|

করোনা আপডেট
মোট আক্রান্ত

১৭৫,৪৪১

সুস্থ

৮৪,৫৪৪

মৃত্যু

২,২৩৮

  • জেলা সমূহের তথ্য
  • চট্টগ্রাম ৯,৮৮৮
  • নারায়ণগঞ্জ ৫,৪২৪
  • কুমিল্লা ৪,০২৫
  • গাজীপুর ৩,৭১৩
  • ঢাকা ৩,৩৯১
  • বগুড়া ৩,৩০৭
  • সিলেট ২,৭৫৮
  • কক্সবাজার ২,৬১৩
  • ফরিদপুর ২,৪৪৪
  • খুলনা ২,৪৩৫
  • নোয়াখালী ২,২৯১
  • মুন্সিগঞ্জ ১,৯৪৪
  • ময়মনসিংহ ১,৮৮৯
  • বরিশাল ১,৬৮৬
  • কিশোরগঞ্জ ১,৫৫২
  • নরসিংদী ১,২৮০
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১,১৭৮
  • রাজশাহী ১,০৮৫
  • সুনামগঞ্জ ১,০৬২
  • চাঁদপুর ১,০৪৩
  • রংপুর ৯৮৩
  • লক্ষ্মীপুর ৯৫৪
  • ফেনী ৮৯২
  • মাদারীপুর ৮৩২
  • গোপালগঞ্জ ৭৯৯
  • টাঙ্গাইল ৭৬৯
  • হবিগঞ্জ ৭৫৮
  • যশোর ৭৪৮
  • কুষ্টিয়া ৭০৮
  • দিনাজপুর ৬৭৫
  • শরীয়তপুর ৬৬৮
  • মানিকগঞ্জ ৬৩১
  • সিরাজগঞ্জ ৬২৭
  • জামালপুর ৫৯৮
  • রাজবাড়ী ৫৬৩
  • নওগাঁ ৫৫৯
  • নেত্রকোণা ৫৪২
  • পটুয়াখালী ৫২৮
  • জয়পুরহাট ৪৫৪
  • পাবনা ৪৪৭
  • মৌলভীবাজার ৪১৪
  • রাঙ্গামাটি ৩৮৫
  • নীলফামারী ৩৫৩
  • ভোলা ৩২৭
  • বান্দরবান ৩১২
  • বরগুনা ৩০০
  • গাইবান্ধা ২৮৮
  • নড়াইল ২৭৭
  • ঝিনাইদহ ২৭৭
  • শেরপুর ২৫০
  • নাটোর ২৪৪
  • ঝালকাঠি ২৪২
  • চুয়াডাঙ্গা ২৩৯
  • খাগড়াছড়ি ২৩৭
  • পিরোজপুর ২১৮
  • ঠাকুরগাঁও ২০৬
  • বাগেরহাট ২০০
  • সাতক্ষীরা ২০০
  • মাগুরা ১৬৯
  • কুড়িগ্রাম ১৪৯
  • পঞ্চগড় ১৪৬
  • লালমনিরহাট ১২৬
  • চাঁপাইনবাবগঞ্জ ১০১
  • মেহেরপুর ৯২
ন্যাশনাল কল সেন্টার ৩৩৩ | স্বাস্থ্য বাতায়ন ১৬২৬৩ | আইইডিসিআর ১০৬৫৫ | বিশেষজ্ঞ হেলথ লাইন ০৯৬১১৬৭৭৭৭৭ | সূত্র - আইইডিসিআর | স্পন্সর - একতা হোস্ট
মৌলভীবাজারে সিজারে টানা হেঁচড়ায় নবজাতকের গলা কেটে মৃত্যু

প্রকাশিতঃ ৩:৩৩ অপরাহ্ন | জুলাই ১৯, ২০১৯

মৌলভীবাজারে সিজারে টানা হেঁচড়ায় নবজাতকের গলা কেটে মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ডাক্তারের অনুপস্থিতিতে প্রসূতির সিজার করলেন নার্স। সিজারের সময় নবজাতকের গলা কেটে ফেলা হয়েছে। এতে ওই নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে।

নবজাতকের গলা কেটে গেলে অবস্থা বেগতিক দেখে ডেলিভারি শেষ না করে অপারেশন থিয়েটারে মা-শিশুকে রেখে পালিয়ে যান নার্সরা। পরে অপারেশন থিয়েটারে গিয়ে স্বজনরা দেখেন নবজাতকের অর্ধেক মায়ের পেটে এবং মাথা ও হাত বাইরে।

এ অবস্থায় ওই মা-শিশুকে অন্য ক্লিনিকে নেয়া হয়। সেখানে মৃত নবজাতকের জন্ম হয়। মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে গত রবিবার এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার শিশুটির বাবা সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ ঘটনা নিয়ে স্ট্যাটাসের দিলে বিষয়টি আলোচনায় চলে আসে।

প্রসূতির স্বামী মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার কুমড়াকাপন গ্রামের বাসিন্দা মো. আওয়াল হাসান বলেন, রবিবার ভোরে স্ত্রীর প্রসব ব্যথা ওঠে। অবস্থা খারাপ দেখে তাকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যাই। প্রথমে হাসপাতালের নার্সরা রোগী দেখে জানান, নরমাল ডেলিভারিতে সন্তান হবে। এরপর সকাল ১০টার দিকে একজন ডাক্তার এসে চেকআপ করে বলেন নরমাল ডেলিভারিতেই হবে সন্তান।

কিছুক্ষণ পর নার্সরা আমাকে জানান, সিজার করা লাগবে। সিজারের মেডিসিন আনার জন্য একটা স্লিপ দেন তারা। ওই সময় হাসপাতালের এক ব্যক্তিকে মেডিসিন আনার জন্য আমার সঙ্গে দেয়া হয়। আমি তার সঙ্গে না গিয়ে অন্য একটি ফার্মেসি থেকে ওষুধ কিনে আনি। ওষুধ আনার পর নার্সরা বলেন রক্ত লাগবে। আগে আমার সঙ্গে যে লোককে ফার্মেসিতে পাঠানো হয়েছিল তাকে দেখিয়ে নার্সরা বলেন, তার কাছে রক্ত আছে, পাঁচ হাজার টাকা লাগবে। আমি পাঁচ হাজার টাকা না দিয়ে তিন হাজার টাকায় বাইর থেকে এক পাউন্ড রক্ত নিয়ে আসি।

কিন্তু আমি এসে দেখি স্ত্রীকে নরমাল ডেলিভারির জন্য নিয়ে গেছেন নার্সরা। কিছুক্ষণ পর এক নার্স এসে বলেন আপনার বাচ্চা আর বেঁচে নেই। মায়ের অবস্থা ভালো না, মাকে বাঁচাতে হলে এখানে একটা সই দেন। আমি কিছু চিন্তা না করে সই দিলাম। বাচ্চার মাকে বাঁচাতে হবে ভেবে।

তিনি বলেন, যখন ভেতরে গেলাম তখন দেখলাম নবজাতকের মাথা-হাত বাইরে, বাকিটুকু মায়ের পেটে। নবজাতকের হাত ছিঁড়ে গেছে, গলা কেটে ফেলেছেন তারা। সেখান থেকে রক্ত ঝরছে অনবরত। তখন আমি দৌড়ে গেলাম নার্স আনার জন্য। এসে দেখি কোনো নার্স নেই। সবাই পালিয়ে গেছেন। এ সময় আমি চিৎকার শুরু করি। তখন হাসপাতালে কর্মরত শোয়েব নামে এক ব্যক্তি আমার সঙ্গে তর্কবিতর্ক শুরু করে। সে আমার ঘাড় ধরে ধাক্কা মেরে মাটিতে ফেলে দেয়। সে বলে রোগী নিয়ে এখনই হাসপাতাল থেকে বের হয়ে যা।

এ সময় কান্না করতে করতে রোগীকে বাঁচানোর আকুতি জানাই আমি। কারও কোনো সহযোগিতা না পেয়ে রোগী নিয়ে পাশের আল-হামরা হাসপাতালে যাই। সেখানে নিলে মায়ের পেট থেকে মৃত বাচ্চা বের করেন চিকিৎসকরা। আমি অসহায় মানুষ, আমি আমার সন্তান হত্যার বিচার চাই।

মৃত নবজাতকের মা সুমনা বেগম বলেন, যখন আমার স্বামী নার্সদের বলে দেয়া লোকের কাছ থেকে রক্ত না কিনে বাইরে রক্ত কিনতে যায় তখন নার্সরা আমাকে জোর করে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যান। আমি তাদের বললাম একটু আগে বললেন, সিজার লাগবে। আমার স্বামী রক্ত আনতে গেছে। তখন তারা আমাকে ধমক দেন। সেই সঙ্গে তারা আমার পেটে জোরে জোরে চাপ দিতে থাকেন। পশুর মতো পেট থেকে বাচ্চা টানতে শুরু করেন তারা। এতে আমার বাচ্চার হাত এবং গলার রগ ছিঁড়ে যায়। পরে তারা আমাকে ফেলে রেখে চলে যান। তাদের কথা মতো ওই লোকের কাছ থেকে রক্ত না কেনায় আমার বাচ্চাকে মেরে ফেলছেন তারা।

এ বিষয়ে আল-হামরা হাসপাতালের ম্যানেজার বলেন, আমাদের যে ডাক্তার অপারেশন করেছেন তিনি নিজেও অবাক হয়েছেন এ ধরনের কাণ্ড দেখে। বিষয়টি সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানাতে বলেছেন আমাদের ডাক্তার।

জানতে চাইলে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার রত্নদ্বীপ বিশ্বাস তীর্থ গণমাধ্যমকে বলেন, আমি আজ মাত্র এখানে যোগ দিয়েছি। বিষয়টি জানি না। খোঁজ নিয়ে দেখব বিষয়টি।

এ ব্যাপারে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক পার্থ সারথি দত্ত কানুনগো গণমাধ্যমকে বলেন, হাসপাতালে নিয়ে আসার দুই দিন আগে থেকে বাচ্চাটির নড়াচড়া ছিল না। বাচ্চা যদি মায়ের গর্ভে মারা যায় অনেক সময় ফুলে যায়। ওই অবস্থায় পেট কেটে বাচ্চা বের করতে হয়। হাসপাতালে ওই দিন নয়টি সিজার হয়েছে। তিনজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ছিলেন। নার্সরা সিজার করেনি, ডাক্তাররাই সিজার করেছেন।

দেখা হয়েছে: 214
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪