|

শিক্ষা অফিসের ভুলের দায় শিক্ষকের ঘাড়ে!

প্রকাশিতঃ ৭:৫৫ অপরাহ্ন | অগাস্ট ২৬, ২০২০

গৌরীপুর

গৌরীপুর প্রতিনিধি॥ ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের ভুলের দায় ঢাকায় বদলি হওয়া স্থানীয় একটি স্কুলের প্রাক্তন নারী প্রধান শিক্ষকের উপর চাপানোর অভিযোগ ওঠেছে। নিজেদের ভুল আড়াল করতে বর্তমানে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের মিথ্যা অপবাদ দিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে অপপ্রচার চালাচ্ছেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা।

বিনা কারণে সাত মাস পর নতুন কর্মস্থলে পাঠানো হয়েছে তাঁর সার্ভিসবুক। আর্থিক সুবিধা দিতে না পারায় এ শিক্ষা কর্মকর্তা এমন আচরণ করছেন বলে দাবি করেন এ উপজেলা ৪৫ নং পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক দিলরুবা ইয়াসমিন।

দিলরুবা ইয়াসমিন জানান, তিনি প্রায় সাত মাস পূর্বে গৌরীপুর উপজেলার ৪৫ নং পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বদলি হয়ে ঢাকার মিরপুর এলাকায় তাফালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। যোগদানের পর তাঁর সার্ভিস বুকের জন্য উপজেলা শিক্ষা অফিসে গেলে নানা টালবাহানায় সার্ভিস বুক আটকে রাখা হয়। এ কারনে বেতন-ভাতা উত্তোলন করতে না পারায় তিনি পরিবার-পরিজন নিয়ে বর্তমানে মানবেতর জীবন যাপন করছেন।

দিলরুবা ইয়াসমিন বলেন, ৪৫ নং পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২০১৮-২০১৯ ইং অর্থ বছরে রুটিন মেইনটেন্স খাতের ৪০ হাজার টাকা গত বছর জুন মাসে স্কুলের ব্যাংক একাউন্ট থেকে উত্তোলনের পর যথারীতি কাজ সম্পন্ন করে বিল-ভাউচার শিক্ষা অফিসে জমা দেয়া হয়েছে। অথচ কাজ সম্পন্নের প্রায় এক বছর পর তাঁর বিরুদ্ধে ওই খাতের ৪০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ দাবি করে নানা অপপ্রচার চালাচ্ছেন এ শিক্ষা কর্মকর্তা।

শিক্ষা কর্মকর্তার বরাত দিয়ে ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়ায় এ বিষয়ে মিথ্যা ও মানহানিকর সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। এসব সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে রুটিন মেইনটেন্স খাতের ৪০ হাজার টাকা ফেরত দেয়ার জন্য এক বছর পর গত ৫ আগস্ট তাঁকে পত্র দেয়া হয়েছে। অথচ তিনি অদ্যবধি এরকম কোন চিঠি পাননি অথবা এর আগে মৌখিকভাবে তাঁকে কোন প্রকার তাগিদ দেয়া হয়নি।

তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তাঁকে হয়রানির জন্য উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে তাঁর সার্ভিসবুকে ভূঁতুড়ে ও মিথ্যা তথ্য লিপিবদ্ধ করিয়েছেন। সার্ভিসবুক হারানো ও ভুল তথ্য লিপিবদ্ধের ব্যাপারে তিনি বলেন- সার্ভিসবুক শিক্ষা অফিসে জমা থাকে সেখান থেকেই হারিয়েছে, সার্ভিসবুক লিপিবদ্ধ করার দায়িত্ব শিক্ষা অফিসের অথচ কথিত হারানো ও ভুল তথ্যের দায় চাপানো হয়েছে আমার উপর।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে আর্থিক সুবিধা দাবির বিষয়টি মিথ্যা উল্লেখ করে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মনিকা পারভীন জানান, ২০১৮-১৯ ইং অর্থ বছরে ১৩৯ নং পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নামে বরাদ্দকৃত রুটিন মেইনটেন্স খাতের ৪০ হাজার টাকা ভুলক্রমে ৪৫ নং পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ব্যাংক একাউন্টে জমা হয়ে যায়, অথচ এসময় ৪৫ নং পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নামে কোন অর্থ বরাদ্দ ছিল না। অর্থবছর শেষ হওয়ার ৮ মাস পর গত ১২ মার্চ ১৩৯ নং পশ্চিমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ সোলেয়ামান আলীর আবেদনের পর এ বিষয়ে শিক্ষা অফিস বিষয়টি জানতে পারে।

তিনি আরো বলেন, বিষয়টি অবগত হওয়ার পর বদলিকৃত প্রধান শিক্ষক দিলরুবা ইয়াসমিনকে টাকা ফেরত দেয়ার জন্য বারবার মৌখিক তাগিদ দেয়া হলেও তিনি টাকা ফেরত দেননি। এরপর গত ৫ আগস্ট এ বিষয়ে তাকে লিখিতভাবে চিঠি দেয়া হয় কিন্তু তিনি তা রিসিভ করেননি।

দেখা হয়েছে: 85
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।
সম্পাদকঃ আরিফ আহমেদ
উপদেষ্টা সম্পাদকঃ আফজাল হোসেন হিমেল
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ aporadhbartamofosal@gmail.com
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪