fbpx

|

বাগমারায় নিষিদ্ধ ঘোষিত সর্বহারা-জে,এমবির ক্যাডারদের হাতে ৪০ খুন

প্রকাশিতঃ ৫:৪৯ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ১২, ২০২২

রাজশাহী প্রতিনিধি:
রক্তাক্ত জনপদ হিসেবে খ্যাত রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় নিষিদ্ধ ঘোষিত জে.এমবি’র বাংলা ভাই ও পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট পার্টি এম.এল.এ (লালপতাকা) সর্বহারা সংগঠনের ক্যাডাদের হাতে রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধি, ব্যবসায়ী পুলিশসহ প্রায় ৪০ ব্যক্তি নির্মমভাবে খুন হয়েছে। এবং নিহত ব্যাক্তিদের পরিবার গুলো আজও আতংকে দিন কাটাচ্ছে। বেশিরভাগই পায়নি সে হত্যার বিচার। সংশ্লিষ্ট ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, বাগমারা ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় সর্বহারা দলের ক্যাডাদের হাতে ১৯৯৫ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত যারা খুন হয়েছেন তারা হলেন, ১৯৯৫ সালের এপ্রিল মাসে বাগমারার যুগীপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন। ১৯৯৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে হামিরকুৎসা ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মাদ খামারুর পুত্র গোলাম মেস্তফা। ১৯৯৯ সালের জুন মাসে হামির কুৎসা গ্রামের ব্যবসায়ী রেজাউল করিম। ২০০০ সালের জানুয়ারি মাসে শুভডাঙ্গা ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম রাব্বানী। ২০০১ সালের জুলাই মাসে মোহাম্মাদ খামারুর আরেক পুত্র মমতাজ খামারু ও এপ্রিল মাসে কোনাবাড়িয়া গ্রামের মোজাফ্ফর হোসেন, নভেম্বর মাসে একই গ্রামের সৈয়দ আলী। ২০০২ সালের জানুয়ারি মাসে জাপা নেতা ও ব্যবসায়ী রামরামা গ্রামের আবুল হোসেন দুলু, মে মাসে হামিরকুৎসা গ্রামের মোনাক্কা, সেপ্টেম্বর মাসে গোয়ালকান্দির আমজাদ হোসেন। ২০০৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাহেরপুর বাজারে বি.এনপি নেতা অধ্যাপক. আ. ওয়াহেদ মন্ডল। একই বছরের জানুয়ারি মাসে কামারখালীর বাবুল মেম্বার, এপ্রিল মাসে কামারবাড়ী গ্রামের দুই ভাই এবাদুর ও সামসুল ইসলাম, জুলাই মাসে বারই হাটি গ্রামের সর্বহারা ক্যাডার আমিনুল ইসলাম বিচ্ছু, সেপ্টেম্বর মাসে মরু গ্রামের পারভেজ ও ঝিকরা ইউপি সদস্য আফসার হোসেন,নভেম্বর মাসে রাজশাহীর বোস পাড়ায় বিএনপি নেতা ঝিকরা ইউপি চেয়ারম্যান আঃ হামিদ মরু, তাহেরপুর পৌর মেয়র মুক্তি যোদ্ধা আলো খন্দকার। ২০০৪ সালে সাবেক ভূমি প্রতিমন্ত্রীর ভাতিজা নাটোরের রামসার কাজিপুর গ্রামের সাব্বির হোসেন গামা ফেব্রুয়ারি মাসে পুঠিয়ার সাধনপুর গ্রামের পাখী, মার্চ মাসে দূর্গাপুর পৌর কমিশনার আনোয়ার হোসেনন ও তাহেরপুর পুলিশ ফাঁড়ির কনস্টেবল মিজানুর রহমান। সর্বশেষ ২০০৬ সালের ডিসেম্বর মাসে গোয়ালকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম সরকার। অপরদিকে নিষিদ্ধ ঘোষিত জে,এমবি’র ক্যাডার বাংলা ভাই সিদ্দিকুর রহমানের হাতে সর্বপ্রথম খুন হয়েছেন,গোয়ালকান্দি ইউনিয়নের সেনোপাড়ায় সরগতিয়া গ্রামের কলেজছাত্র ওসমান গণি বাবু, দক্ষিণ সাজুড়িয়া গ্রামের আবু তালেব ভুট্টো, তাহেরপুরের গোলাম রাব্বানী মুকুল, মাড়িয়া গ্রামের ইয়াছিন আলীসহ অনেকে।সেই সময় তাদেরকে গাছের সাথে ঝুলিয়ে ও পিটিয়ে নির্মমভাবে খুন করা হয়। ফলে যারা খুন হয়েছেন তাদের পরিবার আজও আতংকে দিন কাটাচ্ছে। বেশিরভাগই পায়নি সে হত্যা গুলোর বিচার। তবে ২০০৮ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে অদ্যাবধি বাগমারা এলাকায় জে,এম,বি ও সর্বহারাদের হাতে আর কেহই খুন বা জখম হয়নি। কিন্তু বাগমারা উপজেলাজুড়ে রাজনৈতিক ও পারিবারিক ভাবে ২০০৮ থেকে ২০২২ পর্যন্ত খুন হয়েছে অনেকে।

দেখা হয়েছে: 48
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪