fbpx

|

পদ্মানদীতে অবৈধ ড্রেজারের রমরমা বালু বানিজ্য: ঝুঁকিতে কয়েকটি গ্রাম

প্রকাশিতঃ ৭:১১ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২২

পদ্মানদীতে অবৈধ ড্রেজারের রমরমা বালু বানিজ্য" ঝুঁকিতে কয়েকটি গ্রাম

মো. মহসিন রেজা, শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুরের পদ্মা নদীতে পদ্মা সেতুর পিলারের কোল ঘেঁষে ড্রেজারের মাধ্যেমে বালু সরানো হচ্ছে, সেতুর পিলারের নিরাপত্তার জন্য চারপাশ ঘিরে পাথর ফেলার জন্য এই ড্রেজিং। এজন্য ৩৫টি ড্রেজার কোম্পানীকে সেতু প্রকল্প এ দায়িত্ব দিয়েছেন বলে জানান জাজিরা উপজেলা নির্বার্হী কর্মকর্তা।

কিন্তু বিপদের বিষয় হলো অনুমোদিত ড্রেজার ছাড়া আরো অন্তত ৬০টির বেশি ড্রেজার চলছে অবৈধভাবে। এই অবৈধ ও বৈধ ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন হচ্ছে শুধু বিক্রির জন্য। আর এই বালু উত্তোলনের জন্যে ক্ষতির মুখে পূর্ব নাওডোবা ইউনিয়নের ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের হাজার হাজার মানুষের বাড়িঘর চাষাবাদসহ নদী ভাঙ্গনের আশংকা করছে স্থানীয়রা।

পিলার নিরাপত্তার প্রয়োজনে ৩৫টি ড্রেজারের বৈধ অনুমতি থাকলেও চলছে শতাধীক ড্রেজার, এছাড়া অনুমোদিত ড্রেজার বালু নদীর পাড়ে না ফেলে তারাও বালু বিক্রি করে দিচ্ছে

এদিকে পূর্ব নাওডোবা ইউনিয়নের দুটি ওয়ার্ডের পাইন পাড়া, আলম খা কান্দি, রুপাই খার কান্দি, আহমদ মাঝী কান্দি, মুনসুর মোল্লার কান্দি আলিমুদ্দিন কান্দিসহ আরো বেশ কিছু এলাকার মানুষ বার বার মানববন্ধন, ড্রেজার পক্ষের লোকজনের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া রাজনীতিক, প্রশাসনসহ বিভিন্ন জায়গায় ধরনা দিয়েও ড্রেজার বন্ধের কোনো ব্যবস্থা হয়নি, তার উপর হয়রানি হচ্ছে নদী তাদের বাড়িঘর জমিজমা হারানোর ভয়ে থাকা ভুক্তভোগীরা, বিষয়টি জানায় নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ভুক্তভোগী।

প্রতিবেদকের অনুসন্ধানে উঠে আসে রাজু মোড়ল কামাল মোল্লা, নেছের মাদবর, চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন খান,বাচ্চু মাদবর ওরফে কালা বাচ্চু, নেছার মাদবর রাজু মাদবর, মামুন খান, মনির খান, খবির ফরাজি রাজ্জাক মাঝী, প্রজেক্ট এলাকায় আলিম বেপারী এছাড়াও শত শত জলদস্যু এই বালু বানিজ্যে জড়িত বলে জানা যায় অনুসন্ধানে।

এছাড়া অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের পেছনে শরীয়তপুর-মুন্সীগঞ্জের একাধীক প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতার জড়িত থাকার অভিযোগ এসেছে।

অন্যদিকে জাজিরা উপজেলা থেকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যেমে জেল জড়িমানা করা হলেও নিরব ভূমিকায় নদী নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা নৌ-পুলিশ।

এ বিষয়ে ছাত্তার মাদবরের ঘাট নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির সাব ইন্সপেক্টর জহিরুল হক জানান, বৈধ অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের সব কয়টি ড্রেজার সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

বালু উত্তোলনের বিষয়ে পূর্ব নাওডোবা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন খান বলেন, এসব বালু উত্তোলনে আমি বা আমাদের কেউ জড়িত নয়।

পদ্মানদী থেকে অবৈধ ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন ও বিক্রির বিষয়ে জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল হাসান বলেন, এ বিষয়ে পদ্মা সেতু কতৃপক্ষ আমাদের তালিকা দিয়েছেন ৩৫টি ড্রেজারের। এছাড়া অবৈধ ড্রেজার থাকলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

দেখা হয়েছে: 84
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!