fbpx

|

সংবাদ প্রকাশের পর বয়স্ক ভাতা কার্ড হলো আমেনা বেওয়ার

প্রকাশিতঃ ৫:০৬ পূর্বাহ্ন | জানুয়ারী ১৭, ২০১৮

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল,গাইবান্ধাঃ

“মোর একনা ভাতা কাট করি দেও বাহে” শীর্ষক সংবাদটি বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশ হলে তা আমলে নিয়েছেন সাদুল্যাপুর ইউএনও রহিমা খতুন। সোমবার ইউএনও কর্তৃক উপজেলা সমাজ সেবা অফিসারকে নিদের্শ দেওয়া হলে, আমেনা বেওয়ার নামে একটি বয়স্ক ভাতা কার্ড ইস্যু করা হয়। যার বহি নং ৪/৫৩৩।

প্রসঙ্গতঃ গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর উপজেলার জামালপুর ইউয়নের পাতিল্যাকুড়া গ্রামের হতদরিদ্র, বিধবা/বয়স্ক আমেনা বেওয়া। ১০৭ বছর বয়স হলেও তার ভাগ্যে জোটছিলনা বয়স্ক ভাতা কিংবা বিধবা ভাতার কার্ড। ফলে ছেলেদের সংসারে নানা অভাব-অনটনের মধ্য দিয়েই খেয়ে-না খেয়ে বেঁচে আছেন তিনি। চোখেও দেখেন কম। আমেনার সারা শরীরে নানা অসুখ বাসা বেঁধেছে। এমন কি তিনি প্যারালাইসেস রোগে আক্রান্ত হয়ে শয্যসয়ী। ওষুধ কেনার সামর্থ্য নেই। মানুষের কাছ থেকে চেয়ে যা পান তা দিয়েই ওষুধ কেনেন।

এ বিষয়ে সাংবাদিকরা বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করেন। ওই সংবাদটি সাদুল্যাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) রহিমা খাতুন আমলে নিয়ে উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা ইকবাল হোসেনকে নির্দেশ দেন। এরই প্রেক্ষিতে সোমবার আমেনা বেওয়ার নামে একটি বয়স্ক ভাতা বহি ইস্যু করা হয়।

এদিকে এ খবর আমেনা বেওয়া ও তার ছেলে মেয়েরা জানতে পেরে মহা খুশিতে উপনিত হয়েছেন। সেই সাথে ইউএনও রহিমা খাতুনের কর্মময় জীবনের সফলতা ও পরিবারের সুস্থ্যতা কামনায় দোয়া করেন বৃদ্ধা আমেনা বেওয়া।

দেখা হয়েছে: 513
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!