fbpx

|

শিক্ষামন্ত্রীই টাকার বিনিময়ে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সুযোগ করে দিয়েছেন- রিজভী

প্রকাশিতঃ ৫:৪৪ অপরাহ্ন | ডিসেম্বর ২৫, ২০১৭

অনলাইন বার্তাঃ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবীর রিজভী বলেছেন, ’ শিক্ষামন্ত্রীই সারা দেশে লাখ লাখ টাকার বিনিময়ে প্রশ্নপ্ত্র ফাঁসের সুযোগ করে দিয়েছেন। জাতিকে মেধাহীন করতে শিক্ষামন্ত্রী প্রশ্নপত্র ফাঁসসহ দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংসের জন্য অবিরাম গতিতে কাজ করে যাচ্ছেন বলেও মন্তব্য করেছেন রিজভী । আজ নয়াপল্টনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রীর আমলে গ্রীস্ম, বর্ষা, শীত, বসন্ত, হেমন্তে প্রশ্নপত্র গোপন থাকতে চায় না। বন্ধ দুয়ার ভেদ করে পরীক্ষা শুরু হওয়ার আগেই প্রশ্নপত্র বাজারে কেনা বেচা হয়। জড়বস্তু প্রশ্নপত্রে যেন প্রাণ সঞ্চারিত হয়েছে। এইজন্যই সে অর্গল ভেঙ্গে লোকালয়ে ছড়িয়ে পড়ে। শিক্ষামন্ত্রী নিজেদের লোকদেরকে এই কেনা বেচার সুযোগও করে দিয়েছেন সুকৌশলে। আওয়ামী সরকারের মন্ত্রীরা এক অভিনব কায়দা উদ্ভাবন করেছেন যেখানে প্রাইমারীর প্রথম শ্রেণী থেকে শুরু করে পিইসি, জেএসসি, জেডিসি, এসএসসি, এইচএসসি, বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, মেডিকেল ভর্ত্তি পরীক্ষা, চাকুরিতে নিয়োগ পরীক্ষা সবখানেই প্রশ্নপ্রত্র ফাঁস হয় লাখ লাখ টাকার বিনিময়ে। এতো কিছুর পরও মিডিয়ার বদৌলতে এই প্রশ্নফাঁস কেলেঙ্কারির সাথে যারা জড়িত তারা সরকারেরই মায়ামুগ্ধ ছাত্রলীগের সোনার সন্তানেরা।

শিক্ষামন্ত্রীর কথায় মনে হচ্ছে, তিনিই এসব কেলেঙ্কারির উৎসাহদাতা। যে উদ্দেশ্য নিয়ে ১৪ ডিসেম্বর দেশের বরেণ্য বুদ্ধিজীবীদেরকে হত্যা করেছিল হানাদার বাহিনী, সেই একই উদ্দেশ্য নিয়ে জাতিকে মেধাহীন করতে শিক্ষামন্ত্রী প্রশ্নপত্র ফাঁসসহ দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে ধ্বংসের জন্য অবিরাম গতিতে কাজ করে যাচ্ছেন।

রুহুল কবীর রিজভী আরো বলেন,

বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার জোর করে ক্ষমতা দখলের পর সরকারের মন্ত্রী-এমপি থেকে শুরু করে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের লোকেরা দুর্নীতির প্রতিযোগিতায় লিপ্ত। প্রতিটি সেক্টর আজ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত। তাদের আমলেই দুইবার শেয়ার বাজার লুট হয়েছে। রাজকোষ কেলেঙ্কারি হয়েছে, সরকারি-বেসরকারি সকল ব্যাংক লুট হচ্ছে। রাজনৈতিক পরিচয়ের সুবাদে ব্যাংকের লাইসেন্স পেয়ে দুই তিন বছরের মধ্যেই সেই ব্যাংক ধ্বসে যাচ্ছে। শুধুমাত্র লুটের কারণেই আর্থিক খাত আজ ধ্বংসের মুখে। লুটের কারনে আমানতকারীরা টাকা ফেরত পাচ্ছে না, এমনকি কর্মচারীদের বেতন দেয়ার সামর্থও নেই অনেক ব্যাংকের। যেমন ফার্মার্স ব্যাংক সম্পর্কে অর্থমন্ত্রী বলেছেন-‘যারা এই ব্যাংকটি প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন, সেই উদ্যোক্তা পরিচালকরা লুটপাট করে ব্যাংকটি শেষ করে দিয়েছে।’ সরকারী দলের মনোভাবাপন্ন অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আবুল বারাকাত দুই দিন আগে বলেছেন, দুর্নীতি আর লুটপাটের কারণে দেশের অধিকাংশ ব্যাংক দেউলিয়ার পথে। উন্নয়নের নামে দেশজুড়ে লুটপাট চলছে, আজও একটি পত্রিকার শিরাণাম হলো প্রকল্প সমাপ্ত: কাজ হয়নি। হাতিয়ায় বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপন না করেই কাজ শেষের ঘোষনা দিয়েছে পিডিবি। পদ্মা সেতু কেলেঙ্কারি, ফ্লাইওভার কেলেঙ্কারি, সড়ক-মহাসড়কে উন্নয়নের নামে হরিলুট চলছে পাল্লা দিয়ে। সুতরাং বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার নি:সন্দেহে আত্মস্বীকৃত লুটপাটকারী।

সাংবাদিক ভাই ও বোনেরা

অর্থমন্ত্রী বলেছেন, সরকারই চেয়েছে চালের দাম কিছুটা বাড়ুক। কিন্তু প্রতি কেজি চালের দাম ৫০ টাকার বেশি হওয়াটা মানুষের জন্য বড় ধরনের সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এটা অসহনীয় হয়ে গেছে। চালের দামে স্থিতিশীলতার বিষয়ে কোন ঠিক ঠিকানা নেই।’ বিনা ভোটের সরকারের অর্থমন্ত্রী অনেক সময় সত্য কথা প্রকাশ করে দেন। জনগণের সঙ্গে বর্তমান সরকার যে তামাশা করে সেটি প্রমান করলেন অর্থমন্ত্রী। জনগণের টাকা লুটপাটে উৎসাহিত হয়ে সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি করতে দ্বিধা করছে না। একমাত্র কান্ডজ্ঞানহীন ভোটারবিহীন, বিবেকহীন, নির্দয়, নিষ্ঠুর শাসকরাই খাদ্যদ্রব্যের দাম বৃদ্ধিতে আনন্দিত হয়, তামাশা করে। এরাই জনগণের ক্ষুধা নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে ভালবাসে। এরা বরাবরই জনগণের সাথে ক্ষুধা নিয়ে প্রতারণা করেছে। যেমন-দশ টাকা কেজি চাল খাওয়ানোর কথা বলে এখন সত্তর টাকা কেজি চাল খাওয়াচ্ছে।

রিজভী বলেন, চাল, ডাল, পেয়াঁজ চিনিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের উর্ধ্বগতির কারণে দেশের মানুষ যখন দিশেহারা ঠিক তখনই অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে জনগনের দু:খ বেদনা নিয়ে রাবিশ রসিকতা ছাড়া আর কিছুই নয়। অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যে সরকারের চরম গণবিরোধী রুপটি আবারো প্রকাশিত হলো। আমি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’র পক্ষ থেকে অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সরকারের গণদুশমনমূলক নীতির তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।ধন্যবাদ সবাইকে। আল্লাহ হাফেজ।

সূত্র দেশ জনতা

দেখা হয়েছে: 423
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!