fbpx

|

২ লাখ টাকার অভাবে পা হারাবে কলেজছাত্র আরিফ?

প্রকাশিতঃ ৯:১৩ অপরাহ্ন | এপ্রিল ০৭, ২০২১

২ লাখ টাকার অভাবে পা হারাবে কলেজছাত্র আরিফ?

স্টাফ রিপোর্টার: লক্ষ্মীপুরে বন্ধুর বাবার জানাযা নামাজে যাওয়ার পথে কলেজছাত্র আরিফ হোসেন সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। চিকিৎসকরা জানিয়েছে, তার ডান পায়ের গোড়ালি উল্টে যাওয়াসহ হাড়ে তিনটি ভাঙা রয়েছে। এতে দ্রুত অপারেশন না করা গেলে পা কেটে ফেলতে হবে।

এদিকে টাকার অভাবে পা হারালে মেধাবীছাত্র আরিফের ভবিষ্যত অন্ধকার হয়ে যাবে।এজন্য সমাজের বিত্তবানদের সহযোগীতায় পেলে অপারেশনের মাধ্যমে আরিফ নিজের পায়ে আবারো দাঁড়াতে পারবে। স্বাভাবিকতায় ফিরবে তার জীবন।

আরিফ লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। তিনি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের মিয়ারবেড়ি এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান কামাল সড়কের বাসিন্দা কৃষক মো. সিরাজের ছেলে। তারা ৫ বোন ও দুই ভাই। বোনরা বিবাহিত। তার বড় ভাই মো. শাহিন ব্যাটারী চালিত অটোরিকশা চালিয়ে কোনরকম সংসার চালায়।

অভাব-অনটনের সংসারে কৃষক বাবার পক্ষে আরিফের অপারেশনের ব্যবস্থা করা একেবারেই অসম্ভব। এজন্য পরিবারের পক্ষ থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সহযোগীতা চেয়ে আকুতি জানানো হয়েছে। অর্থিক সহযোগিতার জন্য ০১৮২৪০২৬৮৯৩ (বিকাশ ও নগদ ব্যক্তিগত) এবং ইসলামী ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংক শাখার হিসাব নাম- বিবি কুসুম, নম্বর- ২০৫০৭৭৭০২২৪০১৫৩০৫ (তোরাবগঞ্জ এজেন্ট ব্যাংক শাখা) দেওয়া হয়েছে ।

পরিবার সূত্র জানায়, গত ৫ মার্চ কমলনগর উপজেলার চর লরেঞ্চ গ্রামে বন্ধু রাশেদের বাবার জানাযার নামাজে অংশ নেওয়ার উদ্দেশ্যে আরিফ বের হয়। তিনি সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালকের সঙ্গে সামনের ডানপাশে বসা ছিল। তার ডান পা বাইরে ছিল। পথিমধ্যে করইতলা বাজারে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি দ্রুতগতির মোটরসাইকেলের সঙ্গে অটোরিকশার সংঘর্ষ হয়। এতে আরিফের ডান পা গুরুত্বর জখম হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে আরিফ রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ওই হাসপাতালের চিকিৎসক অর্থোপেডিক সার্জেন্ট একেএম নিজাম উল ইসলামের বরাত দিয়ে পরিবারের লোকজন জানিয়েছেন, আরিফের ডান পায়ের হাড় তিন অংশে ভেঙে গেছে। পায়ের গোড়ালিও উল্টে গেছে। যত দ্রুত তার অপারেশন করতে হবে। তা না হলেও পা কেটে ফেলতে হবে।

আরিফের বোন বিবি কুসুম বলেন, চিকিৎসকরা জানিয়েছেন অপারেশন করতে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা লাগবে। এরসঙ্গে প্রয়োজনীয় ওষধ ও অপারেশন ব্যয়ও আছে। ২ লাখ টাকা হলে সে স্বাভাবিক জীবনে ফিরবে। কিন্তু দরিদ্র কৃষক বাবা ও রিকশা চালক ভাইয়ের পক্ষে এতো টাকা জোগাড় করা সম্ভব নয়। এজন্য বিত্তবানসহ সমাজের সকল মানুষের সহযোগীতা প্রয়োজন।

ভবানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মানিক মিয়া জানান, ঘটনাটি খোঁজ নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে পরিবারটিকে সহযোগীতা করা হবে।

ভবানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সচিব নুরুল হুদা বলেন, বিষয়টি আমাদেরকে কেউ জানায়নি। এনিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের সঙ্গে আলোচনা করে তাঁদের সহযোগীতার চেষ্টা করা হবে।

এ ব্যাপারে লক্ষ্মীপুর জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক নুরুল ইসলাম পাটওয়ারী বলেন, সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার ক্ষেত্রে নিয়ম অনুযায়ী আমার সহযোগীতা করতে পারি। যদি ওই কলেজছাত্রকে সরকারি কোন হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা করানো হয়, তাহলে আমরা অবশ্যই সহযোগীতা করবো।

দেখা হয়েছে: 109
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
আলী আরিফ সরকার রিজু
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪