fbpx

|

গাইবান্ধার প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন শেষে থানায় এজাহার

প্রকাশিতঃ ১০:৩৫ অপরাহ্ন | জুন ২২, ২০১৮

গাইবান্ধার প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন শেষে থানায় এজাহার

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল, গাইবান্ধাঃ

গাইবান্ধা জেলার সদর উপজেলার মৌজা মালিবাড়ী ইউনিয়নের শরীফ উদ্দিনের ছেলে আবু তাহের (২৫) এর সহিত একই এলাকার এবং লক্ষিপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের জে এস সি পরীক্ষার্থী বিয়ের দাবী নিয়ে অনশন করছে প্রেমিক আবু তাহেরের বাড়িতে।

সরেজমিনে ও অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, দুজনের বাড়ি একই এলাকায় হওয়ার কারনে সম্পা বাড়ি হতে স্কুল যাবার পথে প্রায়শই প্রেমিক আবু তাহের তাকে বিভিন্ন ভাবে বিরক্ত করত এবং এক পর্যায়ে তাহাদের মাঝে একটি সর্ম্পকের তৈরী হয়। এরই সুত্র ধরে প্রেমিক আবু তাহের মেয়েটাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে একাধিক বার ধর্ষন করে।

সর্বশেষ গত দুদিন আগে প্রেমিক তাহের তাহার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন যাহা নং- ০১৯০৪….৭০১ হইতে সম্পার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন যাহার নং : ০১৭২২…..৮৬০ তে ফোন করিয়া বেড়ানোর কথা বলে স্থানীয় দাড়িয়াপুর বাজার সংলগ্ন ব্রীজের উত্তর পশ্চিম পার্শ্বে প্রেমিকের ভাই হারুন অর রশীদের শ্বশুর বাড়িতে নিয়ে যায় এবং শ্বশুর বাড়িতে কেহ না থাকায় তাহার পশ্চিম দুয়ারী শয়ন ঘরের মধ্যে বিছানায় উপুর্যপুরী ধর্ষন করে এক পর্যায়ে মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রেমিক রুপি ধর্ষক আবু তাহের পালিয়ে যায়।

পরে প্রেমিকা হিসেবে দাবীকৃত উক্ত মেয়েটি কিছুটা সুস্থ হয়ে আবু তাহের কে দেখতে না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পরে। পরে বাধ্য হয়ে লজ্জা শরম ত্যাগ করে প্রেমিক আবু তাহেরের বাবার বাড়ীতে গিয়ে উঠে বাড়ির সদস্যদের বিস্তারীত জানায় এবং বিয়ের দাবী জানায় এ মেয়েটি।

এ সময় আবু তাহের বাড়ীতে নেই দাবী করে এ ছাত্রীটিকে জনসম্মুক্ষে বে- ধরক মারধর করে ও ছাত্রীটির ব্যবহৃত মোবাইল সহ অন্যান্য প্রমাণাদি কেড়ে নেয় প্রেমিক আবু তাহেরের পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা । এর পরে মার খেয়েও ঐ বাড়ীর সামনেই বসে থাকে এ ছাত্রী। এ ঘটনার পর অবস্থার বেগতিক দেখে আবু তাহেরের পরিবারের সদস্যরা নিজ বাড়ি ফাঁকা রেখে পালিয়ে যায়। পরে বাড়ীর ভিতরে প্রবেশ করে পুনরায় বিয়ের দাবী নিয়ে একক ভাবে অনশন শুরু করে এ ছাত্রী।

এ বিষয়ে প্রেমিক আবু তাহের কিংবা পরিবারের সদস্যদের সহিত যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।

অবস্থা বেগতিক দেখে স্থানীয়রা থানায় খবর দিলে থানা পুলিশের একটি দল গিয়ে মেয়েটি কে নিয়ে আসে এবং আজ মেয়েটির বাবা সোহরাব হোসেন বাদি হয়ে গাইবান্ধা সদর থানায় আবু তাহের সহ ৭ জনকে আসামী করে একটি এজাহার দায়ের করেন।

থানায় এজাহার দায়ের এ বিষয়টি নিশ্চিত করে সদর থানার ওসি তদন্ত আরশেদুল হক সাংবাদিকদের জানান আমরা এরকম একটি অভিযোগ পেয়েছি এবং সেটি তদন্ত স্বাপেক্ষে ব্যবস্থা নিব।

দেখা হয়েছে: 610
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!