fbpx

|

মাদায় ফয়সাল ক্লিনিক প্রসূতির মৃত্যু তদন্ত কমিটি গঠন

প্রকাশিতঃ ৮:৪৪ অপরাহ্ন | জুন ৩০, ২০২২

মাদায় ফয়সাল ক্লিনিক প্রসূতির মৃত্যু তদন্ত কমিটি গঠন

মাদা (নওগাঁ) প্রতিনিধি: নওগাঁর মাদা উপজলার ফয়সাল ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার ভুল অপারেশনে প্রসূতি আকলিমা বেগমের (৩২) মৃত্যুর ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন আবু হেনা মোহাম্মদ রায়হানুজ্জামান সরকারের নির্দেশে বৃহস্পতিবার এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

তদন্ত কমিটির প্রধান দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে নওগাঁ সদর হাসপাতালের গাইনী কনসালটেশন ডা. সাদিয়া রহমানকে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, নওগাঁর ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মা. মুনীর আলী আকন্দ ও মাদা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার বিজয় কুমার রায়।

এ প্রসঙ্গ নওগাঁর সিভিল সার্জন আবু হেনা মোহাম্মদ রায়হানুজ্জামান সরকার বলেন, এ ঘটনায় নওগাঁ সদর হাসপাতালের একজন গাইনী কনসালটেশকে প্রধান করে তিন সদস্যর তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাচ্ছে না। প্রতিবেদন পাওয়ার পর বিস্তারিত জানানো হবে।

এদিক ভুল অপারশন ও অব্যবস্থাপনা খতিয় দেখতে গত সোমবার (২৭ জুন) বিকেল ওই ক্লিনিকে অভিযান দেন মাদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু বাক্কার সিদ্দিক। এ সময় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. বিজয় কুমার রায় ও মাদা থানার ওসি শাহিনুর রহমান তাঁর সঙ্গে ছিলেন।

ইউএনও আবু বাক্কার সিদ্দিক এসময় ওই ক্লিনিক গত শনিবার (২৫ জুন) রোগী ভর্তির রেজিষ্টার ও সিসিটিভি ফুটজ পর্যালাচনা করেন। একই সঙ্গে রোগী ভর্তি, অপারেশনে অংশ নেওয়া সার্জন ও অজ্ঞানের চিকিৎসকের বিষয় খোজ-খবর নেওয়া হয়। এতে ত্রুটি পরিলক্ষিত হওয়ায় মারা যাওয়া প্রসূতির অপারেশনের যাবতীয় নথি ও ক্লিনিকর কাগজপত্র উপজলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার কাছ দাখিলের নির্দেশ দেন ইউএনও।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রসূতি আকলিমা বেগমর অপারেশনের বিষয় ফয়সাল ক্লিনিকের পক্ষ যেসব কাগজপত্র উপস্থাপন করা হয়েছে তাতে অপারেশনের দায়িত্ব ছিলেন এসএম হাবিবুল হাসান নামে একজন চিকিৎসক। অজ্ঞানের চিকিৎসক হিসেব নাম ব্যবহার করা হয়েছে ডা. সামিউল ইসলামের।

কিন্তু ডা. সামিউল ইসলাম সেখানে উপস্থিত ছিলেন না বলেও নিশ্চিত করেছে সূত্রটি।

এ প্রসঙ্গ অজ্ঞানের চিকিৎসক সামিউল ইসলাম বলেন, ‘ওই দিন (২৫ জুন) আমি নিজের কর্ম কার্যালয় রাজশাহী জেলার উপজলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রেমতলীতে দায়িত্ব পালন করেছি। একইদিন বিকেলে রাজশাহী মহানগরীর মডেল হাসপাতালে একটি অপারেশনে অংশ নিয়েছিলাম।

২৫ জুন আমি মাদাতে যায়নি। এরপরও ওই অপারেশনে ক্লিনিক কর্তূপক্ষ কেন আমার নাম ব্যবহার করেছে তা বলতে পারছি না। এটি সত্য হলে ক্লিনিক কর্তপক্ষের বিরুদ্ধ আইনী ব্যবস্থা নিব।’

এ বিষয় অপারশন অংশ নওয়া চিকিৎসক এসএম হাবিবুল হাসানের মোবাইল ফোন দুইদিন ধরে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তা রিসিভ না হওয়ায় তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উল্লখ্য, গত শনিবার (২৫ জুন) দুপুর আড়াইটার দিক উপজেলার প্রসাদপুর বাজারের ফয়সাল ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আকলিমা বেগম নামের এক নারীর সিজারিয়ান করানো হয়। এটি ছিল তাঁর ৩য় সিজারিয়ান। অপারেশনের পর রোগীর রক্তক্ষরণ বন্ধ না হওয়ায় ক্রমই অবস্থা অবনতি হতে থাকে।

এ অবস্থায় বিকাল ৫টার দিকে একটি মাইক্রাবাসে তাঁকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানা হয়। সেখানে রাত সাড়ে ৮টার দিকে তিনি মারা যান। প্রসূতি আকলিমা বেগম উপজেলার নুরুল্লাবাদ ইউনিয়নের জাতবাজার এলাকার আব্দুল মানান ওরফ মানুর স্ত্রী।

দেখা হয়েছে: 44
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!