fbpx

|

মহাখালী থেকে বিকাশে প্রতারণা চক্রের চার সদস্য গ্রেফতার

প্রকাশিতঃ ১০:৫২ পূর্বাহ্ন | ডিসেম্বর ২৭, ২০১৭

স্টাফ রিপোর্টারঃ

রাজধানীর শেরেবাংলা নগর ও মহাখালী থেকে বিকাশের মাধ্যমে টাকা আত্মসাৎকারী চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গ্রেফতারকৃতরা হলেন-মো. নাসির হোসেন (২২), মো. রাসেল (২২), মো. হানিফ এবং মো. শাহাব উদ্দিন (২০)। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় র‌্যাবের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানােনা হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি র‌্যাবের কাছে বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ আসে যে কিছু সংঘবদ্ধ চক্র মোবাইল ব্যাংকিং যেমন বিকাশ, রকেট, এমক্যাশ ইত্যাদি জালিয়াতি করে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করছে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়ে গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে নাসির হোসেন, রাসেল, হানিফ এবং শাহাব উদ্দিনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব-২। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা র‌্যাবকে জানিয়েছে, তারা একটি সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের সক্রিয় সদস্য। এই চক্রের সদস্যরা তাদের নিজেদের একটি নম্বরে বিকাশ করার সময় কৌশলে এসভিআর (সিক্রেট ভিডিও রেকর্ডার) ব্যবহার করে বিকাশ রেজিস্টারের ছবি তুলে নেয়। সংগৃহীত ছবি তারা গ্রুপ লিডারের কাছে পাঠিয়ে দেয়ার পর ওই রেজিস্টারে থাকা গ্রাহকদের মধ্যে কয়েকজনকে টার্গেট করে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এই চক্রটি ইন্টারনেটের বিভিন্ন ওয়েবসাইট ব্যবহার করে লেনদেনকৃত টাকার চেয়ে বেশি টাকার এসএমএস তৈরি করে এসএমএসটি টার্গেট ব্যক্তির মোবাইল ফোনে পাঠায় যাতে ওই মেসেজের প্রেরক হিসাবে বিকাশ  লেখা দেখা যায়। পরে ওই ভুক্তভোগী ব্যক্তিকে যে স্থান থেকে বিকাশ করা হয়েছে প্রতারক চক্র তাকে ওই স্থান উল্লেখ করে জানায় যে আপনার মোবাইলে টাকাটি ভুলবশত দুবার পাঠানো হয়েছে। ভুক্তভোগী বিকাশের অরিজিনাল মেসেজ হিসাবে তা বিশ্বাষ করে প্রতারকদের আহ্বানে সাড়া দেয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রতারকচক্রটি ভুক্তভোগীকে তার নিকটাত্মীয় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন, তাই জরুরি টাকার প্রয়োজন ইত্যাদি বুঝিয়ে দ্রুত টাকা পাঠানোর জন্য বাধ্য করে। ভুক্তভোগী প্রতারক চক্রের কাছে টাকা পাঠিয়ে দেয়ার পর বিষয়টি ভুয়া বা প্রতারণা হিসাবে চিহ্নিত হবার পর ভুক্তভোগী প্রতারক চক্রের সাথে যোগাযোগ করলে তাদের কলার টোন হিসাবে‘এই মুহূর্তে আপনার কাক্সিক্ষত মোবাইল নম্বরে সংযোগ দেয়া সম্ভব হচ্ছে না শুনে টাকা ফেরত পাবার আশা ছেড়ে দেয়।

এ ছাড়া চক্রের মূল হোতারা ফরিদপুর, গাইবান্ধা ও কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান করে গ্রামের নিরীহ মানুষের কাছে থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছে গ্রেফতার চার যুবক।

দেখা হয়েছে: 388
সর্বাধিক পঠিত
ফেইসবুকে আমরা

অত্র পত্রিকায় প্রকাশিত কোন সংবাদ কোন ব্যক্তি বা কোন প্রতিষ্ঠানের মানহানিকর হলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নহে। সকল লেখার স্বত্ব ও দায় লেখকের।

প্রকাশকঃ মোঃ জাহিদ হাসান
সম্পাদকঃ আরিফ আহম্মেদ
সহকারী সম্পাদকঃ সৈয়দ তরিকুল্লাহ আশরাফী
নির্বাহী সম্পাদকঃ মোঃ সবুজ মিয়া
মোবাইলঃ ০১৯৭১-৭৬৪৪৯৭
বার্তা বিভাগ মোবাইলঃ ০১৭১৫-৭২৭২৮৮
ই-মেইলঃ [email protected]
অফিসঃ ১২/২ পশ্চিম রাজারবাগ, বাসাবো, সবুজবাগ, ঢাকা ১২১৪
error: Content is protected !!