|

ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনিয়মই যেনো নিয়ম

প্রকাশিতঃ ১২:১৬ পূর্বাহ্ন | সেপ্টেম্বর ০৪, ২০২৩

ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনিয়মই যেনো নিয়ম

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের ত্রিশালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনিয়মই যেনো নিয়ম। নিজেদের ইচ্ছেমতো আসা যাওয়া করছেন ডাক্তাররা। নিয়মতান্ত্রিক ভাবে ছুটি নেওয়ার ক্ষেত্রেও রয়েছে অস্বচ্ছতা। আবার অনেকে সময়মতো আসলেও সুযোগ বুঝে লাইনে রোগী রেখে আড্ডা দিচ্ছেন অন্যত্র।

এছাড়া ওয়ার্ড বয় দিয়ে করানো হচ্ছে প্যাথলজি বিভাগের পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফি আদায়ের কাজ। সময়মতো চিকিৎসাসেবা না পাওয়া ও ডাক্তারদের অনিয়ম সম্পর্কে জানালে ব্যবস্থা না নিয়ে উল্টো তাদের পক্ষেই সাফাই গাইছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নজরুল ইসলাম।

সময় সকাল সাড়ে এগারোটা, অপেক্ষায় লাইন ভর্তি রোগি। এখনও ডাক্তার আসার খবর নেই ১০৪ নম্বর কক্ষে। এদিকে দীর্ঘ সাড়ে তিন ঘন্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে চরম বিরক্তি ও উৎকণ্ঠায় সময় কাটছে সেবাপ্রত্যাশীদের। ২০১ নম্বর কক্ষেও নেই ডাক্তার। ডাক্তার না পেয়ে ফেরত যাচ্ছেন অনেকে। কর্তৃপক্ষ বলছে এখানে দায়িত্বরত গাইনী ও প্রসূতি বিভাগের জুনিয়র কনসালটেন্ট ডাঃ রওনক জাহান রয়েছেন ছুটিতে। তবে উনি নিয়মতান্ত্রিক ভাবে ছুটি নিয়েছেন কি-না তা স্পষ্ট করতে পারেননি স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নজরুল ইসলাম।

১০৪ নম্বর কক্ষের ডাক্তারের নাম ও ডাক্তার না আসার বিষয়ে জানতে টিকেট কাউন্টারে সাংবাদিক পরিচয়ে কথা বললে তারা কিছু জানাতে অস্বীকৃতি জানায়। পরে এবিষয়ে আউটডোরে কর্মরত অফিস সহকারী আলাল উদ্দিনকে জিজ্ঞেস করলে তিনি আরিফ(দালাল) নামে এক ব্যক্তিকে জিজ্ঞেস করে নিশ্চিত হয়ে বলেন, ‘১০৪ এর নবজাতক ও শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার শরীফ এসেছেন।’ তবে উনি ১১:৪০ এ কেন আসলেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘ডাক্তারদের বিষয়ে আমাদের বলার কোনো রাইট নাই।

এব্যাপারে আপনি স্যারের(টিএইচএ) সাথে কথা বলেন।’ রুগীদের নিয়ে টানাটানি ও ছুটোছুটি করা আরিফ হাসপাতালের কে এমন প্রশ্নে প্রথমে তিনি তাকে হাসপাতালের স্টাফ বলে পরিচয় করিয়ে দিলেও পরক্ষণে আবার সে হাসপাতালের কেউ না বলে এক ডাক্তারের ব্যক্তিগত সহকারী বলে পরিচয় করিয়ে দেন। তবে উপস্থিত লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনি ক্লিনিকে রোগি পাঠানো ও পরীক্ষা-নিরীক্ষায় ডাক্তারের দালাল হিসেবে কাজ করেন।

সময় দুপুর ১টা, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রুমে বসা। এমন সময় এক সেবাপ্রত্যাশী এসে অভিযোগ করলেন তিনি দেড়ঘন্টা যাবত রিপোর্ট নিয়ে ডাক্তারের অপেক্ষায় বসে আছেন। তবে ডাঃ নজরুল ইসলাম এমন অভিযোগ গুরুত্বসহকারে না নিয়ে উল্টো বললেন আপনি আধাঘন্টা পরেই এসে জানাতে পারতেন। আমার হাসপাতালে এমন ঘটনা কখনো ঘটেনা। ঘটলে আমি তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেই।

উপজেলার সাড়ে ৪ লাখ জনসাধারনের চিকিৎসার একমাত্র ভরসাস্থল এ হাসপাতালটির এমন দশায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় সেবাপ্রত্য্যশীরা। তাদের দাবি নিয়মতান্ত্রিক ভাবে ভালো চিকিৎসা সেবা নিশ্চিতে এ হাসপাতালটি অগ্রণী ভূমিকা পালন করুক।

অভিযোগের বিষয়ে ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নজরুল ইসলাম বলেন, ১০৪ নম্বর কক্ষে সাড়ে বারোটার দিকে আমি যেয়ে দেখি ডাক্তার উপস্থিত আছেন। যখন পান নাই, তখন যদি আমাকে জানাইতেন, তখন বিষয়টি বুজতে পারতাম। আর বাইরের দালালের দৌড়াত্ব বিষয়ে উনার কিছু জানা নেই বলে জানান তিনি। ২০৪ নম্বর কক্ষের ডাক্তার রওনক জাহান ছুটিতে আছেন বলে জানান তিনি। তবে উনি কোন প্রকৃয়ায় ছুটি নিয়েছেন তা স্পষ্ট করেননি। ওয়ার্ড বয় কিভাবে টাকা কালেকশন করছেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ক্যাশের টাকা কালেকশনের জন্য আমাদের আলাদা লোক নেই। এটা আমি ইন্টারনাল ভাবে মেনেজ করছি।

দেখা হয়েছে: 208
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ উবায়দুল্লাহ
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪