|

মহানায়ক রহমান-এর ১৪ তম মৃত্যু বার্ষিকী

প্রকাশিতঃ ৭:৫৩ অপরাহ্ন | জুলাই ১৯, ২০১৯

মহানায়ক রহমান-এর ১৪ তম মৃত্যু বার্ষিকী

মোঃ ইউসুফ আলী, আটোয়ারী(পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ ষাট এর দশকের বাংলা চলচ্চিত্রে এদেশের কিংবদন্তি মহানায়ক রহমানের ১৪ তম মৃত্যু বার্ষিকী বিভিন্ন কর্মসুচির মাধ্যমে পালিত হয়েছে। কর্মসুচির মধ্যে পারিবারিক গোরস্থানে কবর জিয়ারত, দোয়া, আলোচনা সভা ও মহানায়ক রহমানের চলচ্চিত্র ‘জোয়ারভাটা’ প্রদর্শণ ছিল অন্যতম।

পঞ্চগড়ের আটোয়ারী ও ঠাকুরগাঁও ‘ মহানায়ক রহমান স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ’ এর আয়োজনে এবং কর্ণেট সাংস্কৃতিক সংসদ ঠাকুরগাঁওয়ের সহযোগিতায় ১৮ জুলাই বৃহস্পতিবার দিবসটি পালন করা হয়। কর্মসুচির শুরুতে মহানায়ক রহমানের গ্রামের বাড়ি আটোয়ারী উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের রসেয়া গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে কবর জিয়ারত করা হয়।

পরে বিকেলে ঠাকুরগাঁও পৌর মিলনায়তনে তাঁর স্মৃতিচারণমুলক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন মহানায়ক রহমান স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ ঠাকুরগাঁওয়ের সভাপতি ও কর্ণেট সাংস্কৃতিক সংসদের সাধারন সম্পাদক সাইফুল ইসলাম প্রবাল চৌধুরী।

স্মৃতিচারণমুলক আলোচনায় বক্তব্য রাখেন কর্ণেট সাংস্কৃতিক সংসদের সভাপতি সৈয়দ নূর হোসেন বাবলু, সহ-সভাপতি ও হরিপুর উপজেলার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শামীম ফেরদৌস টগর, নায়ক রহমান স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ আটোয়ারীর সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মোঃ নজরুল ইসলাম নেচী, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা তৌহিদুল আলম চৌধুরী, আব্দুল্লাহেল বাকী, ঠাকুরগাওয়ের উদীচি শিল্প গোষ্ঠীর সাধারন সম্পাদক রিজু আহম্মেদ, কর্নেট সাংস্কৃতিক সংসদের উপদেষ্টা মামুনুর রশীদ, সাবেক সহ-সভাপতি সাজেদুর রহমান সাজু, এ্যাড. জাহিদ ইকবাল প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, নায়ক রহমান ১৯৩৭ সালে পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার রসেয়া গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন। তিনি রসেয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি পাস করে ঠাকুরগাও হাই স্কুলে ভর্তি হন। ঠাকুরগাও থেকে মেট্রিক পাস করে দিনাজপুর সুরেন্দ্র নাথ কলেজে ভর্তি হন। পরে তিনি পাবনা এডওয়ার্ড কলেজে ভর্তি হন। তাঁর বাবার নাম হাফেজ উদ্দীন আহাম্মদ।

১৯৫৯ সালে তিনি প্রথম অভিনয় জগতে প্রবেশ করেন। তাঁর প্রথম সিনেমা ‘এ দেশ তোমার আমার’। ঢাকার চিত্র জগতের যাত্রালগ্নেই এই বরেণ্য চিত্র নায়ক রহমান দর্শকের হৃদয় জয় করে নেন। তাঁর পুরো নাম আব্দুর রহমান। পরবর্তীকালে নবাগত এই রহমান নায়ক হয়ে উঠেন ঢাকার উত্তম কুমার।

তাঁর অন্যান্য ছবিগুলো হলো ‘ রাজধানীর বুকে’ ‘চান্দা’ ‘তালাশ’ ‘দর্শণ’ ‘হারানো দিন’ ‘জোয়ার ভাটা’ ‘চলো মান গায়ে’ ‘প্রীতি না জানে রীত’ ‘মিলন’ ‘বাহানা’ ‘ইন্দন’ ‘কঙ্কন’ সহ মোট ২২টি । ১৯৬৩ সালে ছবি স্যুটিং করতে গিয়ে সিলেটে এক দুর্ঘটনায় তাঁর একটি পা হারিয়ে ফেলেন। অবশেষে এই প্রথিতযশা মহানায়ক হাজার হাজার ভক্তকে কাঁদিয়ে ২০০৫ সালের ১৮ জুলাই না ফেরার দেশে চলে যান।

বক্তারা বলেন, নায়ক রহমান নি:সন্দেহে একজন প্রতিভাবান চিত্রশিল্পী এবং পরিচালক ছিলেন। কিন্তু সরকার বা চলচ্চিত্র কর্তৃপক্ষ কোনদিন তাঁর নামটাও মুখে নিচ্ছেনা কেন জানি না। বক্তারা কিংবদন্তি মহানায়ক রহমানের মৃত্যু বার্ষিকী জাতীয়ভাবে পালনের দাবী জানান। সকল কর্মসুচিতে মহানায়ক রহমানের পরিবারের সদস্য, আটোয়ারী ও ঠাকুরগাঁওয়ের ‘ মহা নায়ক রহমান স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ’ এবং কর্ণেট সাংস্কৃতিক সংসদের সদস্যবৃন্দ সহ উৎসুক জনতা উপস্থিত ছিলেন।

দেখা হয়েছে: 219
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!