|

রাজশাহীতে সিন্ডিকেটের দখলে বাজার, পানির দরে চামড়া বিক্রি

প্রকাশিতঃ ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন | অগাস্ট ২৮, ২০১৮

নাজিম হাসান, রাজশাহী প্রতিনিধি:
রাজশাহীর গ্রামে গ্রামে কোরবানীর পশু চামড়া নিয়ে বিপাকে পড়েছিলেন মানুষ। মৌসুমী ব্যবসায়ীদের এবার চামড়া কেনা নিয়ে অনেকটা অনিহা ছিল শুরু থেকেই। চামড়ার ক্রেতা শূণ্যতায় অনেক গ্রামে কোরবানী পশুর চামড়া নিয়ে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেছেন মানুষ।

পরে বাধ্য হয়ে পানির দরে চামড়া তুলে দিয়েছেন মৌসুমী ব্যবসায়ীদের কাছে। এচিত্র শুধু গ্রামেই নয়, এমন কি পুরো উপজেলা একই অবস্থা। কোরবানীর ঈদের আগে সরকার পশু চামড়ার দাম নির্ধারণ করে দিয়েছিল। সে অনুপাতে এবার ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরে প্রতি বর্গফুট গরুর চাম বিক্রি হবে ৫০ থেকে ৫৫ টাকায়। আর ঢাকার বাইরে গ্রামে হবে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা বর্গফুট। কিন্ত এবার শহরে সরকারের বেধে দেয়া দর কিছুটা ঠিক থাকলে ও ঢাকার বাইরে গ্রামে সে দর মানা হয়নি একেবারে।

মৌসুমী ব্যবসায়ীদের একটি বড় সিন্ডিকেট একজোট হয়ে গ্রামের কোরবানীর পশুচামড়ার ক্রয় করেছেন পানির দরে। তারা শুরুতেই চামড়া কেনা কৃত্রিম ক্রেতা সংকট তৈরি করে। গ্রামের মানুষেরা চামড়ার ক্রেতা না পাওয়াই সন্ধ্যা ও অনেকে রাত পর্যন্ত নিয়ে বসে ছিল।

পরে সে সিন্ডিকের কাছে তারে ৫০০ থেকে ৭০০ টাকার গরুর চাম ১৫০ থেকে ২০০ টাকা ও ছাগলে চাম গড়ে মাত্র ১৫ থেকে ২০ টাকায় বিক্রি করেন। এ নিয়ে একাধিক মৌসুমী চামড়া ব্যবসায়ীরা জানান,একটি গরুর চামড়া গড়ে ২৪ ফুট হয়। ঢাকার বাইরে সরকারের বেধে দেয়া ৩৫ টাকা ফুট দরে একটি গরুর চামড়া দাম পড়ছে ৮৪০ টাকা। একটা গরুর চামড়ায় ১২ কেজি লবণ লাগে। যার দাম ১৫০ টাকা। প্রতি চামড়ায় শ্রমিক খরচ (মাঠে থেকে তুলে আড়তে আনা) ১০ টাকা, পরিবহন খরচ সহ প্রায় ২৬৫ টাকা খরচ পড়ে এছাড়াও প্রতিটি গরু চামড়া যাছাই-বাছাই করে প্রতি গড়ে আরো ১০০ টাকা কাটা পড়বে। সে অনুপাতে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকার বেশি তারা চামড়া কেনতে লোকশান গুণতে হবে।

উপজেলার চিমনা গ্রামের গ্রাম মাতাব্বর দুরুল হুদা জানান, তার সমাজের এবার ২৫টি গরু ও ৫০ টি ছাগল কোরবানী দেয়া হয়েছিল। ঈদের দিন সন্ধ্যা নাগাত চামড়া কেনার কোন লোক আসেনি। চামগুলো নষ্ট হয়ে যাবে ভেবে এলাকার এক মৌসুমী চাম ব্যবসায়ীর কাছে ফোন করে হাতে পায়ে ধরে চামগুলো তার কাছে পাঠানো হয়। সে গরুর চামড়াগুলো ১৮০ ও খাসির ২৫ টাকা করে দেন।

তিনি আরো জানান,সরকার এবার গ্রামে গরু ৩৫ টাকা ফিট দাম নির্ধারণ করে দিয়েছেন সে হিসাবে একটি গরুর সর্বচ ২০ থেকে ২৪ ফুট। সরকারের বেধে দেয়া দামেও ৭০০ থেকে ৮৫০ টাকা পর্যন্ত পাওয়ার কথা। কিন্ত সে বেধে দেয়া দামের অর্ধেকও মেলেনি। পেয়েছেন গড়ে ১৮০ টাকা। মৌসুমী ব্যবসায়ীদের একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট ক্রেতা সংকট দেখায় কম দামে চামড়া ক্রয় করেছেন। এতে গরীবের হক নষ্ট করা হয়েছে।

এ বিষয়ে চামড়া ব্যবসায়ী আবুল হোসেন বলেন, সরকারের নির্ধারিত দামের মধ্যেই চামড়া কিনছেন ব্যবসায়ীরা। এতে করে তাদের আর্থিক ভাবে লোকসান হবার সম্ভাবনা রয়েছে। তার পরেও ব্যবসার খাতিরে তারা বেশি দামে কিনছেন চামড়া। চামড়ার দামের চেয়ে খরচ বেশি হচ্ছে। এতে করে ব্যবসায়ীদের লোকসানের সম্ভাবনা রয়েছে।

এ নিয়ে তানোরের প্রাণিসম্পাদ অফিসার আবদুল মজিদ জানান, এ বছর উপজেলায় গরু ৯ হাজার, ছাগল ১০ হাজার ৫০০, ভেড়া ১০হাজার ৮০০ পশুর চামড়ার হওয়ার কথা রয়েছে। তবে এখনো আমাদের সার্ভিয়ার চলছে। কয়েক দিনের মধ্যে পরো উপজেলার সঠিক তথ্য জানাজাবে। তিনি আরো জানান, চামড়ার দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার।

এটার তদারকি করার কথা বানিজ্য মন্ত্রলয়ের। কিন্ত কেউ তদারকি না করাই চামড়ার বাজার এবার পুরোটাই সিন্ডিকেটের দখলে চলে গেছে॥ শুধু পানি দরে গ্রামেই নয়,শহরেও একই অবস্থা। আমি ও কয়েকজন মিলে একটি বড় গরুর চামড়া বিক্রি করেছি ২০০ টাকায়।

দেখা হয়েছে: 690
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন
অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ উবায়দুল্লাহ
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪