fbpx

|

তানোরে ব্রীজ সংলগ্ন রাস্তার বেহাল দশা

প্রকাশিতঃ ৫:০১ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২২

তানোরে ব্রীজ সংলগ্ন রাস্তার বেহাল দশা

সারোয়ার হোসেন, তানোর: রাজশাহীর তানোরে দফায় দফায় বৃষ্টিতে শীবনদী ব্রিজের সংযোগ সড়কের বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। যান চলাচল তো দুরে থাক হেটে যাওয়াও কঠিন হয়ে পড়েছে। ফলে যারাই বাইক কিংবা অটোরিকশায় আসছেন তাদের ফেরত যেতে হচ্ছে। এতে করে চরম দূর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন গোল্লাপাড়া হাটে আসা মোহনপুর উপজেলার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, ব্রীজের পূর্ব পশ্চিম দিকের মুখ গুলো কাঁদায় একাকার হয়ে পড়েছে। কোন ভাবে ব্রীজে যেতে পারছেনা বিনোদন প্রেমিরা। সপ্তাহে দুদিন মঙ্গলবার ও শুক্রবার গোল্লাপাড়া হাট বসে। হাটে মোহনপুর উপজেলার ঘাসিগ্রাম ইউপির একাধিক বাসিন্দারা কাচা সবজি বিক্রি করতে আসেন গোল্লাপাড়া হাটে।

ব্রীজের পশ্চিম দিকের সংযোগ সড়ক দিয়ে চলাচল করতে পারলেও পূর্ব দিকের সড়ক দিয়ে চলাচল করার কোন উপায় নেই। ইদ্রিস নামের এক ব্যক্তি জানান দীর্ঘ দিন ধরে ব্লক ও জিও ব্যাগ দেওয়ার কাজ চলছে। আর কাজের জন্য পূর্ব দিকের সংযোগ সড়ক ঘেষে মাটি খনন করার কারনে কাদা হয়ে পিচ্ছিল হয়ে পড়েছে। শুধু সংযোগ সড়ক না ব্রীজের পূর্ব দিকের মুখের মাটি ধসে চিকন হয়ে পড়েছে। ওইদিক দিয়ে বাইক তো দুরে থাক পায়ে হেটে চলাও ঝুকিপূর্ণ।

সাফিউল নামের আরেক ব্যক্তি জানান কি এমন আজব ব্রীজের সংযোগ সড়কে সারা বছর চলে অলৌকিক প্রকল্প। যার কাজও শেষ হয় না। শুধু দুর্ভোগ আর দূর্ভোগ। কবে সেই কাজ শেষ হবে উপর ওলাই জানে। দিনের বেলায় তাও সতর্ক হয়ে চলতে পারছে অন্ধকার হলে কোনভাবেই চলাচল করতে পারবে না।

বাইক চালক আকতার জানান দুপুরের দিকে গোল্লাপাড়া হাটে যাওয়ার পর বৃষ্টি হয়। বৃষ্টি থামার পর সংযোগ সড়কে বাইক চালিয়ে বাড়িতে যেতে পারিনি। ছেলেকে ডেকে ঠেলে নিয়ে যেতে হয়েছে। সংযোগ সড়ক হেরিং বন্ড করা তারপরও কাদায় ভয়ংকর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

অটো চালক আমির জানান, দুপুরের আগে কেশরহাট গিয়েছিলাম ভাড়া নিয়ে। বিকেলে ব্রীজের সড়কে উঠা মাত্রই নষ্ট হয়ে পড়ে। আর পূর্ব দিকের মুখের মাটি ধসে চিকন হয়ে চরম ঝুঁকি পূর্ন হয়ে পড়েছে।

সুত্রে জানা গেছে, সাড়ে তিন কোটি টাকার বরাদ্দে ঠিকাদার আব্দুর রশিদ কাজটি করছেন। কিন্তু একেবারে নিম্ন মানের কাজ চলছে। সংযোগ সড়ক ঘেষে মাটি খনন করে গর্তে মাটি ভর্তি জিও ব্যাগ দেওয়া হচ্ছে। এর আগেও একই কায়দায় দেওয়া হয়েছিল জিও ব্যাগ। এবারেও এভাবেই জিও ব্যাগ দেওয়ার কারনে টিকসই নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এমনকি কাজের সময় থাকেনা কোন ইঞ্জিনিয়ার। ইচ্ছে মত কাজ করছেন ঠিকাদার রশিদ। তিনি জানান নিয়ম অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে বলে এড়িয়ে যান।

তবে এলজিইডি প্রকৌশলী সাইদুর রহমান জানান, এবারে কাজের মান ভালো হচ্ছে। টিকসই করার জন্য এভাবে কাজ চলছে এবং টিকসই করতে যা যা করনীয় সেটাই করা হচ্ছে।

দেখা হয়েছে: 17
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!