fbpx

|

শরীয়তপুরে ভোট কেন্দ্রে আগুন নিরাপত্তা বাহিনীর ৪৩ রাউন্ড গুলি বর্ষণ, আহত-২০

প্রকাশিতঃ ৬:০৬ অপরাহ্ন | জানুয়ারী ০৬, ২০২২

মো. মহসিন রেজা, শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃ শরীয়তপুরে পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের ৫ জানুয়ারী ভোট গ্রহনকালে নড়িয়া উপজেলার ভোজেশ্বর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড চান্দনী হানাইহার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। বুধবার দুপুর সোয়া দুইটার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে।

অভিযোগ উঠেছে, চশমা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ দেলোয়ার হোসেনের সমর্থকরা এ হামলা করেছে।

স্থানীয়রা জানান, ভোট কেন্দ্রে শতাধিক বোমার বিষ্ফোরণ ঘটায় হামলাকারীরা। পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে সাংবাদিক ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের ৩টি মোটরসাইকেল।

যমুনা টেলিভিশন প্রতিনিধি কাজী মনিরুজ্জামান, কালের কন্ঠের প্রতিনিধি শরীফুল ইসলাম ইমন ও সহকারি প্রিসাইডিং কর্মকর্তা জাকারিয়া মাসুদের মোটর সাইকেল পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এসময় ভোটারসহ স্থানীয় লোকজন দৌড়ে বিভিন্ন নিরাপত্তা স্থানে আশ্রয় গ্রহণ করে।

কর্তব্যরত সাংবাদিকরা প্রিজাইডিং অফিসারের কক্ষে অবরুদ্ধ হয়ে পড়লে তাদের অবস্থানের পাকাভবন লক্ষ্য করে প্রায় অর্ধশত বোমা হামলা ও গুলিবর্ষণ করেছে হামলাকারীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ভোট কেন্দ্রের নিরাপত্তায় থাকা পুলিশ ও আনসারগণ ৪৩ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করেছে।

ইটপাটকেল ও সন্ত্রাসীদের হামলায় ২পুলিশ ও আনসারসহ আহত হয়েছে অন্তত ২০ জন। শরীয়তপুর থেকে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয়েছে।

ভোটকেন্দ্রটি বাংলাদেশ পুলিশের সাবেক আইজিপি একেএম শহীদুল হকের বাড়ির পাশে অবস্থিত। এ ইউনিয়নে চেয়াম্যান পদে চশমা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন মোঃ দেলোয়ার হোসেন বেপারী।

তিনি সাবেক আইজিপি একেএম শহীদুল হকের আপন চাচাতো ভাই। এই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন প্রার্থী থাকলেও মূল প্রতিদ্বন্দিীতা হবে আনারস প্রতীকের শহীদুল ইসলাম সিকদার ও চশমা প্রতীকের মোঃ দেলোয়ার হোসেন বেপারীর সাথে।

পুলিশ ও নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা জানান, বুধবার সকালে নড়িয়ার ভোজেশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন শহীদুল ইসলাম সিকদার, এমদাদ সিকদার, রুনা আক্তার, দেলোয়ার হোসেন বেপারী ও এনামুল হক ব্যাপারী। দোলোয়ার হোসেন ব্যাপারী সাবেক আইজিপি একেএম শহীদুল হক ও নড়িয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইসমাইল হকের চাচাত ভাই।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, দুপুর সোয়া দুইটার দিকে ২২ নম্বর দুলুখন্ড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে হামলা করে দেলোয়ার হোসেন বেপারীর সমর্থকরা। তারা ককটেল বোমা হামলা ও গুলি করে ভোটারদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এরপর ভোটকেন্দ্র দখল করে তিনটি ভোট বাক্স, ৩ হাজার ব্যালট ও নির্বাচনী কাজে ব্যবহৃত সামগ্রী ছিনতাই করে নিয়ে যায় তারা।

এরপর বাহির থেকে দরজা আটকে দিয়ে ভোটকেন্দ্রে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। এ সময় নির্বাচনী দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা, আনসার সদস্য ও ভোটাররা ওই কক্ষে আটকা পড়ে। তারা দরজা ভেঙ্গে সেখান থেকে প্রাণে বাঁচে। সেখানে উপস্থিত ডেইলি স্টারের প্রতিবেদক এমরুল হাসান বাপ্পী, যমুনা টিভির সাংবাদিক মনিরুজ্জামান, কালেরকন্ঠের সাংবাদিক শরীফুল আলম ইমন, প্রথম আলোর প্রতিনিধি সত্যজিৎ ঘোষ প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কক্ষে আটকা পড়েন। তাদের কক্ষে ককটেল বোমার হামলা ও গুলি করা হয়।

কেন্দ্রে উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা পাল্টাগুলি ছুড়ে কেন্দ্র রক্ষার চেষ্টা করেছেন। তাদের গুলি শেষ হয়ে গেলে তারও পিছু হটে আত্মরক্ষা করেন। এরপর নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট সুজন দাস গুপ্তের নেতৃত্বে বিজিবি সদস্যরা অবরুদ্ধদের উদ্ধার করেন।

ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌছেঁ স্কুল ভবনের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। হামলাকারীরা অন্তত ৮ নারী আনসার সদস্য ও নারী ভোটারদের গহনা ছিনিয়ে নিয়ে যায় বলে তারা অভিযোগ করেছেন। নারী আনসার সদস্য তরিকত নেছা বলেন, বোমা ও গুলির কারণে কেন্দ্রের ভেতর আশ্রয় নেই।

পরে ভোট বাক্স, ব্যালট ছিনিয়ে নেয়ার পর স্কুল ভবনে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। আমাদের মারধর করে গায়ের গহনা ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে।

৫ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য প্রার্থী ইকবাল সিকদার বলেন, হামলার সময় কেন্দ্রের মধ্যে আটকা পড়ি। বাহির থেকে কক্ষ আটকে দিয়ে আগুন লাগিয়ে দিলে আমরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ি। জানালা ভেঙ্গে ভবন থেকে বাহিরে এসে প্রাণে বাঁচি।

চেয়ারম্যান প্রার্থী শহীদুল ইসলাম সিকদার বলেন, দেলোয়ার হোসেন বেপারীর সমর্থকরা ভোট বানচাল করার জন্য তিনটি কেন্দ্রে হামলা চালায়।

সকাল থেকে ককটেল হামলা করে আতঙ্ক ছড়ায়। দুপুরের দিকে ৫ নম্বর ওয়ার্ড কেন্দ্রে আগুন জালিয়ে পুড়ে দেয়।

কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, ভোটকেন্দ্রের চারদিক থেকে বোমা বর্ষণ ও ককটেল নিক্ষেপ করে এবং দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা করে দুবৃর্ত্তরা।

দরজা ভেঙ্গে ভিতরে ঢুকে ব্যালট পেপার ছিনতাই করে নিয়ে গেছে হামলাকারীরা। তারা দরজা লাগিয়ে শেষে আগুন ধরিয়ে দেয়।

পুলিশ সুপার এসএম আশরাফুজ্জামান জানান, জানমাল ও নিরাপত্তার রক্ষায় পুলিশ মোট ৪৩ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করেছে।

দেখা হয়েছে: 30
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪