fbpx

|

মুক্তাগাছায় চিকিৎসা সেবায় ডাক্তার মোহসিনের রাম রাজত্ব

প্রকাশিতঃ ১১:২১ অপরাহ্ন | নভেম্বর ১০, ২০২২

মুক্তাগাছায় চিকিৎসা সেবায় ডাক্তার মোহসিনের রাম রাজত্ব

মুক্তাগাছা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একাই রাম রাজত্ব চালিয়ে যাচ্ছেন ডাক্তার মো.মোহসিন উদ্দিন।

হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীদের সেবা প্রদানে অনিহা,রোগীদের সাথে অশোভন আচরণ করা,সরকারি হাসপাতালে ভালো চিকিৎসা হয়না মর্মে রোগীদের নিজের চেম্বারে আসতে বলা,নিজের পছন্দের ক্লিনিকগুলোতে রোগী পাঠানো সহ বিভিন্ন সময় নানা অজুহাতে ক্লিনিক মালিকদের হয়রানি করেন তিনি।

এমনটিই অভিযোগ করেছেন স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ,ক্লিনিক মালিক ও হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা নিতে আসা সেবা প্রত্যাশীরাসহ সমাজের গুরত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গদের অনেকেই। নানা কারণে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সাথে তার একটা সক্ষতা গড়ে উঠেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। যার ফলে তার ইশারাতেই চলছে মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা সেবা।

জানা য়ায়,ডাক্তার মহসিন ও তার স্ত্রী ডক্তার তানিয়া আফরিন দুইজনই মুক্তাগাছা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেডিকেল অফিসার হিসাবে কর্মরত রয়েছেন। ডাক্তার মহসিন মেডিসিন বিভাগে এবং তার স্ত্রী গাইনী বিভাগের ডাক্তার। চাকুরীর পশাপাশি নিয়মিত রোগী দেখতে উপজেলার মহারাজা রোডে মুক্তাগাছা ডক্টরস কোয়ার নামে নিজস্ব চেম্বার খুলেছেন তারা। হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের যেমন তেমন সেবা প্রদান করে তাদের সাথে অশোভন আচরণ করা তার দৈনন্দিন রুটিন হয়ে দাড়িয়েছে। হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা সেবায় অনিহা এবং চিকিৎসা সেবার নামে স্বামী-স্ত্রী মিলে পৌর শহরে নিজেদের চেম্বার খুলে গড়ে তুলেছেন চিকিৎসা বাণিজ্য এমনটিই অভিযোগ করেছেন উপজেলার স্থানীয় বাসিন্দা পৌরশহরের আরজু,কুমারগাতার নিলুফা আক্তার,ঘোগা ইউনিয়নের মুন্নি আক্তার,খেরুয়াজানীর রোজিনা আক্তার।

এছাড়ও ক্লিনিক মালিকদের দু”একজনের যোগসাজসে অন্য ক্লিনিক মালিকদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করা,পরিক্ষা-নিরীক্ষার জন্য পছন্দের ক্লিনিকগুলোতে রোগী পাঠানো ছাড়াও তথ্য সংগ্রহের জন্য সাংবাদিকরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে তাদের সাথে অস্বাদাচরণ করেন তিনি। তার অশোভন আচরণ থেকে রেহাই পাননি এলাকার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ,ব্যবসায়ী ও শিক্ষক মহল।

ক্ষোভ প্রকাশ করে স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের শিক্ষক বলেন,আমার স্ত্রীকে নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার মহসিনের কাছে গেলে তিনি আমার স্ত্রীর সাথে অনেক খারাপ আচরণ করেন। তিনারা ডাক্তার হয়েছেন বলে রোগীদেরকে মানুষাই মনে করেন না। আমাদের সাথেই যদি তাদের এমন আচরণ হয়,তাহলে সাধারণ রোগীদের সাথে কেমন আচরণ করেন একটু ভেবে দেখুন।

ভূক্তভোগী নিলুফা আক্তার বলেন,শারীরিক দুর্বলতা ও মাথা ব্যাথার চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে টিকিট কেটে মোহসিন (স্যারের) কাছে গেলে তিনি বলেন,সরকারি হাসপাতালে কি এর চেয়ে ভালো চিকিৎসা হয়? আমার চেম্বারে আসেন ভালো করেস দেখবো।
ডাক্তার মোহসিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে মুন্নী আক্তার বলেন,ওনার কাছে যাওয়া মাত্র অনেক ঝাড়িটারি মেরে বলেন,এখানে চিকিৎসা এমনিই হবে,ভালো চিকিৎসা নিতে হলে বিকালে আমার চেম্বারে আসেন।

এ বিষয়ে ক্লিনিক মালিকদের সাথে কথা বলা হলে অধিকাংশ ক্লিনিক মালিক ক্ষোভে ও ভয়ে বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্যখাত তার ইশারায় চলে এ কথা ঠিক কিন্তু এ বিষয়ে মুখ খুললে বা কথা বললে পরের দিনই আমাদের ক্লিনিক নানা অজুহাতে জরিমানা বা সিলগালা করা হবে।

একটি দৈনিক প্রত্রিকার মুক্তাগাছা উপজেলা প্রতিনিধি মো.সুজন বলেন,তথ্য সংগ্রহ করতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলেই তিনি রাগানিত্ব হয়ে বলেন হাসপাতালে কেনো এসেছেন? কি জন্য এসেছেন? হাসপাতালে সাংবাদিকতা না করে বাহিরে গিয়ে করেন। আর কোন বিষয়ে তথ্য জানতে চাইলে তিনি রেগেমেগে বলেন আপনাদের কাছে তথ্য দিতে আমি বাধ্য নই।

স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন,বিভিন্ন সময় ডাক্তার মোহসিনের বিরুদ্ধে সেবা প্রতাশীদের অনেকেই অনেক অভিযোগ করছেন। কয়টার কথা বলব। তিনি প্রতিনিয়ত সাধারণ রোগীদের সাথে অস্বাদাচরণ করছেন এবং হাসপাতালে রোগীদের সঠিক চিকিৎসা না দিয়ে,তাদেরকে নিজের চেম্বারে ডেকে নিচ্ছেন যা উদ্বেগের বিষয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তিনি একাই রাম রাজত্ব চালিয়ে যাচ্ছেন।আমাদের উপজেলায় স্বাস্থ্য সেবার মান আগের চেয়ে অনেক উন্নতি সাধন হয়েছে এটা অস্বীকার করা যাবে না। আমাদের সাংস্কৃতিক প্রতিমন্ত্রী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা সেবার মান আরও উন্নত করতে দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন কিন্তু হাসপাতালের কিছু ডাক্তার, ক্লিনিক মালিকদের সাথে হাত মিলিয়ে চিকিৎসা খাতকে নষ্ট করার চেষ্টা করছে। এখনই তার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। নয়তো হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা মুখ থুবড়ে পড়বে।

এ প্রসঙ্গে জানতে ডাক্তার মোহসিন উদ্দিনের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান,বক্তব্য নিতে হলে সরাসরি হাসপাতালে এসে বক্তব্য নিয়ে যান।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জান্নাতুল ফেরদৌস জানান,বিষয়টি আপনার কাছেই প্রথম শুনছি। হাসপাতালের কারো বিরুদ্ধে কেউ এধরনের লিখিত অভিযোগ দিলে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

দেখা হয়েছে: 50
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!