fbpx

|

আওয়ামীলীগ সাংগঠনিকভাবে গতিশীল তবে প্রবীণ-ত্যাগীদের দুর্দিন

প্রকাশিতঃ ৬:৪৭ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ২৫, ২০১৭

নাজিম হাসান,রাজশাহী প্রতিনিধি:
রাজশাহীর তানোরে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে সাংগঠনিকভাবে গতিশীল, দলীয় কর্মকান্ড জোরদার, প্রবীণ-ত্যাগী, নিবেদিতপ্রাণ নেতা ও কর্মীদের সক্রীয় করতে নানা উদ্যোগ নেয়া হলেও জনবিচ্ছিন্ন নাপিত নির্ভর বির্তকিত বগি নেতার কারণে আওয়ামী লীগ সেই উদ্যোগের সুফল ঘরে তুলতে ব্যর্থ হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

ফলে এসব হাইব্রিডরা জোটবেঁধে নেতা তৈরীর করলেও মাঠ পর্যায়ে ভোট কমছে বলে অভিমত তৃণশূলের। উপজেলা সদর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত পল্লী যেখানেই দু’চোখ দেখি শুধু নেতা আর নেতা কর্মীর কোনো হদিস নাই। বিষয়টি এমন কেউ নাপিত থেকে নেতা, কেউ হোটেল বয় থেকে নেতা, কেউ ট্রেনের হকার ও দালাল থেকে নেতা, উপ-নেতা,পাতি-নেতা,বগি নেতা, খুর নেতা, ছিঁচকে নেতা ও নেতার নেতা ইত্যাদি বিশেষণে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে এসব হাইব্রিডদের।

কারণ যে চা বিক্রি করে সেও নেতা, যে ভ্যান চালাই সেও নেতা, মাদকসেবী ও বিক্রেতা থেকে শুরু করে হোটেল বয় , হকার থেকে শুরু করে দালালরা পর্যন্ত নেতা পরিচয়ে প্যানা তৈরী করে এলাকার জনবহুল স্থানে স্থানে সেটেছে। অথচ যারা এসব নেতা পরিচয় দিয়ে আওয়ামী লীগের কাছে থেকে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা হাতিয়ে নিচ্ছেন তারা নিজোরাও নিশ্চয়তা দিতে পারে না তাদের পরিবারের অন্য সদস্যরা আওয়ামী লীগে ভোট দিবেন কি না ?, তবে কি ? আওয়ামী লীগ জনবিচ্ছিন্ন ভূগি (নামসর্বস্ব) দলে পরিণত হয়েছে, নইলে এসব হাইব্রিডরা কিভাবে হয় নেতা এমন ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের এক জৈষ্ঠ নেতা। তিনি বলেন, এসব হাইব্রিডদের নানামূখী অপকর্মের কারণে আওয়ামী লীগের ভোট কমছে বই বাড়ছে না।

অধিকাংশ ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের রাজনীতি অনেকটা স্কুল-মাদরাসা-কলেজের শিক্ষক-কর্মচারি ও বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রাধান্য দেখা যাচ্ছে। এখন আওয়ামী লীগে লুঙ্গি পরা পা-ফাটা কৃষক ও হতদরিদ্র নিপিড়িত-নির্যাতন মানুষের কোনো কদর নাই, তার পরিবর্তে কদর বেড়েছে স্যুট-টাই পরাদের।

তৃণমূলের অভিমত, নেতাদের পকেটে কিছু নগদ নারায়ন দিয়ে লেখাপড়া-জানুক বা না জানুক স্যুট-টাই পরে দুই হাত-পা তুলে বিভিন্ন স্থানে প্যানা সাঁটাতে পারলেই নেতা পিছু ফেরার সময় নাই। এসব হাইব্রিডরা গভীর নলকুপ অপারেটর, শিক্ষক-কর্মচারি নিয়োগ, ঠিকাদারী ও বিভিন্ন তদ্বির দিয়ে লাখ লাখ টাকা আহরণ করতে পারলেও প্রবীণ-ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ নেতারা চরম দূর্দীনে রয়েছে, কেউ কেউ নিজ ঘরে পরবাসি হয়ে আছে। আর আওয়ামী লীগে এখন এসব হাইব্রিডদের কদর অনেক বেশি এমনকি হাইব্রিডদের দাপটে প্রবীণ-ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীরা রীতিমতো কোনঠাঁসা হয়ে পড়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের তৃণমূলের অভিযোগ, আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে নেতা ও কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে বিরাজমান মতবিরোধের মূলেই রয়েছে নাপিত নির্ভর ওই বগি নেতা। ওই বগি নেতা ও তার অনুগত হাইব্রিডদের আধিপত্য ও বির্তকিত কর্মকান্ডে অতিষ্ঠ হয়ে দলের অনেক প্রবীণ-ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ নেতা তাদের অনুসারিদের নিয়ে নিস্ক্রীয় রয়েছে। আবার কেউ কেউ শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত হবার আশঙ্কায় দলীয় কর্মকান্ড থেকে দুরে সরে রয়েছে।

ইতমধ্যে ওই বগি নেতার নির্দেশে তার অনুসারী বলে পরিচিত হাইব্রিডরা গণমাধ্যমকর্মী, ছাত্রলীগ নেতা ও দলীয় কর্মীদের ওপর নির্যাতন করেছে, কিন্তু তাদের অদৃশ্য ক্ষমতার দাপটের কাছে সকলেই অসহায় নির্যাতনের শিকার হলেও বিচার চাইতে পারেনি এরা আওয়ামী লীগের থেকেও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। অথচ তাদের এসব কর্মকান্ডের কারণে আওয়ামী লীগ ও সাংসদ ওমর ফারুক চৌধূরীর সব অর্জন উবে যেতে বসেছে। আবার ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার নির্বাচিত হবার মতো গ্রহণযোগ্যতা না থাকলেও তিনিই আওয়ামী লীগের রাজনীতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণ করছেন বলে প্রচার আছে।

এদিকে পরিচ্ছন্ন ব্যক্তি ইমেজ, কর্মী ও জনবান্ধব নেতা হিসেবে দলমত নির্বিশেষে সব-শ্রেণী-পেশার মানুষের কাছে এখানো এমপি ফারুক চৌধূরীর ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। কিন্তু এসব হাইব্রিডদের নানা বির্তকিত কর্মকান্ডের দায় পড়ছে এমপি ওমর ফারুক চৌধূরীর উপর। ফলে এদের কারণে সাংগঠনিক দুরাবস্থা সৃষ্টি ও সাধারণ মানুষের মধ্যে এমপিকে নিয়ে নেতিবাচক মনোভাব তৈরী হচ্ছে এর দায় নিবে কে ?। এসব কারণে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মধ্যে চরম অসন্তোষ বিরাজ করছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, জনবিচ্ছিন্ন ওই বগি নেতা ও তার অনুগত অনুপ্রবেশকারী হাইব্রিডদের বিভিন্ন বির্তকিত কর্মকান্ডের কারণে অভিমান করে গোদাগাড়ী উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নন্দিত নেতা আতাউর রহমান, সাবেক ডিআইজি মতিউর রহমান, তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌর মেয়র জননেতা গোলাম রাব্বানী, কলমা ইউপি আওয়ামী লীগের (সাবেক) সভাপতি সাদেকুন্নবী চৌধূরী বাবু ও মুন্ডুমালা পৌর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান প্রমূখগণ রাজনীতি থেকে নিজেদের দুরে শরিয়ে রেখেছেন বলে জনশ্র“তি রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তানোর পৌর আওয়ামী লীগের এক নেতা বলেন, ইউপি সদস্য হবার যোগ্যতা নাই অনুপ্রবেশকারী এমন হাইব্রিডরা যদি নেতৃত্ব দেয় তখন দলের নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীদের দলে জায়গা হয় না। ফলে বিষয়টি দলের নীতিনির্ধারকদের ভাবিয়ে তুলেছে। অথচ প্রায় প্রতিনিয়ত বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ব্যানারে দলে দলে নেতাকর্মীরা (মতলববাজ) আওয়ামী লীগে যোগদান করছে। আসলে এরা পূর্বেও আওয়ামী লীগ ছিল না, এখানো নাই ভবিষ্যতেও হবে না, এরা নিজেদের চাকরি ব্যবসা-বাণিজ্য, গভীর নলকুপের অপারেটর ইত্যাদি টিকিয়ে রাখতে কেউ আমার অপকর্ম আড়াল করে মামলা থেকে বাঁচতে আওয়ামী লীগে যোগ দিচ্ছেন যেটা আওয়ামী লীগ বুঝতে পারছে না। আর তাই এরা দলে দলে আওয়ামী লীগে যোগদান করার পরেও দলের সাংগঠনিক কর্মকান্ডে কোনো প্রভাব পড়ছে না আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক দুরস্থা কাটছে না।

ফলে তৃণমূলের নেতাকর্মী ও সাধারণের মনে প্রশ্ন উঠেছে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ব্যানারে নেতাকর্মী আওয়ামী লীগে যোগদান করছেন আসলে তারা কারা ? আর তাদের যোগদানের উদ্দেশ্যেই বা কি ? বিপুল নেতাকর্মীর যোগদানের পরেও যদি দলের সাংগঠনিক কর্মকান্ড গতিশীল না হয় ? তাহলে ডাকঢোল পিটিয়ে তাদের এতো ঘটা করে দলে যোগদান করিয়ে লাভ কি ? বরং তাদের কারণে আওয়ামী লীগ মাথাভারী সংগঠনে পরিনত হচ্ছে বলে মনে করছেন তৃণমূলের নেতা ও কর্মী-সমর্থকগণ। আর এসব নবাগত হাইব্রিডদের ভিড়ে প্রবীণ, ত্যাগী, পরীক্ষিত ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মীরা হারিয়ে যাচ্ছে এতে দল সাংগঠনিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও পর্যবেক্ষক মহলের অভিমত, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের কিছু হাইব্রিড জনবিচ্ছন্ন বগি নেতা গণমাধ্যমে প্রচার পেতে ও দলের হাইকমান্ডের কাছে নিজের অবস্থান জাহির করতেই বিভিন্ন রাজনৈদিক দলের ব্যানারে এলাকার একশ্রেণীর সুবিধাভোগী মতলব বাজদের দলে দলে আওয়ামী লীগে যোগদান করাচ্ছে। আর এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারের জন্য কিছু বখাটে যুবককে মুঠোফোন কিনে দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে নয় নিজেদের মতলব পূরুণের জন্য মতলববাজরা দলে দলে আওয়ামী লীগে ভিড় জমাচ্ছে।

রাজনৈতিক দলের পদ-পদবী নাই এসব মতলববাজ যারা আওয়ামী লীগে যোগদান করছে, আবার এদের অনেকেরই জীবনটাই রাজনৈতিক পালা বদলের,আবার কেউ গভীর নলকুপের অপারেটর রক্ষা, আত্মীয়-স্বজনদের চাকরি বাগানোর তাগিদে আওয়ামী লীগে যোগদান করছেন। অথচ সাধারণের মধ্যে এসব মতলববাজদের গ্রহণযোগ্যতা কতটুকু, তারা নিজেরাই আওয়ামী লীগে ভোট দিবেন কি না ?, তাদের রাজনৈতিক অবস্থান কি ইত্যাদি বিষয়ে খোজখবর না নিয়ে এভাবে দলে দলে মতলববাজদের আওয়ামী লীগে যোগদান করানোয় রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ মাথাভারী সংগঠনে পরিণত হচ্ছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অভিমত। অনেক মতলববাজ আবার আওয়ামী লীগে যোগদান করেও গোপণে আওয়ামী লীগ বিরোধী নেতৃত্ব’র সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছে।

কারণ ভবিষ্যতে যেনো খোলস পাল্টাতে তাদের কোনো সমস্যা না হয়। তারা বলছে, এভাবে মতলববাজদের দলে না ভিড়িয়ে বরং দলের অনেক ত্যাগী ও নিবেদিতপ্রাণ নেতাকর্মী যারা নানা কারণে মান-অভিমানে দীর্ঘদিন ধরে নিস্ক্রীয় রয়েছে তাদের আবারো সক্রিয় করা হলে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক ভাবে আরও বেশী লাভবান হবে। আর তা না করা গেলে দেখা যাবে এসব মতলববাজদের ভিড়ে অনেক নেতাকর্মী দেখা গেলেও ভোটের মাঠে উল্টো চিত্র ফুটে উঠবে বলে তুণমূল নেতাকর্মীরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছে।

 

আরো পড়ুন… 

৯টি মানব কংকাল উদ্ধার, গ্রেফতার ১

দেখা হয়েছে: 499
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!