fbpx

|

৯বছর ধরে জাল সনদে শর্ত দিয়ে বেতন তুলছেন সোহেল রানা

প্রকাশিতঃ ১০:৩৬ অপরাহ্ন | সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২২

তানোর প্রতিনিধি: দীর্ঘ নয় বছর ধরে শর্ত ও জাল সার্টিফিকেটে বেতন তুলে যাচ্ছেন তানোর পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমরুল হকের ছোট ভাই সোহেল রানা বলে নিশ্চিত করেন তালন্দ ললিত মোহন ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ বিষ্ণুপদ সরকার।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে,রাজশাহীর তানোর পৌর এলাকার তালন্দ ললিত মোহন ডিগ্রি কলেজে বিগত ২০১৩ সালে জাল সার্টিফিকেট ও শর্ত এবং প্রভাব খাটিয়ে জোরপূর্বক সহকারী গ্রন্থাগারের চাকুরী পান সোহেল রানা। নিয়োগ বোর্ড তার আবেদন বাতিল করলেও ওই সময় শর্ত সাপেক্ষে জোর খাটিয়ে নিয়োগ নেই মেয়র ভাই সোহেল রানা। সোহেল রানার বাড়ি তালন্দ হরিদেবপুর গ্রামে। তার বড় ভাই পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং বর্তমানে পৌর মেয়র। ফলে সোহেল রানার এমন নিয়োগের খবর ছড়িয়ে পড়লে শিক্ষক মহল থেকে শুরু করে সর্বত্রই বইছে সমালোচনার ঝড়। সেই সাথে রানার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

সুত্রে জানা গেছ, বিগত ২০১৩ সালের দিকে তালন্দ ললিত মোহন ডিগ্রি কলেজে নিয়োগ বোর্ড বসে। নিয়োগ বোর্ড সোহেল রানার আবেদনে নিষিদ্ধ দারুল ইহসানের সার্টিফিকিটের জন্য বাতিল করেন। কিন্তু সোহেল রানা প্রভাব বিস্তার করে দু বছরের মধ্যে ডিপ্লোমা কোর্সের সার্টিফিকেট দেওয়ার শর্ত দিয়ে নিয়োগ পান। কিন্তু দীর্ঘ নয় বছরেও সার্টিফিকেট দিতে পারেন নি তিনি। শর্ত ও জাল সার্টিফিকেটেই তিনি বেতন তুলতেই আছেন।

সম্প্রতি শিক্ষা অধিদপ্তর জাল সনদ ধারী চাকুরীরত শিক্ষকদের তালিকা তৈরি শুরু করেছেন। যার কারনে সোহেল রানাও পড়েছেন আতংকে বলেও গুঞ্জন উঠেছে।

স্থানীয়রা জানান, জীবনে কখনো শুনিনি যে শর্ত দিয়ে চাকুরী পাওয়া যায়। সোহেল রানা তো জাল সার্টিফিকেটে চাকুরী করছেন সহকারী লাইব্রেরিয়ানের। আবার তিনি হয়েছেন শিক্ষক প্রতিনিধি। একজন কর্মচারী কিভাবে শিক্ষক প্রতিনিধি হতে পারেন বুঝে আসেনা। আবার তার এক চাচা অবৈধ কমিটি বলে আদালতে নাকি রিট করেছেন।

কমিটি অবৈধ রিট করলেন, অথচ সোহেল রানা কিভাবে প্রতিনিধি হয়, কেউ এটার জন্য তো রিট করল না। মেয়র ইমরুলের বংশের লোকজন তালন্দ স্কুল কলেজে এক সময় রাজত্ব করেছেন। কিন্তু এখন আর সেটা করতে না পারার কারনে রিট করে প্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট করতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন বলেও প্রচার কলেজ এলাকায়। তিনি তো কর্মচারী না, মনে হয় কলেজের নিয়ন্ত্রক। ঠিক মত কলেজে তো যান না, এপ্রান্তে ওপ্রান্তে নানান কাজে তিনি ব্যস্ত। আর কলেজ অধ্যক্ষও কিছু বলতে পারেন না। কারন তিনি সংখ্যালঘু। আর তারা স্থানীয় প্রভাবশালী।

নাম প্রকাশ না করে বেশকিছু প্রভাষক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, একজন কর্মচারী যদি শিক্ষক প্রতিনিধি হয়, তাহলে কলেজের অবস্থা কোথায় যেতে পারে এবং শিক্ষা কার্যক্রমের কি অবস্থা হবে ভেবে নিতে হবে। যে কলেজটির এত সুনাম, আজ সেই কলেজের কিনা করুন অবস্থা। জমি পুকুর গুলোরও নেই তেমন হুদিস। কমে গেছে শিক্ষার্থীর সংখ্যা, রয়েছে অবকাঠামো, কিন্তু শিক্ষার বেহাল দশা। হয় তো আর কখনো কলেজ তার ঐতিহ্য ফিরে পাবে কিনা সন্দেহ আছে।

অধ্যক্ষ নরম মানুষ, সে সুযোগ নিয়ে যা তা হচ্ছে। অতি দ্রুতই সোহেল রানার বিরুদ্ধে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জোরালো দাবি তুলেছেন।

শর্ত জাল সনদের বিষয়ে সোহেল রানার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কলেজে গিয়ে দেখে নিতে হবে এবং আমি সঠিক ভাবেই নিয়োগ পেয়েছি।

কলেজ অধ্যক্ষ বিষ্ণুপদ সরকার জানান, এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে তার নিয়োগের কাগজপত্র যাচাই বাছাই করে দেখা গেছে আন্ডার টেক বা শর্ত দেওয়া আছে এই বলে দুই বছরের মধ্যে সার্টিফিকেট দিতে হবে।

এভাবে শর্ত দিয়ে নিয়োগ হয় কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান, দীর্ঘ নয় বছর আগের ঘটনা, তখন কিভাবে হয়েছে মনে নেয়। তবে দ্রুত সময়ের মধ্যে কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে। এত দিনেও ব্যবস্থা নেওয়া হয় নি কেন আর একজন কর্মচারী কিভাবে শিক্ষক প্রতিনিধি হতে পারেন প্রশ্ন করা হলে সদ উত্তর না দিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে এড়িয়ে যান এই প্রিন্সিপাল।

দেখা হয়েছে: 36
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!