|

মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি ভাংচুর ও গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ১০:৪১ অপরাহ্ন | মার্চ ২৫, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ ঐতিহাসিক ২৫শে মার্চ। মহান মুক্তিযুদ্ধের শোকস্মৃতিবাহী গণহত্যা আর নিষ্ঠুর ধ্বংসযজ্ঞের ‘কালরাত’। জাতীয় ‘গণহত্যা দিবস’। জাতি গভীর বেদনায় প্রতিবছর স্মরণ করে ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর কাপুরুষোচিত হামলার শিকার নিরীহ শহীদ আর প্রতিরোধসংগ্রামে আত্মদানকারী বীর যোদ্ধাদের।

পাকিস্তানি বাহিনীর যে নির্মমতার শিকার হয়েছিল বাংলার মানুষ, এক মিনিটের জন্য বাতি নিভিয়ে সেই কালরাত স্মরণ করবে বাংলাদেশ।

আজ শুক্রবার রাত ৯টা থেকে ৯টা ১ মিনিট পর্যন্ত সারা দেশে প্রতীকী ‘ব্ল্যাকআউট’ পালন করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর বাণীতে বলেন, ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তান হানাদার বাহিনী বাংলাদেশে বিশ্বের বর্বরতম হত্যাযজ্ঞ পরিচালনা করে। এই দিনে আত্মোৎসর্গকারীদের রক্ত বাঙালিদের অস্ত্র ধারণ করে স্বাধীনতা অর্জন না করা পর্যন্ত যুদ্ধ চালিয়ে যেতে অনুপ্রাণিত করেছিল।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ দুপুরের পর থেকেই ঢাকাসহ সারা দেশে থমথমে অবস্থা বিরাজ করতে থাকে। রাতে সেনা অভিযানের শুরুতেই হানাদার বাহিনী বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে তাঁর ধানমন্ডির বাসভবন থেকে গ্রেপ্তার করে। এদিন মধ্যরাতে ট্যাংক নিয়ে ঢাকার পিলখানা, রাজারবাগ, নীলক্ষেত আক্রমণ করে পাকিস্তানি সেনারা। পাকিস্তানি হায়েনাদের কাছ থেকে রক্ষা পাননি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের নয়জন শিক্ষককে সেদিন নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়। জগন্নাথ হলে চলে নৃশংসতম হত্যাকাণ্ড।

আজ সেই ২৫ মার্চ যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশ ও জনগনকে রক্ষাকারী বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি দখল করে নিতে মরিয়া হয়ে উঠছে। বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ রাজ্জাক মাষ্টার ৯৯৯ ফোন দিয়েও সাড়া পাইনি।

বরিশালের ঝালকাঠি জেলার নলছিটি উপজেলা সুবিদপুর ইউনিয়নে বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ রাজ্জাক মাষ্টারের বাড়ি জোরপূর্বক দখল করার জন্য বসতবাড়ি ভাংচুর ও গাছ কেটে ফেলার অভিযোগ পাওয়া যায়।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, আজ দুপুর আনুমানিক ১২ ঘটিকা সময় বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ রাজ্জাক মাষ্টার এর বাড়িতে অনুপ্রবেশ করিয়া তার বাড়ি ভাংচুর ও গাছ কেটে ফেলেন।

একই গ্রামের বাসিন্দা আল আমিন মোল্লা,শহিদ মোল্লা ও তার পিতা খালেক মোল্লা সহ ১০/১২ জন মিলে। এসময় ঘটনা স্থান উপস্থিত থাকা বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ রাজ্জাক মাষ্টার প্রতিবাদ করতে গেলে তাদের উপর ধারালো অস্ত্রে উঠিয়ে মারধর করাসহ বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রধান করেন আল আমিন।

ভুক্তভোগী পরিবার ৯৯৯ ফোন দিলে ঘটনা স্থানে পুলিশ প্রশাসন গেলে, আল আমিন, শহিদ, ও তার পিতা খালেক মোল্লা ঘটনা স্থান ত্যাগ করে, কিন্তু পুলিশ সদস্যরা ঘটনা স্থান থেকে চলে গেলে, পরবর্তীতে আবার চলে আসেন।

সুবিদপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল গফফার খান বলেন, বিষয়টি আমাকে একজন লোক বলছে আমি ব্যস্ততার জন্য যেতে পারি নাই, তবে আমি ঘটনা স্থানের খোঁজা খবর নিয়ে শুনছি যে খালেক মোল্লা ও তার দুই ছেলে, বৌ মিলে ঘটনাটি ঘটিয়েছে।

এবিষয়ে নলছিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমাদের কাছে কোনো লিখিত অভিযোগ দেয়নি, কিন্তু ৯৯৯ফোন দিছিলো আমি ঘটনা স্থানে পুলিশ সদস্যদের পাঠানো হয়েছে, কেউ যদি লিখিত অভিযোগ দেয় আমরা তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দেখা হয়েছে: 209
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ উবায়দুল্লাহ
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪