|

বর্তমান প্রাথমিক শিক্ষা ও বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা-ভাবনা: শরীফুল্লাহ মুক্তি

প্রকাশিতঃ ৩:৫২ অপরাহ্ন | অক্টোবর ১৫, ২০২০

বর্তমান প্রাথমিক শিক্ষা ও বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা-ভাবনা: শরীফুল্লাহ মুক্তি

বাঙালি জাতির ভাগ্য উন্নয়নে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সারাজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। বাঙালির শিক্ষা-সংস্কৃতি, আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক উন্নয়নে তিনি ছিলেন নিবেদিত-প্রাণ। তিনি অনুভব করতে পেরেছিলেন দেশের উন্নয়নের জন্য, দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য, সাধারণ মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ‘শিক্ষা’- বিশেষ করে ‘প্রাথমিক শিক্ষা’। প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়ন ছাড়া জাতীয় শিক্ষার ভিত মজবুত করা সম্ভব নয়।

ছোটবেলা থেকেই বঙ্গবন্ধু ছিলেন শিক্ষার জন্য পাগল-প্রাণ। তখন থেকেই তিনি শিক্ষা নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করতেন এবং শিক্ষাসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কার্যক্রমে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছিলেন। গোপালগঞ্জ শহরের স্কুলজীবন থেকেই তিনি নিজের পড়ালেখার পাশাপাশি শিক্ষা-সহায়ক হিসেবে কাজ করেছেন। গরিব সহপাঠীদের নিজের পাঠ্যপুস্তক ও শিক্ষাসামগ্রী বিলিয়ে দিতেন। তাঁর গৃহশিক্ষক বঞ্চিত ও অভাবগ্রস্ত শিশুদের শিক্ষাদানের জন্য একটি স্কুল স্থাপন করেছিলেন যা চালাতেন চাঁদা আদায় করে। মুসলমানদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে চাল তুলে চাঁদা আদায় করতে হতো। ছোট্ট খোকা দলবল নিয়ে নিজেকে সেই কাজে বিলিয়ে দিতেন। গোপালগঞ্জের মাথুরানাথ ইন্সটিটিউট মিশন স্কুলে পড়ার সময় স্কুল পরিদর্শনে এসেছিলেন অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক ও পাকিস্তানের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। সে সময় স্কুলের মেরামত কাজ ও ছাদ-সংস্কার, খেলার মাঠ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সোহরাওয়ার্দীর কাছে স্কুলের স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা হিসেবে জরুরিভাবে অর্থ বরাদ্দ করার দাবি করেন শিশু শেখ মুজিবুর রহমান। সেই ছাত্রাবস্থা থেকেই শিক্ষা ও শিক্ষাব্যবস্থার জন্য তার দরদ সৃষ্টি হয়েছিল। তারপর আর পথচলা থেমে থাকেনি, বরং মধুমতি নদীর সেই স্রোতধারা গোপালগঞ্জ হতে সময়ের চাহিদানুযায়ী ভারতবর্ষে প্রবাহিত হতে থাকে।

বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা-ভাবনা ছিল তাঁর রাজনৈতিক দর্শনের অন্যতম ভিত্তিভূমি। ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী ৮টি শিক্ষা-কমিশন গঠন ও প্রতিবেদন পেশ করে। সকল কমিশনই ছিল এ দেশ তথা পূর্ব-পাকিস্তানের মানুষের মৌলচেতনা, সমাজ-সংস্কৃতি ও কৃষ্টি বিরোধী। ১৯৭০ সালে নির্বাচনী এক বক্তৃতায় বঙ্গবন্ধু সুষ্ঠু সমাজব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য শিক্ষাখাতে বিনিয়োগকে উৎকৃষ্ট বিনিয়োগ বলে অভিহিত করেন। শিক্ষা সম্বন্ধে নীতিনির্ধারণী এ বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘সু-সমাজব্যবস্থা গড়ে তোলার জন্য শিক্ষাখাতে পুঁজি বিনিয়োগের চাইতে উৎকৃষ্ট বিনিয়োগ আর কিছু হতে পারে না। ১৯৪৭ সালের পর এ দেশে প্রাথমিক স্কুলের সংখ্যা হ্রাস পাওয়ার পরিসংখ্যান একটি ভয়াবহ সত্য। আমাদের জনসংখ্যার শতকরা ৮০ ভাগ অক্ষরজ্ঞানহীন। প্রতি বছর ১০ লক্ষেরও অধিক নিরক্ষর লোক বাড়ছে। জাতির অর্ধেকেরও বেশি শিশুকে প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। শতকরা মাত্র ১৮ জন বালক ও ৬ জন বালিকা প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণ করছে। জাতীয় উৎপাদনের শতকরা কমপক্ষে ৪ ভাগ সম্পদ শিক্ষাখাতে ব্যয় হওয়া প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি। কলেজ ও স্কুল শিক্ষকদের, বিশেষ করে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করতে হবে। নিরক্ষরতা অবশ্যই দূর করতে হবে। ৫ বছর বয়স্ক শিশুদের বাধ্যতামূলক অবৈতনিক প্রাথমিক শিক্ষাদানের জন্য ‘ক্র্যাস প্রোগ্রাম’ চালু করতে হবে। মাধ্যমিক শিক্ষার দ্বার সব শ্রেণির জন্য খোলা রাখতে হবে। দ্রুত মেডিকেল ও কারিগরি বিশ^বিদ্যালয়সহ নয়া বিশ^বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে হবে। দারিদ্র্য যাতে উচ্চশিক্ষার জন্য মেধাবী ছাত্রদের অভিশাপ হয়ে না দাঁড়ায়, সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।’ ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম হয়। সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশে তাঁর বলিষ্ঠ নেতৃত্বে প্রাথমিক শিক্ষাকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়। নয় মাস শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের যে ক্ষতি হয়েছিল তা দ্রুত পুষিয়ে দিতে তিনি নানা কার্যক্রম হাতে নেন। রাষ্ট্রক্ষমতা গ্রহণ করেই ১৯৭২ সালের ১৫ জানুয়ারি মার্চ-ডিসেম্বর পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বকেয়া বেতন মওকুফ করেন। শিক্ষক-কর্মচারীদের বকেয়া বেতনভাতা প্রদান করে শিক্ষাব্যবস্থায় শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনেন। তখন শিক্ষার্থীদের মাঝে বই, খাতা, পেনসিলসহ বিভিন্ন উপকরণ বিতরণ করা হয়।

পাশাপাশি বিদেশি বিস্কুট, ছাতু, দুধসহ নানা খাদ্যসামগ্রীও শিক্ষার্থীদের মাঝে সরবরাহ করা হয়। ধ্বংসপ্রাপ্ত, ক্ষতিগ্রস্ত বিদ্যালয়গুলো মেরামত এবং অনেক নতুন বিদ্যালয় স্থাপন শুরু করা হয়। ১৯৭২ সালের ২০ জানুয়ারি শিক্ষামন্ত্রী অধ্যাপক ইউসুফ আলী বঙ্গবন্ধুর সম্মতিক্রমে শিক্ষাব্যবস্থা পুনর্গঠনে ৫১ কোটি টাকা বরাদ্দের ঘোষণা দেন, যা সদ্য স্বাধীন দেশের শিক্ষার ভিত গঠনে বীজের ভূমিকা পালন করে। বঙ্গবন্ধু টোল, মক্তব, মাদ্রাসা, পাঠশালা তথা ব্রিটিশ ভারত ও পাকিস্তানের শিক্ষাব্যবস্থা থেকে বেরিয়ে এসে ১৯৭৩ সালে প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয়করণের ঘোষণা দেন। যদিও তখনকার আর্থ-সামাজিক-সাংস্কৃতিক টানাপড়েনের মধ্যে প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয়করণ ও বাস্তবায়ন ছিল একটি কঠিন চ্যালেঞ্জ। ১৯৭২ সালে প্রণীত সংবিধানে শিক্ষাকে অগ্রাধিকার দিয়ে ‘রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি’ অংশে বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা-ভাবনা সংযুক্ত করে ১৭ নম্বর অনুচ্ছেদ অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

শিক্ষাব্যবস্থার দিকনির্দেশনা প্রদান করার জন্য বিখ্যাত শিক্ষাবিদ বিজ্ঞানী ড. কুদরত-বা-খুদাকে সভাপতি করে ১৯৭২ সালের জুলাই মাসে ১৯ সদস্য বিশিষ্ট একটি শিক্ষা-কমিশন গঠন করা হয়। বঙ্গবন্ধুর একান্ত ইচ্ছায় ১৯৭৪ সালের মে মাসে একটি সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য নিয়ে কুদরত-ই-খুদা শিক্ষা-কমিশন প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। কমিশনে প্রাথমিক শিক্ষার মেয়াদ ৫ বছর থেকে বাড়িয়ে ৮ বছর করার সুপারিশ করা হয়। উচ্চশিক্ষা গ্রহণেচ্ছুদের জন্য সাক্ষরতা অভিযান নামে বিশেষ একটি পদক্ষেপের কথা শিক্ষা-কমিশনে উল্লেখ করা হয়। ৫ বছরের মধ্যে ১১-৪৫ বছর বয়সী সাড়ে তিন কোটি নিরক্ষর মানুষকে অক্ষরজ্ঞান দেয়ার প্রস্তাব ছিল এই শিক্ষা-কমিশনে। অর্থাৎ শুধু নিজে শিক্ষিত হলে চলবে না, বরং নিরক্ষরদের শিক্ষিত করার মাধ্যমে সামাজিকতা তৈরি ও দেশ গঠনে অবদান রাখতে হবে। বঙ্গবন্ধু বলতেন ‘আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা এ পর্যন্ত শুধু আমলাই সৃষ্টি করেছে, মানুষ সৃষ্টি করেনি’। তিনি মানুষ সৃষ্টিতে মনোনিবেশ করেন। শিক্ষা-কমিশনে মেধাবীদের জন্য বিশেষ ধরনের মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা, অসচ্ছল বালক-বালিকাদের সরকারি বৃত্তি, ক্যাডেট ও রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুলে কারিগরি, সাধারণ ও বিজ্ঞান বিষয় অন্তর্ভুক্তির জন্য সুপারিশ করা হয়। বাংলাভাষাকে শিক্ষার মাধ্যম করে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত পঞ্চম শ্রেণি ও ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত অষ্টম শ্রেণির শিক্ষাকে অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক করার বিষয়ে তিনি গুরুত্বারোপ করেন। আইনের মাধ্যমে শিশুদের নাম ও জাতীয়তার অধিকারের স্বীকৃতি, সব ধরনের অবহেলা, শোষণ, নিষ্ঠুরতা, নির্যাতন, খারাপ কাজে ব্যবহারসহ সকল অপকর্ম থেকে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তাঁর আগ্রহে ১৯৭৪ সালের ২২ জুন ‘জাতীয় শিশু আইন’ জারি করা হয়। তিনি ১৯৬২ সালে আইয়ুব খান প্রণীত অধ্যাদেশ বাতিল করে ১৯৭৩ সালে উচ্চশিক্ষা প্রসারে এবং বিশ^বিদ্যালয়ের পেশাকে স্বাধীন পেশা ও বিশ^বিদ্যালয়কে মুক্তবুদ্ধির চর্চাকেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে দেশের চারটি পাবলিক বিশ^বিদ্যালয়কে স্বায়ত্বশাসন প্রদান করেন।

কিন্তু ১৯৭৫ সালে ইতিহাসের জঘন্যতম হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে নৃশংসভাবে হত্যা করায় বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার পদক্ষেপ মুখ থুবড়ে পড়ে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রাথমিক শিক্ষায় স্থবিরতা নেমে আসে। ড. কুদরত-ই-খুদা শিক্ষা-কমিশন আলোর মুখ দেখেনি। এরপর দীর্ঘ সময় প্রাথমিক শিক্ষাসহ শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে চলে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা। বস্তুত এ সময় বাস্তবসম্মত কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ে না।

১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার সরকার প্রথমবার ক্ষমতা গ্রহণের পর শিক্ষাখাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে বাজেট প্রণয়ন করে। অবহেলিত প্রাথমিক শিক্ষা যেন আবার প্রাণ ফিরে পায়। প্রাথমিক শিক্ষার মান উন্নয়নে সময়োপযোগী ও কার্যকর বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। ২০০৯ সালে দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার সরকার ‘জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০’ প্রণয়ন করে। জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০-এর আলোকে একটি আধুনিক, বিজ্ঞানমনস্ক ও প্রযুক্তিজ্ঞানসম্পন্ন জাতি গঠনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণে ‘ভিশন-২০২১’ শীর্ষক লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়। এই ‘ভিশন-২০২১’-এ ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত দেশে পরিণত করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। আর এই লক্ষ্য অর্জনের জন্য মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয়।

বর্তমানে প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহে একীভূত শিক্ষা ও প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা চালু করে সবার জন্য প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করা হয়েছে। এখন বিদ্যালয় গমনোপযোগী প্রায় সকল শিশুই বিদ্যালয়ে যাচ্ছে। ২০১১ সাল হতে প্রাথমিক শিক্ষার পরিমার্জিত শিক্ষাক্রম অনুযায়ী প্রতি বছর প্রায় দুই কোটি শিক্ষার্থীর হাতে চাররঙ, আকর্ষণীয়, সম্পূর্ণ নতুন পাঠ্যপুস্তক বিনামূল্যে শিক্ষা-বছরের প্রথম দিনই ‘বই উৎসব’ এর মাধ্যমে তুলে দেয়া হচ্ছে। বর্তমান সরকারের আমলে বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণ, পুনঃনির্মাণ, সংস্কার, নিরাপদ পানীয়জলের ব্যবস্থা, স্যানিটেশন ও ওয়াশব্লক স্থাপনসহ অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে এবং আরও নতুন নতুন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। বর্তমান সময়ে একটি গ্রামের সবচেয়ে সুন্দর ভবনটি হলো ঐ গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়টি।

শিক্ষার্থীদের মেধাযাচাই ও মূল্যায়নের জন্য ২০০৯ সাল হতে সারাদেশে অভিন্ন প্রশ্নপত্রের মাধ্যমে ‘প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী’ পরীক্ষা গ্রহণ করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশের পাশাপাশি তাদের শারীরিক ও মানসিক উৎকর্ষ সাধন ও নেতৃত্বের গুণাবলী বিকাশের জন্য বহুমুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। তাদের মধ্যে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শতভাগ উপবৃত্তি প্রদান, মিড-ডে মিল চালু, স্টুডেন্ট কাউন্সিল গঠন, কাব-স্কাউট দল গঠন, ক্ষুদে ডাক্তার দল গঠন, প্রাক্তন শিক্ষার্থী অ্যালামনাই এসোসিয়েশন গঠন, বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট, জাতীয় পর্যায়ে আন্তঃ প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অন্যতম।

২০১৪ সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের জীবনমান, প্রশাসনিক উন্নয়ন ও সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধিতে প্রধান শিক্ষক পদটিকে দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড কর্মকর্তার পদমর্যাদায় উন্নীত করে যুগের চাহিদা মিটানো হয়। সবার জন্য মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক নতুন শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তাছাড়া ২০১৬ সালে বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের মাধ্যমে ৩৪তম বিসিএস উত্তীর্ণদের মধ্য হতে ৮৯৮ জনকে প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে।

শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি ও প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোকে একাডেমিক সহায়তা প্রদানের জন্য উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা রিসোর্স সেন্টার প্রতিষ্ঠা (ইউআরসি) করা হয়েছে। সেখানে শিক্ষকদের বিভিন্ন স্বল্পমেয়াদি প্রশিক্ষণ ও বিভিন্ন বিষয়ে ওরিয়েন্টেশন প্রদান করা হচ্ছে। ইউআরসিতে বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে প্রাথমিক স্তরে বিষয়ভিত্তিক শিক্ষক তৈরি করা হচ্ছে। তাছাড়া ইউআরসিগুলো সকল শিক্ষককে যোগ্যতাভিত্তিক প্রশ্নপত্র প্রণয়ন ও মূল্যায়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ, নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের ইনডাকশন প্রশিক্ষণ, প্রধান শিক্ষকদের লিডারশীপ ও একাডেমিক সুপারভিশন প্রশিক্ষণ, প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষকদের ১৫ দিনের মৌলিক প্রশিক্ষণ এবং চাহিদাভিত্তিক বিভিন্ন প্রশিক্ষণ পরিচালনার মাধ্যমে মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

২০১৩ সাল থেকে পিটিআইগুলোতে ধাপে ধাপে এক বছর মেয়াদি সিইনএড কোর্সের পরিবর্তে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের আওতায় দেড় বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন প্রাইমারি এডুকেশন (ডিপিএড) কোর্স চালু করা হয়েছে।

আধুনিক ও মানসম্মত শিক্ষাব্যবস্থার সাথে খাপ খাওয়ানোর জন্য প্রাথমিক শিক্ষক ও শিক্ষা-সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের আইসিটি বেইজড বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে পর্যায়ক্রমে ল্যাপটপ ও মাল্টিমিডিয়া প্রদান করা হচ্ছে, পাশাপাশি ইন্টারনেট সংযোগ করে আইসিটি বেইজড শ্রেণিকক্ষ চালু করার উদ্যোগও গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষকেরা নিজেরাই ডিজিটাল কন্টেন্ট তৈরি করে শ্রেণি পাঠদান করতে পারছেন।

প্রতি বছর প্রাথমিক শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ও কর্মকর্তাসহ তেরটি ক্ষেত্রে ‘প্রাথমিক শিক্ষা পদক’ প্রদান করা হচ্ছে। শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের কাজের স্বীকৃতি প্রদানের জন্য বৈদেশিক প্রশিক্ষণ ও শিক্ষা-সফরের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। এ সবই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে সবার জন্য মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ফলে প্রাথমিকে ভর্তির হার শতভাগে উন্নীত হয়েছে। ঝরে পড়ার হারও উল্লেখযোগ্য ভাবে কমে এসেছে।

২০২০ সাল। মুজিববর্ষ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী। মুজিববর্ষকে ঘিরে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছিল। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নিরক্ষরতামুক্তসহ মোট ১৭টি কর্মপরিকল্পনা হাতে নিয়েছিল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এসব কর্মপরিকল্পনার মধ্যে ছিল ২০২০ সালের ৩১ আগস্টের মধ্যে দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বাংলা শোনা-বলা-পড়া-লেখায় শতভাগ দক্ষ করে তোলা, উপানুষ্ঠানিক ব্যুরোর মাধ্যমে দেশের ২১ লাখ নিরক্ষর মানুষকে সাক্ষরতা দান করা, ২০২০ সালের ৩১ অক্টোবর প্রাথমিক শিক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক, কর্মচারী ও কর্মকর্তার সমন্বয়ে জাতীয় পর্যায়ে ঢাকায় সমাবেশের আয়োজন করা।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বেশ কিছু কার্যক্রম জোরালোভাবে শুরুও করা হয়েছিল। এর মধ্যে অন্যতম হলো- দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীকে ২০২০ সালের ৩১ আগস্টের মধ্যে বাংলা বিষয়ে দক্ষ করে গড়ে তোলা নিশ্চিত করা। তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বাংলায় শতভাগ দক্ষতা অর্জনের প্রয়াস নেয়া হয়েছিল গুরুত্ব সহকারে। আশা করা হয়েছিল মুজিবর্ষে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সকল শিশু তার বাংলা পাঠ্যবই ও সমমানের সম্পুরক পঠনসামগ্রী সাবলীলভাবে পড়তে পারবে। এ লক্ষ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছিল। মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর বিষয়টি গুরুত্বের সাথে পরিবীক্ষণও করছিল। এর মধ্যেই আমরা বিশ^-মহামারী করোনার কবলে আক্রান্ত হই।

বর্তমানে আমরা কঠিন সময় পার করছি। করোনা ভাইরাসের কারণে সারা বিশে^ আজ মহামারি দেখা দিয়েছে। আমরা সবাই এখন আতঙ্কগ্রস্ত ও দিশেহারা। দিন দিন যেন সময় কঠিন থেকে কঠিনতর হচ্ছে। করোনাজনিত এই সংকটকালে আমরা আমাদের শিশুদের লেখাপড়ার দায়িত্বটা যথাযথভাবে পালন করতে পারছি না। বিগত ১৭ মার্চ ২০২০ খ্রি. হতে আমাদের প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো বন্ধ আছে। এ অবস্থায় বর্তমানে বিদ্যালয়সমূহ কোমলমতি শিশুদের শিখনে প্রত্যক্ষ কোনো ভূমিকা রাখতে পারছে না। ফলে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হতে চলেছে- যা কোনোভাবে কাম্য নয়। বিদ্যালয়গামী শিশুর পড়ালেখা যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে তেমনি হুমকির মুখে পড়েছে শিশুর প্রারম্ভিক শৈশবকালও। পাশাপাশি মুজিববর্ষ উপলক্ষ্যে গৃহিত বিভিন্ন কার্যক্রমও হুমকির মুখে পড়েছে। অনাকাক্সিক্ষত এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে তাই আমাদের বিকল্প পথ খুঁজতে হচ্ছে।

ইতোমধ্যে আমরা অনেকটা ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছি। প্রাথমিক শিক্ষার কৌশল নির্ধারণ, কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ, কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন, সকল পর্যায়ে যোগাযোগ রক্ষা এবং প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা প্রদানের নিমিত্ত বিভিন্ন টুলস প্রণয়ন ও অ্যাপসভিত্তিক অনলাইন কার্যক্রম চালু হয়েছে। কর্তৃপক্ষের নির্দেশনায় মাঠপর্যায়েও এ সব অনলাইন কার্যক্রম চালু রয়েছে। মাঠপর্যায়ে গুগল মিট ও জুম অ্যাপস ব্যবহার করে নিয়মিত বিদ্যালয়, ক্লাস্টার ও উপজেলাভিত্তিক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। শিক্ষকগণ অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সাথে সবসময় যোগাযোগ রক্ষা ও প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদানে সচেষ্ট। ক্লাস্টার, উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ বিভিন্ন অ্যাপসের মাধ্যমে নিয়মিতভাবে নিজেদের মধ্যে এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন।

বিদ্যালয়, স্থানীয়, উপজেলা বা জেলাভিত্তিক অনলাইন স্কুল কার্যক্রম চালু হয়েছে। সংসদ বাংলাদেশ টিভিতে কোমলমতি শিশুদের জন্য শ্রেণিকার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। বাংলাদেশ বেতারের মাধ্যমে ‘ঘরে বসে শিখি’ কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অনলাইন প্রশিক্ষণ কার্যক্রমও চলমান আছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো আবার চালু হলে আমাদের করণীয় কী- এ বিষয়ে একটি নির্দেশিকাও প্রণয়ন করা হয়েছে। আশা করা যায় অতি স্বল্প সময়ের মধ্যেই প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো খুলে দেয়া হবে। কিছুটা পিছিয়ে পড়লেও আমরা আবার আস্তে আস্তে মূলধারায় ফিরে যেতে সক্ষম হচ্ছি।

বাঙালি জাতিকে হৃদয়নিংড়ানো ভালোবাসার মাধ্যমে সবকিছু উজাড় করে দিয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এ দেশের মানুষের সাথে ছিল তাঁর অবিনশ^র আত্মার বন্ধন। ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ ইতিহাসের নৃশংসতম হত্যাকাণ্ডের পরও এ বন্ধন ছিন্ন হয়নি। ‘সোনার বাংলা’ গড়তে তিনি যে সুদূরপ্রসারী কর্মযজ্ঞের সূচনা করেছিলেন এর মাধ্যমে বাঙালির হৃদয়পটে চিরস্মরণীয় হয়ে আছেন এই মহান নেতা। বাংলার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এ দেশটি স্বাধীন না করলে আমরা প্রিয় বাংলাদেশ পেতাম না। তিনি সৌভাগ্যবান জাতিকে একটি স্বাধীন দেশ ও একটি পতাকা উপহার দিয়ে গেছেন। তাঁর জন্ম না হলে হয়তো আজও আমাদের পরাধীন হয়ে থাকতে হতো।

বঙ্গবন্ধুর ভাষণ, বক্তৃতা, চিঠিপত্র আর লিখিত বই অসমাপ্ত আত্মজীবনী ও কারাগারের রোজনামচা থেকেই প্রমান মেলে শিক্ষার প্রতি তাঁর গভীর অনুরাগের বিষয়টি। বাঙালির শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা ও ন্যায্য অধিকারের কথা তিনি যেভাবে অনুধাবন করেছেন তা বাঙালির ইতিহাসে অদ্বিতীয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রাথমিক শিক্ষাকে যুগোপযোগী করার লক্ষ্যে ১৯৭৩ সালে ৩৬ হাজার ১৬৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ এবং ১ লাখ ৫৭ হাজার ৭২৪ জন শিক্ষককে সরকারিকরণের মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষার অগ্রগতির সোপান রচনা করেন। পৃথিবীর ইতিহাসে এটি একটি বিরল ঘটনা। তারই ধারাবাহিকতায় প্রাথমিক শিক্ষাকে আরও গতিশীল করার লক্ষ্যে ২০১৩ সালে তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৬ হাজার ১৯৩টি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেন। আজকের এই প্রাথমিক শিক্ষা জাতির পিতারই শিক্ষা-ভাবনার ফসল।

২০৩০ সালের মধ্যে ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা’ অর্জনে বাংলাদেশ বদ্ধপরিকর। এর অন্যতম লক্ষ্য- শিক্ষায় ন্যায্যতা ও একীভূততা অর্জনের পাশাপাশি জীবনব্যাপী শিক্ষা নিশ্চিত করা। সে লক্ষ্যে বর্তমান সরকার দৃঢ়তার সাথে কাজ করে যাচ্ছে। বিশ^মহামারি করোনা আমাদের সাময়িকভাবে একটু বাধাগ্রস্ত করলেও আমরা আবার ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয়েছি। আর একটু দেরিতে হলেও মুজিববর্ষে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ আমরা সফলভাবে বাস্তবায়ন করবো- এই হোক আমাদের প্রত্যাশা। আমাদের দেশের পিছিয়ে পড়া, বঞ্চিত মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা-দর্শনের বিকল্প নেই। আমরা সেই পথই অনুসরণ করবো- এই মহান নেতার জন্মশতবার্ষিকীতে এই হোক আমাদের অঙ্গীকার। বঙ্গবন্ধুর শিক্ষা-ভাবনার সফল বাস্তবায়ন হলে একবিংশ শতাব্দির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে আরও এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

লেখক:
শরীফুল্লাহ মুক্তি
কলাম লেখক, শিক্ষা-গবেষক ও ইন্সট্রাক্টর,
উপজেলা রিসোর্স সেন্টার (ইউআরসি),
বারহাট্টা, নেত্রকোনা।

দেখা হয়েছে: 101
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪