|

লক্ষ্মীপুরের ‘ঝাউডগি’ সন্ধ্যা নামলে চাপা আতঙ্ক

প্রকাশিতঃ ৭:২৩ অপরাহ্ন | নভেম্বর ৩০, ২০১৯

লক্ষ্মীপুরের ‘ঝাউডগি’ সন্ধ্যা নামলে চাপা আতঙ্ক

মো. রুবেল হোসেন, লক্ষ্মীপুরঃ ঝাউডগি গ্রামটি সবুজ প্রকৃতিতে ঘেরা। চতুর্দিকে ফসলী জমি। মাঝপথে ভয়ে গেছে মেঠপথ। দিনের বেলা কৃষকরা ব্যস্ত মাঠ থেকে আমনধান ঘরে নিতে। আর সন্ধ্যা নামলে ডাকাত ও সন্ত্রাসীদের ভয়ে একধরণের চাপা-আতঙ্ক বিরাজ করে গ্রামবাসীদের মাঝে। মাঝে মধ্যে গুলিবর্ষণের শব্দও শুনতে পান গ্রামবাসী।

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার কুশাখালী ইউনিয়নের একটি (ওয়ার্ড) গ্রামের নাম ঝাউডগি। এ গ্রামে বসবাস করেন হাজার হাজার মানুষ। তবুও প্রতিদিন সন্ধ্যা নামলে ডাকাত ও সন্ত্রাসীদের ভয়ে এক ধরণের চাপা-আতঙ্ক বিরাজ করে পুরো গ্রাম জুড়ে।

চলতি বছরে কুশাখালী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ কামাল পাটোয়ারীর বড় ভাই (গরু ব্যবসায়ী) মোসলেহ উদ্দিনকে নৃশংসভাবে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। দীর্ঘদিন মামলাটি ঝুলে থাকে কোন এক অদৃশ্য শক্তির কারণে। পরে নিহতের বাবা দুধু মিয়া আদালতে মামলা করে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্ত দেয় জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশকে।

ইতিমধ্যে গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ইনেন্সপেক্টর সোলায়মান তদন্ত করে চার আসামীকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করে। কারাবন্দীরা হলেন, নোয়াখালী সদর উপজেলার ডাকাত সিরাজ, ডাকাত এনু, ডাকাত জাকের ও ঝাউডগি গ্রামের জহির।

এ চারজনকে গ্রেপ্তারের পর থেকে তাদের অনুসারী হান্নান, সুজন, রহিম, মাহফুজ ও রুবেল বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তাদের ভয়ে এলাকাতে যেতে পারেন না ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক কামাল পাটোয়ারী।

গতকাল শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) বিকেলে কামাল পাটোয়ারী এলাকায় একটি জানাযা নামাজে অংশগ্রহণ করে। ওই থেকে আসামীরা কামালকে লক্ষ্য করে  হত্যা করার জন্য পরিকল্পনা করে বলে কামালের দাবি। পরে কামাল কৌশলে গ্রাম ছেড়ে লক্ষ্মীপুরে চলে আসেন। রাত ১০ টার পর কামালের বড় ভাইয়ের ছেলে সোহেল দোকানপাট বন্ধ করে বাড়ির ফেরার পথে হান্নান, সুজন, রহিম, মাহফুজ ও রুবেল তার গতিরোধ করে অস্ত্র ঠেকিয়ে বলে কামালকে মোবাইল করার জন্য একপর্যায়ে সোহলকে বেদম মারধর করে পরে হান্নান গুলি করলে সেই মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তবে তার গায়ে গুলি লাগেনি। গুলির শব্দ শুনে চারপাশ থেকে মানুষ আসলে তারা পালিয়ে যাই। বর্তমানে ঝাউডগি গ্রামবাসী আতঙ্কে রয়েছে।

কুশাখালী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ কামাল পাটোয়ারী বলেন, আমার ভাই ব্যবসায়ী ও রাজনীতি দ্বন্দ্বে সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত হন। ওই সন্ত্রাসীরা এখন আমাকেও হত্যা করতে চায়। তাদের ভয়ে আমি গ্রাম ছাড়া। অভিযুক্ত কাউর দেখা পায়নি ঝাউডগি গ্রামে গিয়েও।

লক্ষ্মীপুর জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ রিয়াজুল কবির বলেন, আতঙ্ক হওয়ার কোন কারণ নেই। ইতিমধ্যে আমরা চার আসামীকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছি। বাকিদেরকে ধরতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে। এছাড়া যারা সন্ত্রাসীকান্ড করবে তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দেখা হয়েছে: 2204
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
প্রকাশকঃ উবায়দুল্লাহ রুমি
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
সহকারী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৯১৬-৯১৭৫৬৪
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোবাইল ০১৭১৮-৯৭১৩৬০
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪