fbpx

|

লক্ষ্মীপুরে স্বামী-পরিত্যক্তা নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ১০:১৯ অপরাহ্ন | জুলাই ০৬, ২০২০

লক্ষ্মীপুরে স্বামী-পরিত্যক্তা নারীকে ধর্ষণের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টারঃ লক্ষ্মীপুরে শিশু-কন্যাকে সিগারেটের জন্য দোকানে পাঠিয়ে তার মাকে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় মাদকসেবী আব্দুল করিম নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে । ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর থেকে অভিযুক্ত আব্দুল করিম কৌশলে এলাকা থেকে পালিয়ে গেছে।

এ ঘটনায় স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করলেও বিচারের জন্য ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে ক্ষতিগ্রস্ত নারীর প্রতিবেশীরা।

এদিকে সোমবার (০৬ জুলাই) বিকেলে ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মীর শাহাদাৎ হোসেন রুবেল ভিকটিমের বাড়িতে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত নারীর সাথে কথা বলেন। তবে ক্যামেরার সামনে কোন বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

এর আগে রোববার (০৫ জুলাই) বিকালে ৩টার দিকে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার (১২ নং ওয়ার্ড) লাহারকান্দি এলাকায় এলাহীবক্স ভূঁইয়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় এলাকাবাসীর সূত্রে জানা গেছে, দুইবছর পূর্বে ক্ষতিগ্রস্ত নারী মেঘনা নদীতে সবকিছু হারিয়ে অস্থায়ী ভাবে লাহারকান্দি এলাকায় এসে মা-বাবা তার ৯ বছরের শিশু-কন্যা সুমাইয়াকে নিয়ে বসবাস করে। তবে ভিকটিম (নারী) স্বামী পরিত্যক্ত। সেই আশ-পাশের ঘর-বাড়িতে কাজ করে কোনোরকম জীবন কাটে।

গতকাল রোববার বিকেলে একই এলাকার বাইশমারা খন্দকার বাড়ির ভুলু মিয়ার ছেলে আব্দুল করিম ওই নারীর ঘরের পাশে বসে গাঁজা সেবন করে। কিছুক্ষণ পর আব্দুল করিম ভিকটিমের ঘরে এসে তার শিশু-কন্যাকে ১০ টাকা হাতে দিয়ে সিগারেটে জন্য স্থানীয় এমরান ভূঁইয়ার দোকানে পাঠান। এ সুযোগে নারীকে একা পেয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে বলে ক্ষতিগ্রস্ত নারীর অভিযোগ। এরমধ্য শিশুকন্যা সিগারেট নিয়ে এসে দেখতে পান তার মা বিবস্ত্র অবস্থা। এরপর আব্দুল করিম মা ও মেয়েকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়। বিষয়টি জেনো কাউকে না বলে।

ঘটনার কিছুক্ষণ পরে ভিকটিম স্থানীয় এমরান ভূঁইয়ার দোকানের সামনে এসে প্রকাশ্য সবার সামনে বলে আব্দুল করিম তার সর্বনাশ করেছে এমনটা জানিয়েছেন দোকানদার এমরান ভূঁইয়া।

এদিকে স্থানীয় সোলেমান, আব্দুল আহাদ, আনোয়ার ও (প্রবাসী’র) স্ত্রী ইয়াসমিন বেগম বলেন, দীর্ঘদিন থেকে এ নারী এখানে বসবাস করে। কখনও কাউর সাথে বিন্দুমাত্র দ্বন্দ্ব হয়নি। বেশিভাগ মানুষের বাড়িতে কাজ করেন। সম্প্রতি তার বাবা মারা যান। এখন বৃদ্ধ মা ও শিশু-কন্যাকে নিয়ে খুব কষ্টে দিন কাটেন। এলাকাবাসী চাঁদা তুলে তাকে ঘর তুলে বসবাসের উপযোগী করে দেন। সবাই এ ঘটনায় সঠিক তদন্ত করে বিচারের দাবি করছেন পুলিশ-প্রশাসনের কাছে।

লক্ষ্মীপুর সদর (মডেল) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ একেএম আজিজুর রহমান মিয়া বলেন, এ বিষয় এখন পর্যন্ত কেউ পুলিশকে জানায়নি। তবে অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দেখা হয়েছে: 728
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!