fbpx

|

রূপগঞ্জে জমকালো আয়োজনে বিজয় দিবস পালন

প্রকাশিতঃ ৩:৪৮ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ১৭, ২০২১

রূপগঞ্জে জমকালো আয়োজনে বিজয় দিবস পালন

লিখন রাজ, রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ মহান মুক্তিযুদ্ধের বিজয় অর্জনের সুবর্ণজয়ন্তীতে গোটা জাতি গতকাল উৎসব-আনন্দে মেতে উঠেছে। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর পাক সেনাদের আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয় বাংলাদেশের। সেই হিসাবে বিজয়ের ৫০ বছর পূর্তির দিন ছিল গতকাল।

বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী এবং মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রীয়ভাবে নানা কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। সব সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক এমপির। নির্দেশনায় রূপগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আনছর আলীর। ইছাপুরার রাজনৈতিক কার্যালয় আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়। ও জমকালো আয়োজনের মধ্য কেক কেটে বিজয় দিবস পালন করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক এর একান্ত সহকারী সচিব এমদাদুল হক এমদাদ।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহন মিয়া,রূপগঞ্জ ইউনিয়ন যুব মহিলালীগের সভাপতি জিন্নাত জাহান জিসান,,আওয়ামীলীগ নেতা নবী হোসেন,১ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ মুরাদ হাসান,রূপগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ নেতা শরাফত আলী,রূপগঞ্জ ইউনিয়ন ৮ নং ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা জয়নাল হাজারী প্রমুখ।

এমদাদুল হক এমদাদ বলেন, আজকে যে আমরা বিজয়ের ৫০ বছর উদযাপন করছি এটা আমাদের অহংকার। আজকে সারা বাংলাদেশ উৎসব মূখর, শান্তিময় বাংলাদেশ, স্বাধীনতার অগ্রযাত্রার বাংলাদেশ। যে দেশ গঠিত শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। নিজেদের অসমাপ্ত প্রতিষ্ঠার সোনার বাংলাদেশ। এটা বলার কারণ আমরা কতটা মানুষের হৃদয়ে স্বাধীনাতা পৌঁছে দিতে পেরেছি। বক্তারা স্বাধীনতার কথা বলে আর বাচ্চারা হাতে তালি দেয়।

কিন্তু স্বাধীনতার বার্তা আমরা পৌঁছে দিতে পারি না। আমরা কর্তব্য পালন করি না। বক্তারা ভাবে আমি বক্তিৃতা দিলাম অডিয়েন্স হাত তালি দিলো আমি অনেক খুশি হয়ে গেলাম। আমরা আমাদের নিজেদের দ্বায়িত্ববোধ বুঝি না। আমার আমাদের কর্তব্যর ব্যাপারটা বুঝি না। আমি আসলে হাততালির রাজনীতিতে বিশ্বাস করি না। স্বাধীনতার ৫ বছর পরেও আমাদের যুদ্ধ করতে হচ্ছে, আমাদের রাত যেগে পাহারা দিতে হচ্ছে। আমাদের যুব সমাজ, ছাত্র সমাজ, স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে বলতে হচ্ছে যে, সচেতন থাকুন চোখ কান খোলা রাখুন।

তিনি আরও বলেন, যারা স্বাধীনতার বিপক্ষে কাজ করেছে, ৩০ লাখ শহিদের রক্তের সাথে বেইমানী করেছে তারা এখনো ষড়যন্ত্র করছে। আমরা স্বাধীন হয়েছি, যুদ্ধ করেছি আমরা ভেবেছি আমরা সব জয় করে ফেলেছি। কিন্তু স্বাধীনতার বিপক্ষীরা ভেবেছে ‘ওদের স্বাধীনতা ছিনিয়ে নিতে হবে, এই দেশকে আবারো পাকিস্তানের রাষ্ট্র বানাতে হবে। এই দেশের মানুষ স্বাধীনতা দিয়ে কখনো শান্তি নিয়ে আসতে পারে না এটাই বার বার প্রমাণ করার চেষ্টা করছে। কখনো বাম, কখনো ডান, কখনো প্রসাশনের মধ্যে থেকে, কখনো বাইরে থেকে চেষ্টা চালাচ্ছে যাতে এই দেশ সামনের দিকে এগোতে না পারে।

আজ অনকেই জানে না এই দেশকে পাওয়ার জন্য একটি পরিবার বিসর্জন দিয়েছে, একজন জাতির জনক জীবন যৌবন ত্যাগ করেছে। আমরা সেই জাতীর পিতার নাম আমরা আগামী প্রজন্মের কাছে পৌছে দিতে পারিনি, এটি সত্য এটি প্রমাণিত।

দেখা হয়েছে: 85
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!