|

করোনা আপডেট
মোট আক্রান্ত

৩৫৩,৮৪৪

সুস্থ

২৬২,৯৫৩

মৃত্যু

৫,০৪৪

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • ঢাকা ৯৫,৬৮২
  • চট্টগ্রাম ১৮,৩১৫
  • বগুড়া ৭,৩৭৮
  • কুমিল্লা ৭,৩১৩
  • ফরিদপুর ৭,০০৪
  • নারায়ণগঞ্জ ৬,৬৫৭
  • সিলেট ৬,৬৪৮
  • খুলনা ৬,২৬২
  • গাজীপুর ৫,৩৫৬
  • নোয়াখালী ৪,৮৯৪
  • কক্সবাজার ৪,৫৫১
  • যশোর ৩,৭৭১
  • ময়মনসিংহ ৩,৬০৬
  • মুন্সিগঞ্জ ৩,৪৩০
  • বরিশাল ৩,৩৯৪
  • দিনাজপুর ৩,২৯৯
  • কুষ্টিয়া ৩,১৭৭
  • টাঙ্গাইল ৩,০১৭
  • রাজবাড়ী ২,৯৯৮
  • রংপুর ২,৭২১
  • কিশোরগঞ্জ ২,৭১৫
  • গোপালগঞ্জ ২,৫২৮
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২,৪২৩
  • সুনামগঞ্জ ২,২৯৯
  • নরসিংদী ২,২৫৮
  • চাঁদপুর ২,২৪৮
  • সিরাজগঞ্জ ২,১১২
  • লক্ষ্মীপুর ২,০৯৯
  • ঝিনাইদহ ১,৮৬৯
  • ফেনী ১,৮১২
  • হবিগঞ্জ ১,৭১৭
  • মৌলভীবাজার ১,৬৬৮
  • শরীয়তপুর ১,৬৫২
  • মানিকগঞ্জ ১,৫০০
  • জামালপুর ১,৪৮৭
  • মাদারীপুর ১,৪৪৪
  • চুয়াডাঙ্গা ১,৩৯৫
  • পটুয়াখালী ১,৩৮৩
  • নড়াইল ১,২৯৯
  • নওগাঁ ১,২৮৬
  • গাইবান্ধা ১,১২৭
  • পাবনা ১,১০১
  • সাতক্ষীরা ১,০৯১
  • রাজশাহী ১,০৮৫
  • ঠাকুরগাঁও ১,০৬৪
  • জয়পুরহাট ১,০৫৮
  • পিরোজপুর ১,০৫৫
  • নীলফামারী ১,০১৫
  • বাগেরহাট ৯৭৭
  • নাটোর ৯৪৮
  • বরগুনা ৮৯৯
  • মাগুরা ৮৮৭
  • রাঙ্গামাটি ৮৮৫
  • কুড়িগ্রাম ৮৬৪
  • লালমনিরহাট ৮৩৯
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ৭৬৩
  • বান্দরবান ৭৫৪
  • ভোলা ৭১০
  • নেত্রকোণা ৭০৯
  • ঝালকাঠি ৬৮৮
  • খাগড়াছড়ি ৬৬৭
  • মেহেরপুর ৫৯৩
  • পঞ্চগড় ৫৯১
  • শেরপুর ৪৬১
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
মুক্তির মরীচিকা ধারাবাহিক উপন্যাস: আরিফ আহমেদ (পর্ব ১৭)

প্রকাশিতঃ ১:৩৫ পূর্বাহ্ন | জুন ০১, ২০১৮

আরিফ আহমেদ

মনটা তো থাকবে। শোয়ার আয়োজন করছে অরোরা।
মিতুল জানতে চাইলো, কি গল্প শোনবে?
তোমার যা খুশি।
আমার জীবনের গল্প বলি।
সত্যি বলবে!
তারপর আমাকে ঘৃণা করবে না তো ?
এটা তুমি ভাবতে পারলে ?

কনুইয়ের উপর ভর দিয়ে শুইলো মিতুল। অরোরা তার বুকের কাছে। বৃদ্ধ দাদুর কাছে যেমন গল্প শোনে শিশু নাতনী।
অরোরার রেশমী চুলে হাত বুলাতে বুলাতে গল্প শুরু করলো মিতুল,

আমি মা-বাবার একমাত্র সন্তান। বাসা ঢাকার ধানমন্ডি। বাবা শিল্পপতি, মা লন্ডনে পাশ করা ব্যারিস্টার। যখন থেকে বুঝতে শিখলাম, দেখছি মা-বাবা দু’জনেই ভীষণ ব্যস্ত। নার্স ও আয়ার কাছে বড় হয়েছি আমি। কিশোর বয়সে অনুভব করলাম আমি ভীষণ একা, নিঃসঙ্গ। মা মাঝে মাঝে চুমু খায়, বাবা মাথায় হাত বুলিয়ে দেয়। এইটুকুই পিতৃ-মাতৃ স্নেহ। দিনের পর দিন চলে যায়, মা-বাবার দেখা পাই না। সকালে যখন স্কুলে যাই তখন তারা ঘুমে। রাতে যখন বাসায় ফিরেন তখন আমি নিদ্রায়। বেশির ভাগ সময়েই শুনি বাবা দেশের বাইরে আছেন।

বেশির ভাগ ছেলেমেয়েকে তাদের মা নিয়ে আসতো স্কুলে, অনেকের বাবাও আসতো। টিফিনে তাদের যত্ন করে খাইয়ে দিতো মা কিংবা বাবা। ছুটির পর দৌড়ে মাকে জড়িয়ে ধরতো। যখন কোনো মা তার সন্তানকে কোলে তুলে চুমু খেতো, তৃষ্ণায় বুকটা ভরে উঠতো আমার। ঐ ছেলে অথবা মেয়েটাকে পৃথিবীর সবচেয়ে মনে হতো সুখি। নিজেকে হতভাগ্য বলেই ভাবতে শিখেছি ছোট থেকে।

গাড়ীতে চড়ে স্কুলে আসা যাওয়া করতাম। ড্রাইভারটা ছিলো বয়স্ক খিটখিটে মেজাজের। একটু এদিক ওদিক হলেই ধমক। আমার জন্য বক্সে যে টিফিন দেওয়া হতো তা বেশির ভাগ সময় সেই খেতো। ছুটির পর গাড়ীতে বসতেই সে আমার টিফিন বক্স চেক করতো। বক্সটা খালি থাকলে কটমট চোখে তাকাত আমার দিকে আর পূর্ণ থাকলে এক গাল হেসে খেয়ে নিতো খাবার। একটা শিশু না খেয়ে আছে এ নিয়ে তার কোন ভাবনা নেই। শুকনো মুখে বাসায় ফিরলে নার্স ট্যাবলেট খাইয়ে বলতো, ঘুমাও।

ছুটির দিনগুলোতেও বাসায় বসে টিভি দেখা আর কম্পিউটারে গেমস্ খেলা ছাড়া কিছু করার ছিলো না আমার। স্বর্ণলতা যেমন অন্য গাছের উপর ভর করে বৃদ্ধি পেতে থাকে, নিজ বাড়িতে তেমনি পরগাছা হয়ে বড় হলাম আমি।

কলেজে ভর্তি হওয়ার পর নিজেই গাড়ী ড্রাইভ করতে শিখলাম। আস্তে আস্তে বন্ধু-বান্ধব জুটতে লাগলো অনেক। ভার্সিটিতে পা রেখেই দ্রুত বদলে গেলো সব। প্রচুর বন্ধু-বান্ধব, ধুমসে আড্ডা। যে দিকে খুশি বন্ধুদের নিয়ে চলে যাওয়া। রঙ্গিন জগতে পা দিলাম। নাইট ক্লাবে গিয়ে শিখলাম মদ খেতে। অর্থের অভাব ছিল না। জোয়ার বোর্ডটাও একসময় প্রিয় হয়ে গেলো আমার। রাতের পর রাত কটিয়ে দিতাম সেখানে।

অরোরা জানতে চাইলো, তোমার বাবা-মা খোঁজত না?
সে ভাগ্য হলে তো এই অধঃপতন হতো না আমার। তারা খেয়াল রাখতো যাতে টাকার অভাব না হয়। এতো খরচের পরও আমার একাউন্ট কখনো খালি হয়নি। হয়তো তারা ভাবতো জীবনে শুধু টাকাই প্রয়োজন। আর যেহেতু তা প্রচুর আছে আমার, সুতরাং ভালই আছি।

সে টাকাই ডেকে আনলো আমার সর্বনাশ।
একরাতে মাতাল অবস্থায় জোয়ার টেবিলে অনেক টাকা হারলাম। হঠাৎ কি জানি একটা ব্যাপার নিয়ে গন্ডগোল বেঁধে গেলো। একজন খুন হলো আমার হাতে। কোন হুঁশ ছিলো না, মারামারি করেই যাচ্ছি। অবস্থা বেগতিক দেখে এক বন্ধু কোনোমতো টেনে নিয়ে পালাল সেখান থেকে। খুনটা আমার হাতে হয়েছে তা স্পষ্ট। আমাকে রক্ষা করতে সে নিয়ে গেলো তার পরিচিত এক মন্ত্রীর কাছে।

আমার নেশার ঘোর কেটে গেছে তখন। মন্ত্রী মহোদয় সবিস্তারে শুনে আমার পরিচয় জেনে বললেন, তুমি যদি আমার হয়ে কাজ করো তবে তোমার উপর কোনো বিপদ আসবে না। এমনকি তুমি যে সেখানে ছিলে তার কোন প্রমাণও থাকবে না। তবে হ্যা, যদি কখনো আমার কথার অবাধ্য হও তাহলে তোমাকে এর চেয়ে ভয়ংকর বিপদে ফাঁসিয়ে দেব। আমি যা বলি তা আবশ্যই শুনতে হবে।

আমি বাঁচার জন্য সকল শর্ত মেনে নিলাম। সে রাতে রয়ে গেলাম মন্ত্রীর বাসায়।
পরদিন শোনলাম নাইট ক্লাবে খুন হওয়া ব্যক্তির খুনিকে পুলিশ অস্ত্রসহ গ্রেফতার করেছে।
কৃতজ্ঞ হয়ে মন্ত্রীর ইশারায় করতে থাকলাম একের পর এক অপরাধ। সেদিন বুঝিনি, নেকড়ের গুহা থেকে আমি সিংহের গুহায় প্রবেশ করেছি। আন্ডার ওয়ার্ল্ডে তখন আমি ভয়ংকর অপরাধী। তবে কোনো দায় কখনো আমার ঘাড়ে আসেনি। এক বিশাল আস্তানা ও বাহিনী গড়ে ওঠলো আমার। জগতের এমন কোন অপরাধ নেই যা আমাকে দিয়ে করানো হয়নি।

বন্য পশুর মতো সভ্য সমাজের বাইরে এভাবেই কাটছিলো সময়। দেশে নির্বাচন এলো। পরিবর্তন হলো সরকার। ক্ষমতা শেষে মন্ত্রী মহোদয় পিঠ বাঁচাতেই তখন ব্যস্ত। আমিও ভুগছি অনিশ্চয়তায়। যে জগতের বাসিন্দা আমি সেখানে প্রবেশ করা যায়, বের হওয়া কঠিন। এক রাতে ক্লাবে আড্ডা দিচ্ছি। ক্ষমতাসীন নতুন মন্ত্রী অন্ধকারে গাড়ীতে বসে লোক পাঠালেন আমার খোঁজে।
গেলাম, তার দলে কাজ করার জন্য আমন্ত্রণ জানালেন।
আমি জানতে চাইলাম, কাজটা কি?

অনেক ভূমিকা টেনে শেষে আমাকে বুঝানো হলো, পূর্বে আমি যার হয়ে কাজ করেছি, তার সকল দূর্বল জায়গা আমার জানা আছে। আর সে তার প্রতিদ্বন্ধী। সুতরাং তাকে ঘায়েল করার জন্য আমার কাজ করতে হবে।

ওর কথাতেই বুঝলাম কেবল স্বার্থেই ওরা ব্যবহার করবে আমায়। প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলে প্রথমে বুঝাতে চেষ্টা করলো। ব্যর্থ হয়ে হুমকি দিলো। অস্তিত্ব বিলীন করে দিবে বলে শাষালো। সে রাত থেকেই হন্যে হয়ে খুঁজতে লাগলো পুলিশ।
অরোরা বলল, তোমার অপরাধের কোন প্রমাণ তো ছিলো না।

আমাদের একটি পূর্ণাঙ্গ সংবিধান থাকলেও আমাদের দেশটা চলে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিকদলের ইশারায়, আইনে নয়। ক্ষমতা থাকলে নিরাপরাধীকেও অপরাধী বানানো যায়। পুলিশ তো আমাকে আইন রক্ষার জন্য খুঁজছে না, মন্ত্রীর হুকুম তামিল করছে। তবে প্রমাণ সংগ্রহ কোনো কঠিন ব্যাপার নয়। একজন মন্ত্রীর জন্য তা ডাল-ভাত।

তারপর কি হলো?
পালিয়ে আর ক’দিন থাকা যায়। এক রাতে গ্রেফতার হলাম। পুুলিশ থানায় না গিয়ে গেল মন্ত্রীর বাংলোয়। শেষবারের মতো বুঝানো হলো। পিঠানো হলো।

আমি সিদ্ধান্তে অনড়, কেমন জেদ চেপে গেলো মনে; ওদের কাজ করবো না। আমাকে মেরে ফেলার সাহস করেনি কারণ আমার পারিবারিক পরিচয় তারা জানে। শেষ পর্যন্ত অসংখ্য মামলা দাঁড় করে পাঠালো কারাগারে। জাতীয় পত্রিকায় সমস্ত অপরাধের বর্ণনা দিয়ে খবর ছাপা হলো নানান রং মিশিয়ে। সম্ভবত সে দিনেই প্রথম আমার মা বেড রুমে উঁকি দিলেন সন্তানের খোঁজ নিতে। অবিশ্বাস্য দৃষ্টিতে দেখলেন সত্যিই তাদের সন্তান ঘরে নেই। জ্ঞান হারালেন মা। তাকে হাসপাতালে রেখে বাবা জেলখানায় আসলেন, কোথাও কোন ভুল হয়েছে কিনা জানতে। আমাকে দেখে বিস্ময়ের দৃষ্টিতে তাকিয়ে রইলেন কিছুক্ষণ। তার চোখের ভাষায় স্পষ্ট প্রশ্ন ছিলো, সত্যিই কি এই পশুটার জন্মদাতা আমি। চিড়িয়াখানায় খাঁচার পাশে দাঁড়িয়ে জানোয়ার দেখার মতো দেখে বললেন, এতো দিন জানতাম বস্তির ছেলেরা ক্যাডার হয়, স্বন্ত্রাসী হয়, ফুটপাতে জন্ম নেওয়া ছেলেরা পকেট মার হয়। আজ জানলাম কোন সভ্য জগতের ভদ্র মা-বাবার সন্তানরাও এসব হতে পারে। ওরা অন্যের বুকে অস্ত্র ধরে ক্ষুধার জ্বালায়। আর তুমি! …..ছিঃ ছিঃ।

বাবার মুখের দিকে তাকানোর সাহস ছিলো না আমার। লজ্জা ঘৃণায় নিজের নষ্ট শরীরটাকে মাটির সাথে মিশিয়ে দিতে ইচ্ছে হলো। তবু বলতে ইচ্ছে করছিলো- ওদের কিছু না থাকলেও বাবা-মা থাকে। ওদের খোঁজখবর রাখার মানুষ আছে। আমার তো সব থেকেও কিছু নেই। তুমি বলতে পার বাবা একই বাড়িতে থাকার পরও আজ কত বছর পর তোমার সাথে দেখা হয়েছে আমার! আমি তো এক দু’দিনে নষ্ট হইনি। কোনো সন্ধান কি রেখেছো কখনো? জানি এ কথাগুলো আজ মুল্যহীন। তাই বাকরুদ্ধ হয়ে নিথর বসে রইলাম কারাগারে।

বাবা যাবার বেলায় বললেন, তোমার গুণকীর্তন পত্রিকায় পড়ে তোমার মা স্ট্রোক করেছেন। এখন আছেন হাসপাতালে।
কারাগারের দেওয়ালে মাথা ফাটিয়ে আত্মহত্যা করতে চাইলাম। প্রথম আঘাতেই অজ্ঞান হয়ে যাওয়ায় সম্ভব হয়নি। এই অভিশপ্ত মুখ মাকে দেখাতে ঘৃণা হচ্ছিলো।

একজন আইনজীবি মা সন্তানকে কাঠগড়ায় দেখতে চায় না। আইন নিয়েই যার কাজ, আইনের সর্বশেষ ধারাটা যার ঠোঁটস্থ, যার যুক্তি-তর্কে দিনটা হয়ে যায় রাত। তার সন্তান অপরাধের চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে আজ কাঠগড়ায়, শোক তো তার হবেই। তারপর থেকে কোর্টে যাওয়া বন্ধ করে দিলেন তিনি। যে আইনের চৌম্বকীয় টানে সংসার সন্তান এতোদিন পরে ছিলো দুরে এতো বছর পর সন্তানের কৃতকর্মে সে আইন তাকে নিক্ষেপ করলো গৃহাভ্যন্তরে। যা ছিলো গর্বের তা রূপ নিলো লজ্জায়। ঝিনুক যেমন শত্র“র উপস্থিতির আবাস পেয়ে শক্ত আবরণে নিজেকে লুকায় তেমনি ইট পাথরের আড়ালে লুকালেন তিনি।

বিচার শুরু হলে একের পর এক অভিযোগ আসতে থাকলো প্রতিদিন। নিজের কানকে বিশ্বাস করতে পারছিলাম না, এতো অপরাধ আমি করেছি। পুরো একমাস চললো অভিযোগ আর এডভোকেটদের যুক্তিতর্ক। আমার মা একবারের জন্যও আদালতে যাননি। এমনকি সম্পূর্ণ নিষ্ক্রিয় রইলেন। এডভোকেটরা বাসায় দেখা করতে গেলে বললেন, অপরাধী অপরাধীই আমার কাছে তার আলাদা কোন পরিচয় নেই। সব উকিলরাই চেষ্টা করেন তার মক্কেলকে রক্ষা করতে, আপনারাও নিশ্চয়ই করছেন। এখন আদালত নির্ধারণ করবে তার ভবিষ্যৎ কি।

বাবা লিখিতভাবে আমার সকল অপরাধ স্বীকার করলেন আদালতে। পাশাপাশি শিশুকাল থেকে আমার বেড়ে ওঠার পরিবেশ। মাতা-পিতার স্নেহ হতে বঞ্চিত হওয়ার কারণ, অপরাধ জগতে প্রবেশ থেকে গ্রেফতার হওয়া পর্যন্ত সকল ঘটনা বর্ণনা করে প্রথম ও শেষবারের মতো সুস্থ ও সুন্দর জীবনে ফিরে যাওয়ার সুযোগ দেওয়ার জন্য আদালতে অনুরোধ করলেন। যদিও ক্ষমতাসীন দলের এমপি-মন্ত্রীরা ব্যাপারটায় তীব্র আপত্তি তুলেছেন তথাপি আদালত নিরপেক্ষ তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা খুঁজে পায়। এখানে আমার মায়ের সততার জ্যোতিটাই আদালতকে নমনীয় করে।

অপরাধ বার্তার ধারাবাহিক আয়োজন মুক্তির মরীচিকা প্রতি সাপ্তাহে একটি করে পর্ব প্রকাশ করা হবে। চলবে…

দেখা হয়েছে: 272
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪