|

ভূয়া পদ ব্যবহার করে প্রচারণায় এমপি প্রার্থী কবির

প্রকাশিতঃ ১:১৯ পূর্বাহ্ন | অক্টোবর ২৪, ২০২৩

ভূয়া পদ ব্যবহার করে প্রচারণায় এমপি প্রার্থী কবির

মুক্তাগাছা ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলা বরাবরই আলোচনা সমালোচনার মুখে মুখে থাকে। কখনও গোপাল পালের মন্ডা’র প্রশংসা শুনি, আবার কখনও কখনও মধুপুর সীমান্ত এলাকায় ডলারের লোভে সর্বস্ব হারিয়ে চোখের পানি নিয়ে ফিরে যায় অনেকেই।

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘনিয়ে এসেছে। আওয়ামীলীগের একাধিক প্রার্থী মাঠে কাজ করে যাচ্ছে,রয়েছে জাতীয় পার্টি সহ একাধিক এমপি প্রার্থী। হঠাৎ করেই মুক্তাগাছা রাজনীতির মাঠে কেন্দ্রীয় আওয়ামী যুবলীগের সদস্য পরিচয় দেওয়া কবির মো: শহিদুল ইসলাম এমপি প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা দিয়েছেন।কিন্তু দুঃখের বিষয় কেন্দ্রীয় যুবলীগের পদের কতটুকু সত্যতা রয়েছে তা সাধারণ জনগণের প্রশ্ন!!!

অপরদিকে জেলা আওয়ামীলীগের প্যাডে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এহতেশামুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক এড.মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল সাক্ষরিত কাগজ ঘুরে বেড়াচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ ফেইসবুকে। যেখানে কবির মোঃ শহিদুল ইসলাম নামের পাশে সাংগঠনিক সম্পাদক লেখা!!! কিন্তু ইতিপূর্বেই উপজেলা আওয়ামী লীগের পূর্নাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দিয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ।

জানা যায়,কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র ৩৯ অনুযায়ী উপজেলা /থানা আওয়ামী লীগ কাউন্সিল এ ২১ অনুচ্ছেদে বলা আছে সাংগঠনিক সম্পাদক তিন জন।

উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে পর্যায়ক্রমে মোঃ শাহজাহান করিব, মোঃ আকতারুজ্জামান বাবুল ও মোঃ মনিরুজ্জামান মনির চেয়ারম্যান এর নাম রয়েছে। তাহলে কবির মোঃ শহিদুল ইসলাম কিভাবে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হলেন, প্রশ্ন সাধারণ জনগণ ও আওয়ামী লীগের তৃনমুল নেতাকর্মীদের!!! প্রবীন আওয়ামী লীগের একাধিক নেতাকর্মী বলছেন, উনি সম্পূর্ণ ভূয়া নেতা এবং যে কাগজটা প্রকাশ করছেন সেটাও ভূয়া।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মোঃ বিল্লাল হোসেন সরকারকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, মুক্তাগাছা উপজেলায় আমাদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি রয়েছে। সে কিভাবে পদ পেয়েছে আমার জানা নেই। জেলা কমিটি থেকে আমাদেরকে কিছুই বলা হয় নি।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ এমপি সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, এটা কে কোত্থেকে থেকে দিছে, আমরা গঠনতান্ত্রিক ভাবে গ্রহন করতে পারি না, গঠনতন্ত্রের বাহিরে তো আর যাওয়া যাবে না।

এ ব্যাপারে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এড.মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুলকে সেলফোনে না পাওয়া গেলেও সভাপতি মো: এহতেশামুল আলম বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না, তবে কেউ যদি ভূয়া তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে থাকে তাহলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে কবির মোঃ শহিদুল ইসলামকে মোবাইল  ও হোয়াটস অ্যাপে একাধিকবার চেষ্টা করেও পাওয়া যায় নি।

দেখা হয়েছে: 223
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ উবায়দুল্লাহ
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪