fbpx

|

তিস্তায় হঠাৎ পানি বৃদ্ধি,গঙ্গাচড়ার নিম্নাঞ্চলে দেখা দিয়েছে বন্যা পরিদর্শনে রংপুর জেলা প্রশাসক

প্রকাশিতঃ ৭:৫৩ অপরাহ্ন | জুন ১৮, ২০২২

গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ রংপুরের গঙ্গাচড়ায় গত কয়েকদিনের বৃদ্ধিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে হঠাৎ করে শুক্রবার ভোর থেকে নদীর পানি বিপদসীমার ১৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হতে থাকে । পানিবৃদ্ধির কারনে উপজেলার নদী তীরবর্তী ইউনিয়ন লক্ষীটারী,

গঙ্গাচড়া(আংশিক),কোলকোন্দ, গজঘণ্টা, মর্নেয়া ও নোহালী চর এলাকার নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করে। গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধির কারণে কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনার চরে নির্মিত বেড়িবাঁধসহ বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে ভাঙন। ভাঙনের মুখে পড়েছে কোলকোন্দ ইউনিয়নের বিনবিনা ও শংকরদহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। নদী অধ্যুষিত বিভিন্ন এলাকার ৩০ টির অধিক রাস্তা ভেঙে গেছে। উপজেলার ৬ টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে ৪ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়ে।পানির তীব্রস্রোতে অনেকের ঘর-বাড়ি ভেঙে গেছে।

পানিবন্দি পরিবারগুলো তাদের পোষা প্রানী গরু, ছাগলসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে উঁচু স্থানে আশ্রয় নিয়েছে। তবে শুক্রবার সকাল ৯ টার দিকে পানি কিছুটা কমে বিপসীমার ৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হতে থাকে এবং দুপুরের পড়ে আরো কমে বিপদসীমার ৪ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হতে দেখা যায় ।

আকস্মিক বন্যা দেখা দেয়ার খবর পেয়ে শুক্রবার (১৭ জুন) বিকালে রংপুর জেলা প্রশাসক (ডিসি) আসিব আহসান গঙ্গাচড়া উপজেলার লক্ষীটারী ইউনিয়নের বাগেরহাটে পানিবন্দি এলাকা পরিদর্শনে আসেন এবং সেখানে আটকেপড়া শতাধিক পানিবন্দি পরিবারের মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন করেন।

এ সময় উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রুহুল আমিন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার এরশাদ উদ্দিন পিএএ, জেলা ত্রাণ ও পূর্নবাষন কর্মকর্তা মোতাহার হোসেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মুনিমুল হক, লক্ষীটারী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদী, ওসি দুলাল হোসেন, জনস্বাস্থ্যর উপসহকারী প্রকৌশলী সারাবান তহুরা, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা, ইউপি সদস্য রমজান আলী, আব্দুল বাকি, মনোয়ারুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

চরাঞ্চলের বসবাসরত বাসিন্দারা জানান, গত এক সপ্তাহ ধরে অব্যাহত বৃষ্টি আর উজানের ঢলে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমা ছুঁইছুঁই অবস্থায় প্রবাহিত হয়ে আসছিলো।

বৃহস্পতিবার হঠাৎ পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হতে থাকলে চরের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত এলাকার অনেক পরিবারের ঘরবাড়িতে পানি ঢুকে লোকজন পানিবন্দি হয়ে যায়। মানুষজন ভেলা ও ছোট নৌকায় চলাচল করছে।

এদিকে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় জেলা প্রশাসনের পক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এরশাদ উদ্দিন পিএএ স্বাক্ষরিত সর্তক বার্তা জারি করা হয়েছে।

বন্যা নিয়ন্ত্রনে রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবিব জানান, বিনবিনার বেড়িবাঁধে জিওব্যাগ ফেলা হচ্ছে। তাছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের লোকজন সার্বক্ষনিক তদরকি করছে।

জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানান, বন্যা মোকাবেলার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন রংপুর জেলা প্রশাসন বন্যা কবলিত এলাকর সার্বক্ষণিক খোজ খবর নিচ্ছে।

গঙ্গাচড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এরশাদ উদ্দিন পিএএ বলেন, পানিবন্দি কিংবা বন্যা কবলিত এলাকার মানুষজনকে সহায়তা দেওয়ার জন্য পর্যাপ্ত ত্রান সামগ্রী রয়েছে। ইতিমধ্যেই বন্যায় ক্ষতি এড়াতে দেওয়া হয়েছে সর্তক বার্তা।

দেখা হয়েছে: 24
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!