fbpx

|

নড়াইলের প্রতিবন্ধী আবুল কালাম আজাদ প্রধানমন্ত্রী চাকরীটি ফিরিয়ে দিন

প্রকাশিতঃ ১১:৩৯ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ২২, ২০১৭

উজ্জ্বল রায় নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■
নড়াইলের প্রতিবন্ধী আবুল কালাম আজাদ সর্বচ্চ ডিগ্রীধারী প্রধানমন্ত্রী যেন চাকরীটি ফিরিয়ে দেন ২০১২ সালে শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অধীনে সেকায়েপ প্রকল্পে রিসোর্স টিচারর্স (ইংরেজি বিষয়ে) হিসেবে চুয়াডাঙ্গা জেলাধীন আলমডাঙ্গা উপজেলা শিক্ষা অফিসে যোগদান করি।

 

চাকরী পেয়ে ঘাত প্রতিঘাতের মধ্যে চলা জীবনের পরিবর্তন আসে। নতুন স্বপ্ন দেখতে শুরু করি। পরিবারের সম্মতিতে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হই। দুই বছর যেতে না যেতেই আমাদের কোল জুড়ে আসে একটি পুত্র সন্তান। পরিবার পরিজন, আত্মীয় স্বজন নিয়ে ভালই কাটছিল সময়।

 

একান্ত কথোপকথনের সময় এরকম অনেক স্মৃতিচারণ করেন দেশের সর্বচ্চ ডিগ্রীধারী (ইংরেজী বিষয়ে) প্রতিবন্ধী আবুল কালাম আজাদ। তিনি নড়াইলের নোয়াগ্রাম ইউনিয়নের সত্রহাজারী গ্রামের মৃত কাজী শফিউদ্দিনের ছেলে। বাবা পেশায় শিক্ষক ছিলেন। সে জন্যই প্রতিবন্ধী আজাদও শিক্ষাকতা পেশাকে বেশি প্রাধান্য দিয়ে শিক্ষক প্রশিক্ষক হিসেবে সেকায়েপ প্রকল্পে যোগ দেন।

 

পরিবার সূত্রে আরও জানা যায়, ২০১৩ সালের জুনে প্রতিদিনের মত সেদিনেও আবুল কালাম আজাদ তার সহকর্মীকে সাথে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে আলমডাঙ্গার ভাড়া বাসা থেকে বের হয়ে অফিসের উদ্দেশ্যে রওনা হন। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস, কিছুদুর যেতে না যেতেই সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। ডান পায়ের হাড় ভেঙ্গে যায়। উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের গন্ডি পেরিয়ে ভারতে যেতে হয় তাকে। সম্পুর্ণ সুস্থ না হতেই উর্দ্ধতন কর্মকর্তার চাপে কর্মস্থলে যোগ দিতে বাধ্য হন তিনি।

 

এদিকে দুই মাস বেতন বন্ধ থাকায় চিকিৎসার ব্যায় ও সংসারের খরচ চালাতে হিমশিম খেতে হয় আজাদের পরিবারকে। বিনা মেঘে বজ্রপাত ! কোন কারন দর্শানো ছাড়াই ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর হঠাৎ শিক্ষা মন্ত্রনালয় থেকে চিঠির মারফত জানতে পারেন তিনিসহ আরও বেশ কয়েকজনকে চাকরীচ্যুত করা হয়েছে। আকাশ ভেঙ্গে পড়ার মত খবর শুনে অসহায় আজাদ তার শিশু সন্তান ও পরিবারসহ দিশেহারা হয়ে পড়ে।

 

প্রতিবন্ধী আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের বলেন, “আমি ইংরেজিতে ২০০৮ সালে অনার্স এবং ২০১১ সালে মাষ্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার শিশু সন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে যদি চাকরীটি ফিরিয়ে দেন অথবা আমার শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুযায়ী একটি কর্মের ব্যবস্থা করেন তা হলে এই অসহায় পরিবার চির কৃতজ্ঞ থাকবে”।

দেখা হয়েছে: 513
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!