাতুহু,২য় খন্ড, ২৮১পৃষ্ঠা)

তাঁরা কোন সময় নামাজ আদায় করবেনঃ- তাঁরা মহল্লার মসজিদে জুমা শেষ হওয়ার পর জহূরের সময়ের মধ্যেই উক্ত নামাজ আদায় করবেন। জুমা শেষ হওয়ার আগে আদায়ের ব্যাপারে ইসলামী স্কলারদের মধ্যে মতানৈক্য আছে। তাই পরে পড়াই কাম্য।(দেখুন-আল-ফিকহুল ইসলামি ওয়া আদিল্লাতুহু,কিতাবুল ফিকহী আলাল মাজাহিবিল আরবা’. আল-বাহরুর রায়েক)

★★ মুক্তি মিলবে কি?
আমরা আশকরি মুক্তি মিলবে!কেননা আল্লাহর রহমত সর্বব্যাপী। তিনি বলেনঃ-

لَا يُكَلِّفُ اللَّهُ نَفْسًا إِلَّا وُسْعَهَا لَهَا مَا كَسَبَتْ وَعَلَيْهَا مَا اكْتَسَبَتْ رَبَّنَا لَا تُؤَاخِذْنَا إِنْ نَسِينَا أَوْ أَخْطَأْنَا رَبَّنَا وَلَا تَحْمِلْ عَلَيْنَا إِصْرًا كَمَا حَمَلْتَهُ عَلَى الَّذِينَ مِنْ قَبْلِنَا رَبَّنَا وَلَا تُحَمِّلْنَا مَا لَا طَاقَةَ لَنَا بِهِ وَاعْفُ عَنَّا وَاغْفِرْ لَنَا وَارْحَمْنَا أَنْتَ مَوْلَانَا فَانْصُرْنَا عَلَى الْقَوْمِ الْكَافِرِينَ

অর্র্থ:- আল্লাহ কাউকে তার সাধ্যাতীত কোন কাজের ভার দেন না, সে তাই পায় যা সে উপার্জন করে এবং তাই তার উপর বর্তায় যা সে করে। হে আমাদের পালনকর্তা, যদি আমরা ভুলে যাই কিংবা ভুল করি, তবে আমাদেরকে অপরাধী করো না। হে আমাদের পালনকর্তা! এবং আমাদের উপর এমন দায়িত্ব অর্পণ করো না, যেমন আমাদের পূর্ববর্তীদের উপর অর্পণ করেছ, হে আমাদের প্রভূ! এবং আমাদের দ্বারা ঐ বোঝা বহন করিও না, যা বহন করার শক্তি আমাদের নাই। আমাদের পাপ মোচন কর। আমাদেরকে ক্ষমা কর এবং আমাদের প্রতি দয়া কর। তুমিই আমাদের প্রভু। সুতরাং কাফের সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে আমাদের কে সাহায্যে কর।(সূরা আল বাক্বারাহ:২৮৬)

★★ জুমার সাওয়াব পাওয়া যাবে কি ?
এ বিষয়ে রাসূলুল্লাহ (সাঃ)বলেন:-

عَنْ أَبِي مُوسَى، قَالَ سَمِعْتُ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم غَيْرَ مَرَّةٍ وَلاَ مَرَّتَيْنِ يَقُولُ ‏ ‏ إِذَا كَانَ الْعَبْدُ يَعْمَلُ عَمَلاً صَالِحًا فَشَغَلَهُ عَنْهُ مَرَضٌ أَوْ سَفَرٌ كُتِبَ لَهُ كَصَالِحِ مَا كَانَ يَعْمَلُ وَهُوَ صَحِيحٌ مُقِيمٌ ‏”‏ ‏.‏

অর্থ:-আবূ মূসা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ: তিনি বলেন, আমি নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম)-কে একবার দুইবার নয়, বহুবার বলতে শুনেছি : কোন বান্দা নেক কাজ করলে এবং পড়ে রোগ বা সফর তাকে সে কাজ হতে বিরত রাখলে তার আমলনামায় সুস্থ ও আবাসে অবস্থানকালে তার কৃত সৎ আমলের ন্যায় সওয়াব লেখা হবে। (সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নং ৩০৯১)

আল্লাহ আমাদের ক্ষমা করুন। আমিন!!

সংগ্রহ ও সংকলনেঃ মোহাম্মদ আবদুল আজিজ মজুমদার
অধ্যক্ষ, হায়দরগঞ্জ তাহেরিয়া আর.এম.কামিল মাদ্রাসা
রায়পুর, লক্ষ্মীপুর।

দেখা হয়েছে: 584
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
আলী আরিফ সরকার রিজু
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪