|

ভর্তির নিয়মাবলী পরিবর্তনে ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের ক্ষোভ

প্রকাশিতঃ ১২:৩১ পূর্বাহ্ন | জুলাই ০৫, ২০২০

পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটে ভর্তির নিয়মাবলী পরিবর্তনে ক্ষোভ

রংপুর প্রতিনিধিঃ সারাদেশে সকল সরকারি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটে আগামী শিক্ষা বছরে ভর্তি কার্যক্রম শুরু হওয়ার প্রক্কালে ভর্তির যোগ্যতা পরিবর্তন এবং ০১/০৭/২০২০ ইং তারিখে মাননীয় শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যে সারাদেশের ডিপ্লোমা প্রকৌশলীরা ক্ষোভে ফুপিয়ে উঠেছেন।

জানাগেছে, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর কর্তৃক ভর্তির যোগ্যতায় পরিবর্তন আনা হয়েছে। যেকোন বয়সে পলিটেকনিকে ভর্তি হতে পারা, আবেদনের জন্য এস,এস,সি তে নুন্যতম জি,পি, এ ২.৫০ করা হয়েছে। মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী গত ০১/০৭/২০২০ ইং তারিখে এক ভার্চুয়াল মিটিংয়ে সম্মতি দিয়েছেন। এর প্রতিবাদে সারাদেশের বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ডিপ্লোমা প্রকৌশলী বৃন্দ, সারাদেশের পলিটেকনিকের ছাত্র,ছাত্রী ক্ষোভে ফুঁসে উঠেছেন। এর প্রতিবাদে যেকোন সময় রাজপথে আন্দোলনে নামতে পারে।

এব্যাপারে জানতে চাইলে, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর ডিপ্লোমা প্রকৌশলী সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির রংপুর বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক জনাব, মোঃ আবু সাঈদ আকন্দ(শিমুল আকন্দ) বলেন পলিটেকনিক শিক্ষা ব্যবস্থা কোন ছেলে খেলা শিক্ষা ব্যবস্থা নয়, এটা কোন শর্ট কোর্স নয়, এটা কোন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নয়। এটা সেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেখান হতে ডিগ্রি অর্জন করে একজন ডিপ্লোমা প্রকৌশলী সরকারের দশম গ্রেডে নন-ক্যাডার অফিসার হিসাবে নিয়োগ পান।

“ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং” শিক্ষাক্রমে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থীদের বয়স শিথিল করা ও ভর্তির জন্য নূন্যতম পয়েন্ট কমিয়ে আনা, বিষয় গুলো অত্যন্ত ক্ষতিকর হবে এই শিক্ষাব্যবস্থার জন্য। সরকারের উচিত হবে পলিটেকনিক শিক্ষা ব্যবস্থাটাকে উন্নত করার লক্ষ্যে আরোও কিছু ভাল পদক্ষেপ নেওয়া। যেন আরোও দক্ষ জনশক্তি বাংলাদেশে তৈরি হয়, পলিটেকনিক শিক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে। মিড লেভেলের এই শিক্ষাব্যবস্থার প্রতি নজরটা উন্নত হলেই দেশকে আরোও এগিয়ে নেওয়া সম্ভব হবে বলে মনে করছি। সেই সাথে ব্যক্তিগত ভাবে কিছু পদক্ষেপ এর কথা বলছি, যেটা সরকারের পক্ষ হতে পদক্ষেপ নিলে হয়তো ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষাক্রমের মান আরোও বৃদ্ধি পাবেঃ-

১) এস, এস, সি পাশের সন হতে পরবর্তী আরোও এক বছর অর্থাৎ পরপর দুইটি বছর পলিটেকনিক এ আবেদন করার সুযোগ রাখতে হবে।

২) পলিটেকনিক শিক্ষা ব্যবস্থায় ভর্তির জন্য এস,এস,সি বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের আবেদন করার সুযোগ থাকবে ।

৩) দেশের আনাচে কানাচে গড়ে ওঠা ব্যাঙের ছাতার মত বেসরকারী পলিটেকনিক এর নিবন্ধন বাতিল করতে হবে। যারা শিক্ষার মান ধরে রাখতে পারেনি, এমন পলিটেকনিক বন্ধ করে দিতে হবে।

৪) বাংলাদেশে যে সকল টেকনোলজির উপর কোন সরকারী বা বেসরকারী কর্ম নাই, সেগুলো বন্ধ করতে হবে।

৫) ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষাক্রম হতে হবে ১০০% ইংরেজি ভার্সনে।

৬) ইন্ডাস্ট্রিয়াল এটাসমেন্ট সপ্তম পর্বে দিতে হবে। আর অষ্টম পর্বে থাকতে হবে অফিস ম্যানেজমেন্ট এর উপর যাবতীয় বিষয়ে পড়াশুনা।

৭) সারাদেশের সরকারী ও বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষা চালু করতে হবে। যেন সেখান থেকে ডিপ্লোমা লেভেলের পড়াশুনা শেষ করে একই প্রতিষ্ঠান থেকে বিএসসি লেভেল শেষ করা যায়।

৮) দেশে ভরি ভরি যেন তেন বিষয়ের উপর গড়ে তোলা বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে কারিগরী বিষয়ে পড়াশুনা করার সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে।

৯) আইডিইবি এর কেন্দ্রীয় নেতাদের সর্বদা এই শিক্ষাব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য আলোচনা, সভা, সেমিনার করতে হবে। ও সরকারের কাছে দাবি জানাতে হবে।

১০) ডিপ্লোমা প্রকৌশলীদের বেতন, প্রমোশন, প্রশিক্ষণ এর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করতে হবে ইত্যাদি।

আশা করি সরকারের উচ্চ পর্যায়ের সিদ্ধান্ত গ্রহনকারীরা এই সকল বিষয়ে সদয় সিদ্ধান্ত নিলে পলিটেকনিক শিক্ষা ব্যবস্থাটাকে উন্নত করা যেতে পারে।

দেখা হয়েছে: 462
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪