|

ভূল ওষুধ বিক্রির দায় এড়াতে ওসির বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ৯:১৬ অপরাহ্ন | অক্টোবর ৩০, ২০২০

ভূল ওষুধ বিক্রির দায় এড়াতে ওসির বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীর অভিযোগ

ময়মনসিংহ ব্যুরো: ত্রিশালের ফরহাদ মেডিসিন কর্ণার নামে একটি ফার্মেসি থেকে দেয়া ভুল ওষুধ খেয়ে গুরুতর অসূস্থ্য হয়ে পড়েন ত্রিশাল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম। ব্লাড সুগার নেমে যায় তিন এর নীচে। প্রেসার কমে যায়। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচেন তিনি। গত ২১ অক্টোবর এই ঘটনা ঘটে।

এবিষয়ে থানায় ডেকে ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞাসাবাদ করায় ওসির উপর ক্ষিপ্ত হন ওই ফার্মেসির মালিক আব্দুল কাদির মীর। তার এক ছেলে পুলিশের এসআই ও মেয়ের জামাইয়ের আত্মীয় বড় পুলিশ কর্মকর্তা। ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতেই ওই ব্যবসায়ী উল্টো ওসির বিরুদ্ধে নির্যাতনের অভিযোগ করেন পুৃলিশ সদর দপ্তরে।

জানা যায়, গত ২১অক্টোবর ফরহাদ মেডিসিন কর্ণার থেকে ত্রিশাল থানার ওসি তার লোক জারডিমেট ৫/৫০০ পাওয়ারের ২৫টি ট্যাবলেট কিনে আনেন। এর মধ্যে ৫টি ট্যাবলেট কাটা ছিলো। ২৫টির মধ্যে দুই পাতার ২০টি ট্যাবলেটের পাওয়ার সঠিক থাকলেও কাটা পাতার ৫টি ট্যাবলেট অন্য গ্রুপের গ্লিপিটা এম ৫০/৫০০। ওষুধ কিনে এনে না দেখে কাটা পাতার একটি ট্যাবলেট খেয়ে তার ব্লাড সুগার তিনের নীচে নেমে যায়। প্রেসার কমে যায়। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তার স্ত্রীর কাছে ধরা পড়ে ভুল ওষুধ খাওয়ার বিষয়টি। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে অল্পের জন্য প্রাণে বাঁচেন তিনি।

ত্রিশাল থানার ওসি মাহমুদুল ইসলাম জানান, বিষয়টি সম্পর্কে জানার জন্য ওই ব্যবসায়ীকে ডেকে এনে চাহিদার ওষুধের প্যাকেটে ভুল ওষুধ দেয়ার কারন জানতে চাইলে তারা বিষয়টি স্বীকার করে ক্ষমা চান। এর জন্য কোনো সমস্যা হলে আইনগত ব্যবস্খা নেয়া হবে বলে তাদের চলে যেতে বলা হয়। তাদের নির্যাতনের কোনো ঘটনা ঘটেনি। তাদের ভূলটা ঢাকতে এবং ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হচ্ছে। আমি তো মারাও যেতে পারতাম ভূল ওষুধ খেয়ে।

এদিকে বিষয়টি নিয়ে ওসির স্খানীয় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার বা রেঞ্জ ডিআইজির কাছে অভিযোগ না করে ওষুধ ব্যবসায়ী পুলিশ মহাপরিদর্শকের কাছে পুলিশ সদর দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন গত ২৭ অক্টোবর।

অভিযোগকারী আব্দুল কাদির মীর সাংবাদিকদের জানান, স্থানীয় কর্মকর্তাদের কাছে অভিযোগ দিলে বিচার পাওয়া যাবে না এবং পুলিশ সদর দপ্তরে তার মেয়ের জামাইয়ে আত্মীয় বড় কর্মকর্তা আছেন সে জন্য আইজির কাছে অভিযোগ করা হয়েছে। তিনি বলেন, ওসির সাথে আমাদের শত্রুতা নেই। ইচ্ছা করে ভূল ওষুধ দেয়া হয়নি। থানায় নিয়ে গালিগালাজ করা হয়েছে। কোনো শারীরিক নির্যাতন করা হয়নি । আমার ছেলের কাছে এস আই রফিক টাকা দাবী করলেও আমরা টাকা দেইনি।

দেখা হয়েছে: 73
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪