fbpx

|

বরেন্দ্র অঞ্চলে আলুর জমি পরিচর্যা, অন্যদিকে বোরো রোপণে ব্যস্ত কৃষকরা

প্রকাশিতঃ ৯:১৩ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ১৩, ২০২২

নাজিম হাসান, রাজশাহী: রাজশাহী জেলা বরেন্দ্র অঞ্চল নামে পরিচিত। যেখানে কৃষি চাষাবাদই প্রধান আয়ের উৎস। রাজশাহী জেলাজুড়ে একদিকে যেমন চলছে আলুর জমির পরিচর্যার কাজ তেমনিভাবে বিলের জমিতে কঠিন ঠান্ডা উপেক্ষা করে চলছে বোরো রোপণসহ জমি তৈরির কাজ। অবৈধভাবে পুকুর খনন করায় বিলের পানি নামতে সময় লাগায় বীজতলা তৈরি ও চারা প্রস্তুতে কিছুটা সময় লাগার পরেও এখন পুরো দমে বোরো ধান রোপণ কাজে ব্যাস্ততা বেড়েছে কৃষকদের। কৃষক এবং শ্রমিকদের কোন ভাবেই দম ফেলার সময় নেই। সারাদিন মাঠের বিলের জমিতে কাজ করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষক ও শ্রমিকেরা। সকালের কঠিন শীত উপেক্ষা করে চাষিরা নেমে পড়ছেন চাষ করতে অন্যদিকে মাঠের পর মাঠে আলুর জমি পরিচর্যার কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা। আবার আলুর সবুজ জমির ফাকে রোপণ করা হয়েছে সরিষা। যার ফুলগুলো হলুদ আকার ধারন করছে। অনেক মাঠ সবুজ পাতা আর হলুদ ফুলে যেন সেজেশে।

 

বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, জেলা বিভিন্ন উপজেলার রোপা আমন ধানী জমির মাঠে শোভা পাচ্ছে আলুর সবুজ পাতা। প্রায় প্রতিটি মাঠে হয়েছে আলু চাষ। যদিও আগে কৃষকরা তাদের নিজের জমিতে আলু চাষ করলেও এবার কিছুটা হলেও ব্যতিক্রমী। গত মৌসুমে প্রায় আলু চাষি লাভের মুখ দেখেছেন। ক্ষতিগ্রস্তের সংখ্যা খুবই কম ছিলো। আবার অনেক তরুণ চাষি আছেন তাঁরা ব্যাপক ভাবে আলু চাষ করেন। তরুণ চাষি এমদাদ জানান চাষাবাদই আমাদের মুল ভরসা। গত বারে ৬ বিঘা আলু চাষ করে জমি থেকে বিক্রি করে ভালোই লাভ পেয়েছিলা। তাই এবারো ৬ বিঘা জমিতে চাষ করেছে। এবারো আবহাওয়া অনুকুলে থাকার কারনে ফলন লাভের আশা দেখছেন চাষিরা।

 

এদিকে, সিন্ডিকেট করে থাকে গভীর নলকূপের অপারেটররা। মৌসুমি আলু চাষিরা শতশত বিঘা জমি লীজ নিয়ে আলুর প্রজেক্ট করে থাকেন। তাঁরা গভীর নলক‚পের অপারেটরদের সাথে চুত্তিতে কৃষকের জমি লীজ নিয়ে দিয়ে মালিককে পুরো টাকা দেন না বলে রয়েছে প্রচুর অভিযোগ। একাধিক কৃষকদের অভিযোগ আমাদের নিজের জমি হলেও আমরা সরাসরি লীজ দিতে পারিনা। অপারেটরেরা আমাদের জমি বেশি টাকায় লীজ দিয়ে আমাদেরকে কম পরিমাণ টাকা দিয়ে থাক। আবার প্রতীবাদ করলেও কোন লাভ হয়না। কারন পরের চাষাবাদে পানি দিতে চাইনা। এজন্য কৃষকরা তাদের ন্যায্য পাওনা থেকে চরমভাবে বঞ্চিত হন তারা। আলু চাষি হিন্দুপাড়া গ্রামের উত্তম জানান গত বছরে দশ বিঘা জমিতে আলু চাষ করে জমি থেকেই বিক্রি করে দিয়ে ছিলাম। যার কারনে খুব একটা বেশি লাভ হয়নি। তবে লোকসানও হয়নি। এবার তিনি দেবিপুর সংলগ্ন মাঠে লাভের আসায় দশ বিঘা জমিতে আলু চাষ করেছেন। গাছ ভালো গজিয়েছে বলে জানান তিনি।

 

এ বিষয়ে রাজশাহী কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা বলছেন, চার-পাঁচ বছর থেকে জেলাতে বোরো ধানের আবাদ ক্রমশই বেড়ে চলেছে। এর অন্যতম কারণ অন্যান্য বছরের চেয়ে এবার ধানের দাম বেড়ে যাওয়ায় কৃষকেরা পতিথ্য জমিতে চাষাবাদ শুরু করে দিয়েছেন। এছাড়া মৌসুমের ফসলের তুলনায় এই ধানে অধিক পরিমাণে সেচ দিতে হয়। আর সেচ দেয়ার জন্য গভীর নলক‚পের উপর ভরসা করতে হয়। কবে এ বছরও আবাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে বলে তারা আশা প্রকাশ করেন।

দেখা হয়েছে: 13
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪