|

ত্রিশালে কেমিক্যালমুক্ত ফল চাষে রফিকের ভাগ্যবদল

প্রকাশিতঃ ১০:৫৩ অপরাহ্ন | মার্চ ২৩, ২০২০

ত্রিশালে কেমিক্যালমুক্ত ফল চাষে রফিকের ভাগ্যবদল

ত্রিশাল প্রতিনিধিঃ পরিবারের আর্থিক সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে মা-বাবা, স্ত্রী-সন্তান সবাইকে ফেলে দীর্ঘ ১৪টি বছর প্রবাসে কাটিয়েছিলেন রফিক। তবে ভাগ্যের চাকা ঘোরেনি সেখানে। রফিকের হয়তো জানা ছিল না দেশের অকৃষি অনাবাদী উর্বর মাটির নিচেই লুকিয়ে আছে ভাগ্যের খনি।

কষ্টের সময় পার করে দেশে ফিরে বাড়ির চারপাশের ২ একর অনাবাদী জমিতে গড়ে তোলেন মাল্টা, আমড়া ও পেঁপেসহ নানা প্রজাতির ফলের বাগান। আত্মপ্রত্যয়ী ও পরিশ্রমী হলে সফলতা যে মানুষের দ্বারপ্রান্তে কড়া নাড়ে তা প্রমাণ করেছেন তিনি।

দৃষ্টিনন্দন ও উৎপাদনশীল এমনই একটি ফলদ বাগান ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়ে সফলতা এনে দিয়েছে ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার মোক্ষপুর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চল কৈতরবাড়ী গ্রামের নেয়ামতুল্লাহর ছেলে ওই রফিকুল ইসলামের। উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল কৈতরবাড়ী গ্রামটি। ওই অঞ্চলে সমতল ভূমির পরিমাণ খুবই কম। ছোট-বড় টিলাঘেরা ওই গ্রাম।

স্থানীয়দের কাছে যা চালা নামে পরিচিত। রফিকুল ইসলাম খুব বেশি পড়াশোনা করতে পারেনি। তাই পরিবারের আর্থিক সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে মা-বাবা, স্ত্রী-সন্তান সবাইকে ফেলে পাড়ি জমান সৌদি আরবের মরুপ্রান্তরে। ৫ বছর পর সৌদি থেকে দেশে ফিরে আবার চলে যান মালয়েশিয়ায়। সেখানে ফলের বাগান পরিচর্যার কাজ করেন দীর্ঘ ৯ বছর।

২০১৪ সালে দেশে ফিরে বাড়ির চারপাশের ২ একর অনাবাদী বা অকৃষি চালা জমিতে গড়ে তোলেন ‘রফিক ফলজ ও কৃষি খামার’। বাগানে রোপণ করেন মাল্টা, আমড়া, লিচু, আমলকী, উড়-বরই, আম, লেবু ও পেঁপেসহ নানা প্রজাতির ফলের চারা। কঠোর শ্রম ও পরিচর্যার ফলে বছর দুই ঘুরতেই গাছগুলোতে ফল ধরতে শুরু করে।

বর্তমানে ৮ একর জমির ওই বাগানে জামরুল, সফেদা, আনার, ডালিম, আরবের খেজুর ও মসলা জাতীয় এলাচিসহ ৩০ প্রজাতির ফলের স্থান পেয়েছে। গত ৬ বছরে দৃষ্টিনন্দন ও উৎপাদনশীল ওই ফলদ বাগানে ৬-৭ জন লোকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে। প্রতি মাসে হাইব্রিড প্রজাতির পেঁপেসহ বারোমাসি লেবু বিক্রি হয় ৫০-৬০ হাজার টাকার।

রফিক ফলদ ও কৃষি খামারে উৎপাদিত মাল্টা, আমড়া, লিচু, আমলকী, উড়-বরই, আম, পেঁপে ও লেবু ট্রাক ভরে ছড়িয়ে পড়ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে। গত বছর বিভিন্ন জাতের ফল-ফলাদি বিক্রি করে আয় করেছেন প্রায় ১৫ লাখ টাকা। এ বছর শীতকালীন সবজির জন্যও প্রস্তুত করেছেন প্রায় তিন একর জমি। বিভিন্ন ফলের চারাও বিক্রি করেন তিনি।

এরই মধ্যে দেশের অর্থনীতিতে ও পুষ্টি চাহিদা পূরণে বিশেষ অবদান রাখায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের বেশকটি প্রশংসাপত্র কুড়িয়েছেন রফিক। রফিকের উৎপাদনধর্মী ফলজ বাগান দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে বেশ কয়েকজন স্থানীয় কৃষক ফলজ বাগান করার কাজ শুরু করেছেন। কৃষিসেবা ও সফল ফল উৎপাদনকারী স্বনির্ভর রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি প্রবাসে অনেক পরিশ্রম করেছি। জেনেছি আত্মপ্রত্যয়ী ও পরিশ্রমী হলে সফলতা মানুষের দ্বারপ্রান্তে গিয়ে কড়া নাড়ে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সোয়েব আহমেদ জানান, তিনিসহ কৃষি বিভাগের কয়েকজন কর্মকর্তা সরেজমিন গিয়েছিলেন রফিকের ফলদ ও কৃষি খামারে। তিনি বলেন, ওই বাগানে কোনো ধরনের কেমিক্যাল বা রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহৃত হয় না। ফলগুলো অত্যন্ত সুস্বাদু। রফিকের উৎপাদনধর্মী ফলদ বাগান দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে বেশ কয়েকজন স্থানীয় কৃষক ফলজ বাগান করার কাজ শুরু করেছেন। দেশের অর্থনীতিতে ও পুষ্টি চাহিদা পূরণে বিশেষ অবদান রাখছে রফিক।

দেখা হয়েছে: 45
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
প্রকাশকঃ মোবাইল ০১৯১৬-২২৩৩৫৬
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪