fbpx

|

বাগমারার ঐতিহ্য বারনই ও ফকিরান্নী নদি অবশেষে খনন হতে যাচ্ছে

প্রকাশিতঃ ১০:১৮ অপরাহ্ন | নভেম্বর ০৮, ২০২২

নাজিম হাসান,রাজশাহী প্রতিনিধি:
রাজশাহী অঞ্চলের উপর দিয়ে প্রবাহিত বারনই ও ফকিরান্নী নদী খর স্রোতা নদী গুলো অতীত ঐতিহ্য হারিয়ে এখন প্রায় বিলীন হওয়ার পথে বসেছে। যেন নদী আর নদী নেই। কালক্রমে এসব নদী হারিয়েছে তাদের নাব্যতা, গতিপথ, স্রোত ও অন্যান্য বৈশিষ্ট্য। নদী এখন বেহাল অবস্থায় পরিনত হয়েছে। নদীতে আবার চলছে দখলের প্রতিযোগিতা। গড়ে উঠেছে বসতি, জনপদ ও চলছে পুকুরে খনন ও চাষাবাদ। বিশেষ করে উপজেলার হাট-বাজার এলাকা গুলোতে দখল বাজেরা নদি দখলের প্রতিযোগিতা নেমে পড়েছেন। ফলে এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের কোন প্রকার জোর পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি নদী খনন ভেস্তে যেতে বসেছিল। তবে অবশেষে এই রাণী ফকিনী নদী ও বারনই নদী পুনঃখনন কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। এলাকাবাসি সুত্রে জানাগেছে,বোরো মৌসুমের সেচ কাজের পানি সংরক্ষনের জন্য জেলার বাগমারা উপজেলার বারনই ও রাণী ফকিনী নদি একমাত্র এলাকার কৃষকের প্রান। আর এই নদির পানি বাগমার অঞ্চলের লাখ লাখ একর জমির বোরো মৌসুমের সেচের চাহিদা মেটায়। এক সময়ে এ নদীতে উত্তাল ঢেউয়ে পাল তুলে বড় বড় নৌকা চলত। এখন এ নদীর বুক জুড়ে দখল চলছে। এবং নদিতে বালির স্তর আর পলি মাটিতে জমে ভরাট হয়ে গেছে। এখন তলায় শুধু ধূ ধূ বালু পলি মাটি ভরে গেছে। বর্তমানে নদীর বিভিন্ন অংশে মাটি কেটে ভরাট করে চলছে চাষাবাদ। এছাড়া নদির জবর দখল করে বাসা বাড়ি ও বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার মাধ্যমে নদী দখলের জোর প্রতিযোগিতা চলছে। এদিকে,পুঠিয়া উপজেলার শিলমাড়িয়া ইউনিয়নের জগদেশপুর গ্রামে কেছু অংশ বারনই নদির সাথে সংযোগ থাকায় তারা সেখানে রাবার ড্রাম নির্মাণ করেছে। তাদের রাবার ড্রাম নির্মাণের কারনে নদিতে এখন সামান্য পানি থাকে। এতে শিলমাড়িয়া ইউনিয়নের কৃষকদের সুবিধা হলেও বাগমারা কৃষকদের তেমন সুবিধা হয় না। এদিকে, বিশেষজ্ঞরা বলেন, ফাঁরাক্কা বাঁধের বিরূপ প্রভাবে রাজশাহী জেলার বিভিন্ন নদির মাটির উর্বরা শক্তি কমে গেছে। এবং দেশের প্রায় ২১ শতাংশ অগভীর নলকূপ ও ৪২ শতাংশ গভীর নলকূপ ব্যবহার করা সম্ভব হচ্ছে না। গঙ্গার পানি চুক্তির পর বাংলাদেশে পানির অংশ দাঁড়িয়েছে সেকেন্ডে ২০ হাজার ঘনফুটের কম। অথচ ফারাক্কা বাঁধ চালুর আগে শুষ্ক মৌসুমেও ৭০ হাজার কিউসেকের চেয়ে বেশি পানি পেত নদি গুলো। এখন মরন ফারাক্কা বাঁধের কারণে দেশের প্রায় দুই হাজার কিলোমিটার নৌপথ বন্ধ হয়ে গেছে। এছাড়া আর্সেনিকের বিষাক্ত প্রভাবে রাজশাহীর অনেক উপজেলায় টিউবওয়েলের পানি খাবার আযোগ্য হয়ে পড়েছে। এবিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী বলছেন, আমাদের কাছে নদী খননের বরাদ্দ এসে, তাই আমরা নদীগুলো খননের কাজ শুরু করবো। অপরদিকে,অভ্যন্তরস্থ ছোট নদী খাল এবং জলাশয় পুনঃখনন (১ম পর্যায়) ২য় সংশোধিত শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় বাগমারায় ফকিরনী নদীর সাড়ে ১৬ কিলোমিটার ও বারনই নদীর ১৪ কিলোমিটার পুনঃখনন কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় উপজেলার সদর সূর্য্যপাড়ায় ফকিরনী নদীর তীরের বেইলী ব্রিজ সংলগ্ন স্থানে এক অনুষ্ঠানে নদী পুনঃখননের ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে এই কাজের উদ্বোধন করা হয়। ফকিরনী নদীর বাগমারা থানার মোড় হতে হুলিখালী ব্রিজ এবং বারানই নদীর তাহেরপুর পৌরসভা থেকে মোহনগঞ্জ সেতু পর্যন্ত প্রায় ৩০ কিলোমিটার নদীর পুনঃখনন করা হবে। এতে ব্যয় নির্ধারন করা হয়েছে ২০ কোটি টাকা। পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধানে এই খনন কাজ করা হবে বলেও জানাগেছে।

দেখা হয়েছে: 45
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!