fbpx

|

ভবন সংকটে নানান সমস্যায় জর্জরিত গৌরীপুর উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন

প্রকাশিতঃ ৮:৪৫ অপরাহ্ন | মে ১৬, ২০১৮

ভবন সংকটে নানান সমস্যায় জর্জরিত গৌরীপুর উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন

আরিফ আহমেদ, গৌরীপুরঃ
ভবন সংকটে নানান সমস্যায় জর্জরিত ময়মনসিংহ গৌরীপুর উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন। বিঘ্নিত হচ্ছে দৈনন্দিন স্বাভাবিক কার্যক্রম। ইতোমধ্যেই বিএডিসি ভবন, ইউটিডিসি ভবন ও উপজেলা পরিষদ সভা কক্ষ ভবন পরিত্যক্ত ঘোষিত হয়েছে।

আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না দিলেও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় ভবনসহ আরো বেশ কিছু স্থাপনা। ঐতিহ্যবাহী এ উপজেলায় প্রথম উপজেলা পরিষদ নির্বাচন হয় ১৯৮৫ সালে। এর পূর্বে থানা হিসাবে স্বীকৃতি পায় গৌরীপুর। একমাত্র পাবলিক হলটি জড়ার্জীণ ও ভঙ্গুর হয়ে এখন আতংকে পরিণত হয়েছে।

১৯৮০ সালের ১৭ এপ্রিল তৎকালীন ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার ও বিভাগীয় উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান জানে আলম খান গৌরীপুর গণমিলনায়তন ও পাঠাগার হিসাবে উদ্বোধন করেন এ ভবনটির। দীর্ঘ ৩৭ বছরেও পাঠাগারের মুখ দেখেনি গৌরপুরের জনগণ। বরং এই অল্প সময়েই জড়াজীর্ণ ভবনে পরিণত হয়েছে স্থাপনাটি। সাম্প্রতিক সময়ে বাইরে রংয়ের আবরণে চাকচিক্য করা হলেও ভেতরের অবকাঠামো দূর্বল হওয়ায় বিভিন্ন জায়গায় পলেস্তার খসে পড়ছে। অনুষ্ঠান মঞ্চটি ধ্বসে যাওয়ায় নিচে বসেই করতে হয় সভা, সেমিনার।

ভবন সংকটে নানান সমস্যায় জর্জরিত গৌরীপুর উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন

প্রাচীনকাল থেকেই সংস্কৃতির ইতিহাসে গৌরীপুরের রয়েছে বিশেষ খ্যাতি। ঐতিহ্যবাহী এ শহরে আছে অনেক ঐতিহাসিক নিদর্শন। তেরো জন জমিদারের আবাস, বীরাঙ্গণা সখিনার সমাধী, কেল্লা তাজপুরসহ আরো অসংখ্য স্মৃতিধন্য এই রাজগৌরীপুরে এক সময়ে ছিলেন অনেক সংগীতের ওস্তাদ।

তাঁদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্য হলেন, উচ্চাঙ্গ ও সেতার বাদক ওস্তাদ বেলায়েত খাঁ, তাঁর নাতি সমীর দাস ও ওস্তাদ বিপিন দাস। এছাড়াও রাজা ব্রজেন্দ্র কিশোরের দরবারে এসে সংগীত পরিবেশন করতেন বিশ্বখ্যাত ওস্তাদ এনায়েত খাঁ। এখানে আরো এসেছেন এনায়েত খাঁর নাতি এরশাদ খা। সংগীতের এমনি তীর্থস্থানে অসংখ্য সংগীত প্রেমির বসবাস থাকবে এটাইতো স্বাভাবিক।

তবে তার চেয়েও অস্বাভাবিক হচ্ছে- ঐতিহ্যবাহী এই পৌর শহরে নেই কোন গণপাঠাগার, সংগীত একাডেমি ও নাট্যশালা।
একমাত্র পাবলিক হলটিও মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে অপেক্ষায় আছে যে কোন সময় ধ্বসে পড়ার। সাংস্কৃতিক অঙ্গনের প্রায় সকল ধরণের অনুষ্ঠান সাধারণত পাবলিক হক কেন্দ্রিক অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে গৌরীপুরে। দেয়ালে ফাটল, ভাঙ্গা চেয়ার-টেবিল, ভাঙ্গা দরজা-জানালা নিয়ে যেকোন সময় ধ্বসে পড়ে ঘটতে পারে অভাবনীয় দূর্ঘটনা। অপারগ হয়েই স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের নিয়ে জাতীয় ও স্থানীয় নানান দিবস জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই পাবলিক হলে পালন করা হয়ে থাকে। তবু ভ্রুক্ষেপ নেই কারো।

রাজনৈতিক ও প্রশাসনের বিভিন্ন অনুষ্ঠান, সভা ও প্রশিক্ষণের ভরসাও এই পাবলিক হল। বিগত কয়েক বছরে বেশ কয়েকবার সংস্কার করা হলেও তা কেবল গর্তে সাপ রেখে মুখ বন্ধ করার অবস্থা। সংস্কার করার পর ভবনটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা কিছু অসাধু কর্মচারী এনার্জী বাল্ব, ফ্যান এবং সৌন্দর্য্য বর্ধনের জন্য লাগানো জিনিসপত্র চুরি করে নিয়ে যায় বলে অনেকে অভিযোগ করেন। চুরি টেকাতে শেষে বসানো হয় সিসি ক্যামেরা। যেগুলো অকেজো হয়ে পড়ে আছে তারও নেই কোন মেরামত বা সংযোজন।

ভবন সংকটে নানান সমস্যায় জর্জরিত গৌরীপুর উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উপজেলা পরিষদে কর্মরত একাধিক কর্মকর্তা জানান, বাধ্য হয়েই সরকারি অনেক অনুষ্ঠান, সভা, সেমিনার পাবলিক হলে করতে হয়। কিন্তু সারাক্ষণেই ভয়ে ভয়ে থাকতে হয় কখন এটি ভেঙ্গে পড়ে বা দূর্ঘটনা ঘটে যায়। প্রয়োজন বিবেচনায় গৌরীপুর পাবলিক হলটি অত্যাধুনিক মানের সুযোগ-সুবিধাসহ শীঘ্রই পুণ:নির্মাণ অতীব জরুরী। এ ব্যাপারে যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন।

ভবন সংকটের কথা স্বীকার করে গৌরীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আহমেদ তায়েবুর রহমার হিরন বলেন- ১৯৮৫ সালে গৌরীপুর উপজেলা পরিষদে প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও এই ভবন গুলো কখন নির্মিত হয়েছে- এ ব্যাপারে তেমন কোন নতিপত্র পাওয়া যায়নি। ইতিমধ্যে বেশ কিছু ভবনকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। আরো কিছু ভবন আছে যেগুলো পরিত্যাক্ত না হলেও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। সংস্কার বাবদ প্রতিবছর যে বরাদ্দ আসে তা দিয়ে এগুলো মেরামত সম্ভব হয় না। শীঘ্রই নতুন ভবন নির্মাণ জরুরী।

তাছাড়া বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যায়- ১৯৮৭ সাথে গৌরীপুর উপজেলা পরিষদে এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যানের জন্য ভবন নির্মাণের একটি বাজেট এসেছিলো, কিন্তু তৎকালীন স্থানীয় রাজনৈতিক সংকটের কারণে এটি নির্মাণ সম্ভব না হওয়ায়, তা ফেরত যায়।

দীর্ঘদিন যাবত অকেজো হয়ে পড়ে আছে বিএডিসি ভবন, ইউটিডিসি ভবন, উপজেলা পরিষদ সভা কক্ষ, জোড়াবাড়ি নামে আবাসিক ভবনটি। এছাড়াও আরো ৩টি আবাসিক ভবন জড়াজীর্ণ হয়ে কোন মতে ঠিকে আছে। জানা যায়- ২০১৭ সালের শেষ দিকে পরিত্যাক্ত ঘোষিত ভবনগুলো বিক্রির জন্য দরপত্র আহবান করলে কাঙ্খিত দরদাতা না পাওয়ায় নিলামটি বাতিল হয়ে যায়। ইউটিডিসি ভবনে অবস্থিত এলজিইডি, সমবায় ও খাদ্য কর্মকর্তার কার্যালয় বর্তমানে উপজেলা ডরমেটরী ভবনে স্থানান্তর করা হয়েছে। যে কারণে ব্যাচলর কর্মকর্তা কর্মচারীদের বাইরে বেশি ভাড়া দিয়ে থাকতে হচ্ছে। সভা কক্ষটি পরিত্যাক্ত হওয়ায় অফিসার্স ক্লাবেই অনুষ্ঠিত হয় আইন-শৃঙ্খলা মিটিং, প্রশাসনের মাসিক সভা-সেমিনার।

সদ্য যোগদানকারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা করিম বলেন- ভবন সংকটের কারণে আমাদের দৈনন্দিন ধারাবাহিক কার্যক্রমে ব্যাঘাত ঘটছে। বিশেষ করে বিভিন্ন দপ্তরে বেশ কিছু প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে, সভাকক্ষ বা ট্রেনিং সেন্টার না থাকায় এ সব প্রশিক্ষণ প্রদানে আমাদের সমস্যা হচ্ছে। আশা করছি যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে শীঘ্রই প্রস্তাবনা পাঠিয়ে ভবন সংকট দূরীকরণে উদ্যোগ গ্রহণ করা যাবে।

এ ব্যাপারে গৌরীপুর থেকে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ বলেন- গৌরীপুর উপজেলা পরিষদের বেশির ভাগ ভবন পুরাতন। এগুলো মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। পরিত্যাক্ত ঘোষিত ভবন গুলো নতুন করে নির্মাণের জন্য এর আগে একবার প্রস্তার পাঠানো হয়েছিল, কিন্তু বর্তমানে তা কোন অবস্থায় আছে পূর্বের নির্বাহী অফিসার আমাকে তা অবহিত করেননি।

উল্লেখিত ভবনগুলো নতুন ভাবে নির্মাণের জন্য সরকারের কাছে আমি জোড় দাবী জানাচ্ছি। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করে আমি খোঁজ-খবর নেব।

দেখা হয়েছে: 643
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
আলী আরিফ সরকার রিজু
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪