fbpx

|

বাঁশের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা! আদালতে মামলা

প্রকাশিতঃ ৭:২২ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ১৫, ২০২১

বাঁশের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা! আদালতে মামলা

স্টাফ রিপোর্টার: লক্ষ্মীপুরে শত্রুতা করে কৃষক নুরুল আমিনের জমি থেকে ছোট-বড় ৫৩টি বাঁশ কেটে ফেলা হয়েছে। এসময় বাগানের গাছ থেকে প্রায় ৩০ হাজার টাকার সুপারি নিয়ে গেছে প্রতিপক্ষরা। এতে বাধা দিলে নুরুল আমিনকে মারধর ও তার স্ত্রী শামছুন্নাহারের শ্লীলতাহানি করে।

বুধবার (১৫ ডিসেম্বর) দুপুরে এ ঘটনায় নুরুল আমিন বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিসিয়ল ম্যাজিস্ট্রেট সদর আদালতে মামলা দায়ের করেন। এতে ৬ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৬ জনকে আসামি করা হয়।

আসামিরা হলেন শরীফ উল্যা ও তার ভাই রফিক উল্যা, হাফিজ উল্যা, ছেলে জাকির হোসেন, ভাতিজা রহিম উদ্দিন, সোহাগ হোসেন। তারা সদর উপজেলার হোগল ডহুরি গ্রামের বাসিন্দা।

এজাহার সূত্র জানায়, নুরুল আমিন হোগল ডুহুরি গ্রামের বাসিন্দা। একসময় প্রবাসী থাকলেও এখন তিনি কৃষিকাজ করে জীবিকানির্বাহ করেন। অভিযুক্তরা তার প্রতিবেশি। জমি নিয়ে নুরুল আমিনের সঙ্গে তাদের বিরোধ রয়েছে। এতে বিভিন্ন সময় নুরুল আমিনের জমি গাছপালা কাটাসহ জোরপূর্বক গাছ থেকে সুপারি পাড়তো।

মঙ্গলবার (১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে শরীফ উল্যার ভাতিজা রহিম উদ্দিন লোকজন নিয়ে নুরুল আমিনের জমির ৫৩টি বাঁশ কেটে ফেলে। একপর্যায়ে গাছ থেকে সুপারি পাড়া শুরু করলে নুরুল আমিন ও তার স্ত্রী শামছুন্নাহার বাধা দেয়।

এসময় অভিযুক্তরা জড়ো হয়ে নুরুল আমিনকে মারধর করে। এতে বাধা দিলে তার স্ত্রী শামছুন্নাহারকেও মারধরসহ শ্লীলতাহানি করা হয়। মারধরের সময় নুরুল আমিনের পকেট থেকে ১৫ হাজার টাকা নিয়ে যাওয়া হয়। এছাড়া বাঁশ কেটে প্রায় ২৮ হাজার টাকার ক্ষতি ও গাছ থেকে প্রায় ২৬ হাজার টাকার সুপারি নিয়ে যায় অভিযুক্তরা।

নুরুল আমিন বলেন, অভিযুক্তরা আমার জমিতে জোরপূর্বক গরুর ঘর নির্মাণ করেছে। একাধিকবার সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য বললেও তা নিচ্ছে না। এখন তারা আমার কাছে জমি পাবে বলে দাবি করছে। লোকজনবল দিয়ে তারা আমার বাগানের বাঁশঝাড়ের ৫৩টি বাঁশ কেটে ফেলেছে। আমার সুপারি গাছগুলো ফাকা করে দিয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

বাঁশ কাটার কথা স্বীকার করে সাবেক ইউপি সদস্য শরীফ উল্যা বলেন, জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। এনিয়ে ডিবি (গোয়েন্দা পুলিশ) কার্যালয়ে একটি অভিযোগ চলমান রয়েছে। বিরোধীয় জমি থেকে নুরুল আমিন বাঁশ কাটে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আমার ভাতিজারা কয়েকটি বাঁশ কেটেছে। নুরুল আমিন ও তার স্ত্রীকে মারধরের বিষয়টি মিথ্যা।

বাদীর আইনজীবী এমএ ইউছুফ বলেন, মামলাটি আদালতের বিচারক আমলে নিয়েছেন। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ঘটনাটি তদন্ত করে আদালতের প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জসিম উদ্দিন বলেন, এখনো আদেশের কপি থানায় আসেনি। আদেশের কপি পেলে সুষ্ঠুভাবে তদন্ত করে প্রতিবেদন আদালতে জমা দেওয়া হবে।

দেখা হয়েছে: 50
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪